বিশ্ব সংবাদ

পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরও ভারতের দখলে আসবে

জয়শঙ্করের প্রত্যাশা

শেয়ার বিজ ডেস্ক: পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরও ভারতের অংশ। একদিন দিল্লি এ অঞ্চলটির নিয়ন্ত্রণ নিতে পারবে বলে প্রত্যাশা ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্করের। গত মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এমন মন্তব্য করেছেন তিনি। খবর: এনডিটিভি।
এস জয়শঙ্কর বলেন, জম্মু-কাশ্মীর সম্পর্কে মানুষ কী বলছে, তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনো কারণ নেই। নিজেদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে ভারতের অবস্থান রয়েছে এবং থাকবে।
২০১৯ সালের ৫ আগস্ট সংবিধানের ৩৭০ ধারা তুলে দিয়ে তথা কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে অঞ্চলটিকে দুই টুকরো করে দেয় ভারতের মোদি সরকার। সরকারি বাহিনীর লাখ লাখ সদস্য মোতায়েন করে ঘিরে ফেলা হয় পুরো উপত্যকা। সেখানে ব্যাপক ধরপাকড় ও সরকারি বাহিনীর তাণ্ডবের মতো বিষয়গুলো আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোর নজর কাড়ে। এ-সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে জয়শঙ্কর বলেন, মানুষের নিজের মতবাদ প্রকাশের অধিকার রয়েছে। আমি খুব কম এ রকম খবর দেখেছি যেখানে বলা হয়েছে, ৩৭০ ধারা ছিল একটি অস্থায়ী আইন।
ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে মানুষ কী বলছে, তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হবেন না। ১৯৭২ সাল থেকেই ভারতের অবস্থান পরিষ্কার। আমার ক্ষেত্রে, আমার অবস্থান থাকবে। মার্কিন কংগ্রেসের সঙ্গে আমি দীর্ঘদিন কাজ করেছি। তারা অনেক কিছু বলে, কারণ মানুষ বিশেষ সদস্যদের কাছে যায় এবং তারা যা বলা প্রয়োজন সেটাই বলে।
তিনি বলেন, পাকিস্তান ততক্ষণ পর্যন্ত একটি অন্যতম চ্যালেঞ্জ হয়ে থাকবে, যতক্ষণ না তারা সফলভাবে সীমান্ত-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারছে এবং একটি স্বাভাবিক প্রতিবেশী হয়ে উঠছে। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, গোটা দুনিয়ায় এমন একটি দেশ কি আছে, যারা পররাষ্ট্রনীতি হিসেবে প্রতিবেশী দেশের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের আশ্রয় নেয়। তিনি বলেন, পাকিস্তান শুধু কথা বলছে, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কিছুই করছে না। আমাদের অবস্থান স্বাভাবিক ও যুক্তিসংগত। তাদের আচরণ বিপথগামী ও অস্বাভাবিক।
এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জয়শঙ্করের মন্তব্যের নিন্দা করেছে। তারা বলেছে, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এ ধরনের বক্তব্যে ‘উত্তেজনা আরও বেড়ে যেতে পারে’ এবং এতে ওই অঞ্চলের শান্তি ও নিরাপত্তা ‘গুরুতরভাবে বিপন্ন’ হতে পারে। এতে আরও বলা হয়, ‘পাকিস্তান শান্তির পক্ষে, কিন্তু যে কোনো আগ্রাসনের যথাযথ জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত।’
পারমাণবিক শক্তিধর এ প্রতিবেশী দেশ দুটি কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে দুবার যুদ্ধে জড়িয়েছে। কাশ্মীরের মর্যাদা পরিবর্তনের ভারতীয় সিদ্ধান্তের নিন্দা করে পাকিস্তান বলেছে, ওই অঞ্চলের প্রতিবাদকারী ও ভিন্নমতাবলম্বীদের ওপর ভারতের চালানো দমনপীড়ন বিশ্বের মুসলিমদের আরও চরমপন্থার দিকে ঠেলে দেবে।

সর্বশেষ..