সম্পাদকীয়

পলিসিহোল্ডারের স্বার্থরক্ষাই হোক নিয়ন্ত্রক সংস্থার লক্ষ্য

বিমা খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হলো বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)। বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ আইন, ২০১০-এর ১৫ নম্বর ধারায় সংস্থাটির কার্যাবলি সম্পর্কে বলা হয়েছে। সংস্থাটি ২২টি কাজ করে থাকে। প্রথম ও প্রধান কাজ হলোÑবিমা ও পুনঃবিমা ব্যবসা-সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর নিয়ন্ত্রণ। বিমা খাতের উন্নয়নে বিমা-সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সেমিনার, ওয়ার্কশপ, সভা প্রভৃতি এবং মধ্যস্থতাকারী, বিমা ও পুনঃবিমা মধ্যস্থতাকারী এবং এজেন্টদের আচরণবিধি ও প্রশিক্ষণ-সংক্রান্ত নিয়মাবলি এবং নির্দেশিকা প্রণয়ন করে থাকে।

দেশে বিমা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ। আইডিআরএ ক্রমাম্বয়ে এসব অভিযোগের নিষ্পত্তি এবং সংস্থাটিকে জনবান্ধব হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করছে বলেই ধারণা।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা ও অংশীজনদের সমন্বিত কার্যক্রম ছাড়া বিমা খাত সাধারণ মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠবে বলে আমরা আশাবাদী। সে লক্ষ্যে সংশ্লিষ্টদের  নিজ দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন থাকা জরুরি। কিন্তু গতকাল শেয়ার বিজে প্রকাশিত ‘প্রিমিয়াম পরিশোধে গ্রাহককে এসএমএস: বিমা কোম্পানির পক্ষে দালালি করছে আইডিআরএ?’ শীর্ষক প্রতিবেদন নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির দায়িত্বহীনতাকে তুলে ধরেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রিমিয়াম পরিশোধের সময় ঘনিয়ে এলে গ্রাহককে স্মরণ করিয়ে দেয় সংশ্লিষ্ট বিমা কোম্পানি। এটি কোম্পানির স্বাভাবিক কার্যক্রমের অংশ। কিন্তু কোম্পানির পক্ষে নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ এমন বার্তা পাঠানোর বিষয়ে কোনো আইনি বিধান নেই। তা সত্ত্বেও বিভিন্ন বিমা কোম্পানির পক্ষে গ্রাহকদের বিমার প্রিমিয়াম পরিশোধের বিষয়ে তাগিদ দিয়ে খুদে বার্তা পাঠাচ্ছে আইডিআরএ। বিষয়টিকে নীতিবিরুদ্ধ ও অপ্রয়োজনীয় বলে আখ্যা দিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নিয়ন্ত্রক সংস্থা এ ধরনের এসএমএস পাঠাতে পারে না।

কভিডকালে সব খাতই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সব ধরনের ব্যাংকঋণের কিস্তি পরিশোধে নমনীয় হতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা রয়েছে। ব্যাংকগুলোও সে নির্দেশ পরিপালন করেছে। মহামারির এ সময়েও বিমা কোম্পানিগুলো প্রিমিয়াম পরিশোধে কোনো ছাড় দেয়নি। নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ হিসেবে আইডিআরএ কোনো উদ্যোগ নেয়নি। বরং প্রিমিয়াম পরিশোধে তাগিদ দিয়ে গ্রাহকদের খুদে বার্তা পাঠাচ্ছে  সংস্থাটি।

মেটলাইফের একাধিক গ্রাহক জানান, প্রিমিয়াম পরিশোধের জন্য কোম্পানির পক্ষ থেকে এসএমএস পাঠিয়ে নিয়মিতই তাগিদ দেওয়া হয়। কিন্তু এই প্রথম মেটলাইফের পক্ষে তাগিদ দিয়ে বার্তা পাঠিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। অবশ্য শুধু মেটলাইফ নয়, অন্যান্য বিমা কোম্পানির পক্ষেও এমন বার্তা পাঠানো হয়েছে জানিয়েছে আইডিআরএ।

আইডিআরএ এভাবে তাগিদ দিতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন সংস্থার একাধিক কর্মকর্তা। ‘এমন কোনো ঘটনা জানা নেই’ বলে এড়িয়ে যাওয়াও দুঃখজনক। এমন বার্তায় গ্রাহক তথা পলিসিহোল্ডারদের ধারণা হতে পারে নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ গ্রাহকদের স্বার্থ দেখছে না। এতে বেপরোয়া হয়ে উঠতে পারে বিমা প্রতিষ্ঠানগুলো। যে সংস্থা বিমা কোম্পানিকে জরিমানা করবে, সে সংস্থার এমন তাগিদ দেওয়া শোভনীয়ও নয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..