পশ্চিমবঙ্গে মন্ত্রীর ওপর বোমা হামলায় নিহত ১ আহত ২৬

শেয়ার বিজ ডেস্ক : ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের শ্রম প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনকে লক্ষ করে বোমা হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে একজন নিহত ও মন্ত্রীসহ আহত হয়েছেন আরও ২৬ নেতাকর্মী। এর মধ্যে গুরুতর আহত হয়েছেন সাতজন। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে ঘিরে প্রচার-প্রচারণার মধ্যেই এই হামলা চালানো হলো। খবর: আনন্দবাজার।

গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় মুর্শিদাবাদের নিমতিতা স্টেশনের ২ নম্বর প্ল্যাটফরমে এ ঘটনা ঘটে। জেলা পুলিশ জানিয়েছেন, বোমা হামলায় আহত মন্ত্রীকে প্রথমে জঙ্গিপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান তার অবস্থার অবনতি হলে পরে রাতেই তাকে কলকাতায় স্থানান্তর করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, মন্ত্রীর হাতে-পায়ে গুরুতর আঘাত লেগেছে। তবে তার অবস্থা স্থিতিশীল।

মন্ত্রীর ওপর এ হামলার তীব্র নিন্দা করেছেন জেলা তৃণমূলের সভাপতি আবু তাহের। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি ও বহরমপুরের এমপি অধীর চৌধুরীও এ হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। মুর্শিদাবাদের এ ঘটনাকে পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে ‘কালো দিন’ বলে টুইট করেছেন রাজ্যের আরেক মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। রাজনীতিতে হিংসার কোনো জায়গা নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি। জাকিরের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন ফিরহাদ।

পুলিশ জানিয়েছে, কলকাতায় যাওয়ার জন্য বুধবার রাতে রওনা দিয়েছিলেন জাকির। নিমতিতা থেকে তার তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেস ধরার কথা ছিল। গাড়ি থেকে নেমে হেঁটে তিনি ২ নম্বর প্ল্যাটফরমে যান। সে সময় জাকিরকে ঘিরে ছিলেন দলীয় কর্মী, সমর্থক ও অনুগামীরা। অনেকেই সেই সময় মোবাইলে ভিডিও করছিলেন। কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরাসরি ভিডিও আপ করছিলেন। সেই ভিডিওতেই ধরা পড়েছে, রাজ্যের মন্ত্রীর ওপর বোমা হামলার ভয়ানক দৃশ্য।

গুরুতর আহত মন্ত্রী ও অন্য নেতাকর্মীকে গাড়িতে করে নিয়ে যাওয়া হয় জঙ্গিপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। পরে মন্ত্রীকে কলকাতায় স্থানান্তর করা হয়।  মন্ত্রীর অ্যাম্বুলেন্সে চিকিৎসার জন্য অন্য তিন স্বাস্থ্যকর্মীকে পাঠানো হয়েছে। সঙ্গে রয়েছেন চিকিৎসক ও নার্সও। বাকি আহতদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদের মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সকালে মন্ত্রীর শরীরে অস্ত্রোপচার হওয়ার কথা। স্পিøন্টার ঢুকে তার পায়ে গুরুতর জখম হয়েছে। তার সঙ্গে পিজি হাসপাতালে আনা হয়েছে আরও পাঁচজনকে। ১৭ জনকে ভর্তি করা হয়েছে বহরমপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখান থেকে আজ আরও ১২ জনকে নিয়ে আসা হচ্ছে কলকাতায়। বিস্ফোরণের পর একজনের ক্ষতবিক্ষত দেহ পাওয়া যায় রেলস্টেশনে। তার পরিচয় এখনও জানা যায়নি।

জঙ্গিপুরের পুলিশ সুপার ওয়াই রঘুবংশী বলেছেন, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।


সর্বশেষ..