দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

পলিইথিলিনের তৈরি ব্যাগ-মোড়কে দিতে হবে সম্পূরক শুল্ক

পরিবেশ দূষণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: পলিইথিলিনের তৈরি সব ধরনের প্লাস্টিক ব্যাগ, মোড়ক পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর। সেজন্য সরকার পলিথিন উৎপাদন, বাজারজাত নিষিদ্ধ করেছে। এরপরও থেমে নেই প্লাস্টিক উৎপাদন ও বাজারজাত। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে সরকার পলিইথিলিনের তৈরি ব্যাগ ও মোড়ক নিষিদ্ধ করতে পারেনি। সেক্ষেত্রে পরিবেশ দূষণকারী এ পণ্যের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে পাঁচ শতাংশ হারে সম্পূরক শুল্কারোপ করেছে।

পুরোনো ভ্যাট আইনের পাশাপাশি নতুন ভ্যাট আইনেও এ সম্পূরক শুল্ক বহাল রাখা হয়েছে। মূলত পলিথিনের পরিবর্তে পরিবেশবান্ধব পাটজাত পণ্যের বাজার সম্প্রসারণের বিষয়টি বিবেচনা করে সম্পূরক শুল্কারোপ করা হয়েছে। পলিথিনের তৈরি ব্যাগ ও মোড়ক বিষয়ে সম্প্রতি এনবিআর থেকে দিক-নির্দেশনা দেওয়া হয়।

এনবিআর সূত্র জানায়, পলিইথিলিন দিয়ে উৎপাদিত সব ধরনের পলিথিন ব্যাগ, প্লাস্টিক ব্যাগ (ওভেন প্লাস্টিক ব্যাগসহ) ও মোড়কসামগ্রী বিভিন্ন পণ্যে ব্যবহার করা হয়। পুরাতন ভ্যাট আইন অনুযায়ী ২০১৮ সালের ৭ জুন এনবিআর আদেশ (এসআরও) জারি করে। যাতে বলা হয়, পলিইথিলিনের তৈরি ব্যাগ, মোড়কে উৎপাদন পর্যায়ে পাঁচ শতাংশ সম্পূরক আরোপ করে।

চলতি বাজেটে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হয়। এ আইনেও উৎপাদন পর্যায়ে পাঁচ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বহাল রাখা হয়। কিন্তু এ সম্পূরক শুল্ক নিয়ে মাঠপর্যায়ে ভ্যাট অফিসে জটিলতা সৃষ্টি হয়। বিশেষ করে কোম্পানিগুলো এ সম্পূরক শুল্ক দিতে অপারগতা প্রকাশ করে। এ নিয়ে ট্রাইসপ্যাক লিমিটেড, আরবাব পলিপ্যাক লিমিটেড, প্রিমিয়াফ্লেক্স প্লাস্টিকস লিমিটেড, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন, বোম্বে সুইটস অ্যান্ড কোম্পানি লিমিটেড, ইউনিক সিমেন্ট ফাইবার ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, গ্লোবাল এডি স্টার ব্যাগ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, টেকনো ইকোনমি লিমিটেডসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান বিষয়টি স্পষ্ট করতে এনবিআরকে চিঠি দেয়। গত ৪ নভেম্বর এনবিআরের দ্বিতীয় সচিব (মূসক আইন ও বিধি) মো. তারেক হাসান সই করা সম্পূরক শুল্ক আদায় বিষয়ে দিক-নির্দেশনা জারি করে।

নির্দেশনায় বলা হয়, বেশকিছু প্রতিষ্ঠান এইচএস হেডিং ৩৯.২৩ সংশ্লিষ্ট এইচএস কোডভুক্ত পলিইথিলিনের তৈরি সব ধরনের পলিথিন ব্যাগ, প্লাস্টিক ব্যাগ (ওভেন প্লাস্টিক ব্যাগসহ) ও মোড়ক সামগ্রীর ওপর উৎপাদন পর্যায়ে প্রযোজ্য পাঁচ শতাংশ সম্পূরক শুল্কারোপ নিয়ে মাঠপর্যায়ে জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে মর্মে উল্লেখপূর্বক এ বিষয়ে এনবিআরের নির্দেশনা কামনা করা হয়েছে।

চিঠি ও আইন বিধিবিধান পর্যালোচনা করে দেখা যায়, মূল্য সংযোজন কর আইন, ১৯৯১-এর আওতায় এসআরও নং-১৭২/২০১৮-এর মাধ্যমে এইচএস হেডিং নং-৩৯.২৩ সংশ্লিষ্ট এইচএস কোডভুক্ত পলিইথিলিনের তৈরি সব ধরনের পলিথিন ব্যাগ, প্লাস্টিক ব্যাগ (ওভেন প্লাস্টিক ব্যাগসহ) ও মোড়কসামগ্রীর ওপর উৎপাদন পর্যায়ে প্রযোজ্য পাঁচ শতাংশ সম্পূরক শুল্কারোপ করা হয়। পরবর্তীতে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন, ২০১২-এর দ্বিতীয় তফসিলের মাধ্যমে ৩৯.২৩-এর সংশ্লিষ্ট এইচএস কোডভুক্ত পলিইথিলিনের তৈরি সব ধরনের পলিথিন ব্যাগ, প্লাস্টিক ব্যাগ ও মোড়কসামগ্রীর ওপর উৎপাদন পর্যায়ে পাঁচ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বহাল রাখা হয়। মূলত পলিইথিলিনের পরিবর্তে পরিবেশবান্ধব পাটজাত পণ্যের বাজার সম্প্রসারণের বিষয়টি বিবেচনা করে এ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। কোনো প্রতিষ্ঠান এ ব্যাগ উৎপাদন করলে পাঁচ শতাংশ হারে সম্পূরক শুল্ক আদায় করতে হবে।

উল্লেখ্য, পলিইথিলিন ও প্লাস্টিক এক পণ্য নয়। পলিইথিলিন প্লাস্টিক তৈরির একটি উপকরণ মাত্র। পলিইথিলিন ছাড়াও পলিপ্রোপাইলিন, পলিস্টাইরিন, পলিবুটাইলিন, রেজিন, এলডিপিই, এইচডিপিই প্রভৃতি উপকরণ দিয়ে প্লাস্টিকের ব্যাগ তৈরি হতে পারে।

সর্বশেষ..