দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

পরিবহন সংকটে যাত্রী ভোগান্তি চরমে

বাসের পর ট্রাক ধর্মঘটের ডাক

নিজস্ব প্রতিবেদক : নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের পর দেশের বিভিন্ন জেলায় বাস চলাচল বন্ধের পর এবার সারা দেশে ট্রাক ধর্মঘটের ডাক এসেছে। বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ গতকাল মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন আইন স্থগিত রাখাসহ ৯ দফা দাবিতে আজ বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি ডেকেছেন।

শাস্তির মাত্রা বাড়িয়ে নতুন সড়ক পরিবহন আইন প্রণয়নের শুরু থেকে তার বিরোধিতা করে আসছিলেন পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা। গত সোমবার থেকে আইনটি কার্যকর শুরু পর কোনো চাপে পিছু হটবেন না বলে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঘোষণা দেওয়ার পর পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা দৃশ্যত চাপ বাড়িয়ে দিয়েছেন।

মঙ্গলবার ঢাকার তেজগাঁওয়ে সংবাদ সম্মেলনে ট্রাক মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক মো. রুস্তম আলী খান বলেন, সড়ক পরিবহন আইন স্থগিত করে মালিক শ্রমিকদের আয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে জরিমানার বিধান ও দণ্ড উল্লেখ করে একটি ‘যুগোপযোগী বাস্তবসম্মত ও বিজ্ঞানভিত্তিক’ সঠিক আইন প্রণয়ন করতে হবে।

ট্রাক ধর্মঘট শুরু হলে পণ্য পরিবহন বাধাগ্রস্ত হয়ে নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যেতে পারে। ট্রাক মালিক-শ্রমিকরা সড়ক পরিবহন আইন প্রত্যাখ্যান করছে কি নাÑএ প্রশ্নে রুস্তম বলেন, তারা পুরো আইন প্রত্যাখ্যান করছেন না। কিছু ধারার সংশোধন চান।

আইনের সব ধারা নিয়ে আমাদের আপত্তি নেই। কিছু বিষয় নিয়ে আমরা বিভিন্ন সময় দাবি জানিয়েছি। কিন্তু সরকার আশ্বস্ত করলেও পরে সেগুলো বাস্তবায়ন করেনি। এ কারণেই কর্মসূচি। সংবাদ সম্মেলনে দাবিগুলো পড়ে শোনান রুস্তম আলী।

তিনি বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় চালককে এককভাবে দায়ী করা যাবে না। সড়ক দুর্ঘটনাজনিত কোনো মামলায় চালককে আসামি করলে তা অবশ্যই জামিনযোগ্য ধারায় হতে হবে।

‘তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত দোষী চিহ্নিত করার কাজে মালিক-শ্রমিক প্রতিনিধিদের যুক্ত করতে হবে। এ কমিটির মাধ্যমে সঠিক তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে হবে। সড়ক দুর্ঘটনায় কোনো গাড়ির মালিককে গ্রেফতার বা হয়রানি করা যাবে না।’

এছাড়া ‘সড়ক পরিবহন উপদেষ্টা কমিটি’, ‘সড়ক পরিবহন আইনশৃঙ্খলা কমিটি’ এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় গঠিত পণ্য পরিবহন সংশ্লিষ্ট যে কোনো কমিটিতে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের প্রতিনিধি রাখার দাবি জানান নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সদস্য সচিব তাজুল ইসলাম, যুগ্ম আহ্বায়ক মকবুল আহমদ এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. মনিরসহ পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে মঙ্গলবার সকাল থেকে পিরোজপুরের সঙ্গে সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ করে দেন পরিবহন শ্রমিকরা। পিরোজপুর জেলা বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন বলেন, নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের প্রতিবাদে শ্রমিকরা বাস চালাচ্ছেন না। কোনো কারণে দুর্ঘটনায় কেউ মারা গেলে নতুন আইনে চালকদের মৃত্যুদণ্ড এবং আহত হলে পাঁচ লাখ টাকা দিতে হবে। আমাদের এত টাকা দেওয়ার সামর্থ্য নেই এবং বাস চালিয়ে আমরা জেলখানায় যেতে চাই না। এ কারণেই নতুন পরিবহন আইন সংস্কারের দাবি করছে শ্রমিকরা।’

একইভাবে সকালে ঝালকাঠি থেকে ১৭টি রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে শ্রমিকরা। ঝালকাঠি জেলা বাস ও মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. বাহাদুর চৌধুরী বলেন, ‘বাসের ড্রাইভার ও তাদের সহযোগীরা এ ধর্মঘট ডেকেছে। তবে এটা কেন্দ্রীয় কর্মসূচি নয়। আগামী ২১ ও ২২ নভেম্বর নতুন সড়ক পরিবহন আইন নিয়ে ঢাকায় কেন্দ্রীয় কমিটির সভা ডাকা হয়েছিল। আমরা সাংগঠনিকভাবে ওই সভার সিদ্ধান্তের অপেক্ষা করছিলাম। তবে চালক ও তাদের সহযোগীদের হঠাৎ ধর্মঘটের এ কর্মসূচি আপাতত আমরা সমর্থন করি না।’

এদিকে ময়মনসিংহ থেকে ঢাকাসহ বিভিন্ন গন্তব্যের দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকলেও অভ্যন্তরীণ রুটে চলাচল করছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

এছাড়া খুলনায় নতুন সড়ক পরিবহন আইনের কিছু ধারা সংশোধনের দাবিতে গতকালও বাসচালকরা কর্মবিরতি চালিয়ে যাচ্ছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে সব রুটে বাস, মিনিবাস ও পরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। এর ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা।

