সারা বাংলা

পরশুরামে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থীর মৃত্যু

প্রতিনিধি, ফেনী: ফেনীর পরশুরাম উপজেলার সত্যনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ওয়াশব্লকের পানির মোটরের বৈদ্যুতিক লাইনে শর্টসার্কিট হয়ে আবদুল কাইয়ুম নামের (৬) এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত কাইয়ুম উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নের সত্যনগর গ্রামের মো. কাউছারের ছেলে। সে সত্যনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী বলে জানান স্কুলের প্রধান শিক্ষক বেলাল হোসেন। গতকাল সকালে বাবা কাউছারের কাছ থেকে ১০ টাকা নিয়ে চিপস কেনার জন্য দোকানে যাচ্ছিল কাইয়ুম। এ সময় সত্যনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উত্তর পাশে রাস্তায় ওয়াশব্লকের সঙ্গে যুক্ত বৈদ্যুতিক তারে হাত লাগালে ঘটনাস্থলে সে মারা যায়।

পরশুরাম পল্লী বিদ্যুতের লাইনম্যান দেবব্রত স্কুলের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় শিশুটিকে পড়ে থাকতে দেখে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেন। দেবব্রত জানান, সকাল থেকে ওই গ্রামে বিদ্যুতের কাজ করছিলেন। হঠাৎ শিশুটিকে পড়ে থাকতে দেখেন তিনি। তিনি আরও জানান, তার ডান হাতে স্কুলের বিদ্যুতের তার ধরা ছিল আর বাঁ হাতে ছিল ১০ টাকার একটি নোট।

পরে স্থানীয়রা পরশুরাম থানার পুলিশকে খবর দিলে বেলা ১টায় ঘটনাস্থল থেকে তারা নিহত শিশুটির লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

পরশুরাম মডেল থানার ওসি মু. খালেদ হোসেন জানান, বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিটে শিশুর নিহত হওয়ার খবর শুনে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। স্কুল কর্তৃপক্ষ ও ঠিকাদারের গাফিলতি আছে কি না খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জানা গেছে, উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রকৌশলী ফাহাদ ভুইয়ার তত্ত্বাবধানে ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জামাল অ্যান্ড ব্রাদার্স ২০২০ সালের জুলাইয়ে শেষ কাজ করে। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, নির্মাণকাজে ক্রটি ও নানা অনিয়মের বিষয়ে একাধিকবার জানানোর পরও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওই তারে কোনো কভার দেয়নি।

পরশুরাম উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রকৌশলী ফাহাদ ভুইয়া জানান, ওয়াশব্লকে শর্টসার্কিট হওয়ার কথা নয়। তবে কীভাবে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে তা খোঁজ নিয়ে দেখা হবে বলে জানান তিনি। 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..