রাইসা ইসলাম নামে এক যাত্রী বলেন, বাস চলছে না জানি। তারপরও জরুরি দরকারে কেশবপুর যেতে হবে। এ কারণে বাসস্ট্যান্ডে এলাম। ভাবলাম চুকনগর হয়ে ভেঙে ভেঙে গাড়ি পাব। কিন্তু না, এখন ইজিবাইক কন্ট্রাক্ট করে যেতে হচ্ছে। 

সাধারণ যাত্রীদের পাশাপাশি বিপাকে রয়েছেন খুলনায় বসবাসকারী সরকারি কর্মজীবীরা যারা এখান থেকে বাগেরহাট, যশোর, নওয়াপাড়া, ফুলতলা, মোংলা, ফকিরহাট, মোল্লাহাট, গোপালগঞ্জে গিয়ে প্রতিনিয়ত অফিস করেন।

বাসচালক জাহিদুল ইসলাম জানান, রাজপথে তাদের জেল-জরিমানার ভয় আছে। সড়কে গাড়ি নিয়ে নামলে টুকটাক সমস্যা হবেই। সেটা যে কারও ক্ষেত্রেই হতে পারে। আমরা কোনো অপরাধ না করলেও সমস্যা কিছু থাকবে। ছোটখাটো কারণে প্রশাসন জেলে ঢোকাবে, জরিমানা করবে, সেটাই ভয়ের। তার চেয়ে গাড়ি না চালানোটাই চালকদের জন্য নিরাপদ।

এছাড়া খুলনার সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে, খুলনা থেকে সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, যশোর, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, মাগুড়া, নড়াইল, গোপালগঞ্জ, ফরিদপুরসহ বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ রুটের বাসচালক ও শ্রমিকরা কাজে যোগদান করেননি।

খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বিপ্লব বলেন, ‘সড়কে অবৈধ নসিমন-করিমন চলে তাদের কারণেই দুর্ঘটনা ঘটে। এসব যানবাহন বন্ধ ও চালকদের জরিমানা করা হয় না। বাসচালকদের ক্ষেত্রে জেল-জরিমানা হতে দেখা যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘সোমবার সকালে শ্রমিকরা কর্মবিরতিতে যাওয়ার পর যাত্রীদের কথা চিন্তা করে তাদের (চালকদের) অনুরোধ করা হয়েছে। কিন্তু সাধারণ শ্রমিকরা তাদের সিদ্ধান্ত পাল্টাননি। তবে যদি কোনো চালক বাস চালাতে চান, তাকে যেন কেউ বাধা দিতে না পারে, সে বিষয়ে নজর রাখা হয়েছে।’ 

এদিকে দ্বিতীয় দিনের মতো চুয়াডাঙ্গায় অনির্দিষ্টকালের বাস ধর্মঘট চলছে। মঙ্গলবার চুয়াডাঙ্গা থেকে দূরপাল্লার ও আন্তঃজেলা রুটে সব ধরনের যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

মোংলাতেও সোমবার থেকে শুরু হওয়ার পরিবহন ধর্মঘট গতকালও অব্যাহত ছিল। নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে মঙ্গলবার সকাল থেকে মোংলা-খুলনা, মোংলা-রূপসা, মোংলা-বাগেরহাটসহ অন্য সব রুটে বাস-মিনিবাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন এ সব রুটের যাত্রীরা। তবে আজ ভোরে মোংলা থেকে দূরপাল্লার যান ছেড়ে গেছে। মোংলা-খুলনা বাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব এ তথ্য জানান। 

যশোরের পরিবহন শ্রমিকরা স্বেচ্ছায় বাস চলাচল বন্ধ অব্যাহত রেখেছেন। মঙ্গলবার যশোর থেকে দূরপাল্লার কোনো বাস যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন শ্রমিক নেতারা।

বাংলাদেশ পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মামুনুর রশিদ বাচ্চু বলেন, সোমবার রাতে যশোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ আমাদের ডেকেছিলেন। তিনি অনুরোধ করেন- অন্তত ছেলেমেয়েদের পরীক্ষার বিষয় কনসিডার করে যেন যশোরে বাস চলাচল সচল রাখা যায়। কিন্তু আমরা তাকে আশ্বস্ত করতে পারিনি।

দ্বিতীয় দিনের মতো ঝিনাইদহেরও স্থানীয় সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে বাস শ্রমিকরা। সোমবার সকাল থেকে ঝিনাইদহ-যশোর, ঝিনাইদহ-কুষ্টিয়া, মাগুরা ও চুয়াডাঙ্গার অভ্যন্তরীণ রুটে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে তারা। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে যাত্রীরা।

সাতক্ষীরা কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে মঙ্গলবার সকাল থেকে কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। বন্ধ রয়েছে অভ্যন্তরীণ রুটের সব বাস চলাচলও। তবে যাত্রীবাহী বাস বন্ধ থাকলেও দুই একটি বিআরটিসি বাস চলাচল করতে দেখা গেছে।

এদিকে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন দূর-দূরান্তের যাত্রীরা। ইজিবাইক, ভ্যানসহ বিভিন্ন যানবাহনে যাতায়াত করছেন তারা।

সাতক্ষীরা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সাবেক সভাপতি সাইফুল করিম সাবু বলেন, শ্রমিকরা স্বপ্রণোদিত হয়ে ধর্মঘট করছে। তারা নতুন আইনের আতঙ্কে বাস চালাতে চায় না।

এদিকে রবিশাল, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জেও সকাল থেকে জেলার অভ্যন্তরীণ ও আন্তঃজেলা রুটে কোনো বাস চলতে দেখা যায়নি।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ »

সর্বশেষ..