পাটুরিয়ার ঘটনা তদন্ত করবে সংসদীয় কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে যানবাহনসহ ফেরি উল্টে যাওয়ার ঘটনা তদন্ত করবে সংসদীয় কমিটি। সেজন্য নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি একটি উপ-কমিটি গঠন করেছে। গতকাল সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে চার সদস্যের ওই উপ-কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির সদস্য সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খানকে আহ্বায়ক এবং রণজিৎ কুমার রায়, সামিল উদ্দিন আহমেদ ও আছলাম হোসেন সওদাগরকে সদস্য করে ওই উপ-কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির সদস্য এসএম শাহজাদা বলেন, ‘এই ঘটনার সার্বিক তদন্ত করে উপ-কমিটি স্থায়ী কমিটিতে প্রতিবেদন দেবে। বৈঠকে সময়সীমার ব্যাপারে কোনো আলাপ হয়নি। তবে এটার অবশ্যই একটা সময়সীমা থাকবে। হয়তো আগামী কালই আমরা কমিটি সভাপতির দপ্তর থেকে চিঠি পাব।’

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাট থেকে যানবাহন নিয়ে গত বুধবার সকাল ৯টার পর পদ্মা পার হয়ে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাটে পৌঁছানোর পরপরই কাত হয়ে নদীতে উল্টে যায় শাহ আমানত ফেরি। দুর্ঘটনার সময় ফেরিতে ছিল ১৭টি ট্রাক, একটি প্রাইভেটকার ও আটটি মোটরসাইকেল। এর মধ্যে তিনটি গাড়ি ঘাটে নেমে যেতে পারলেও বাকি বাহনগুলো ফেরির সঙ্গেই নদীতে ডুবে যায়। এর মধ্যে চারটি পণ্যবাহী ট্রাক ও পাঁচটি কভার্ডভ্যান এ পর্যন্ত উদ্ধার করা হয়েছে, তবে গতকাল সকাল পর্যন্ত কোনো মরদেহ পাওয়া যায়নি।

অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) কর্মকর্তারা বলছেন, ডেনমার্ক থেকে আনা রো রো ফেরি শাহ আমানত বহরে যুক্ত হয় গত শতকের আশির দশকে। এর মেয়াদ অনেক আগেই ফুরিয়ে গেছে।

এ দুর্ঘটনা তদন্ত করতে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিআইডব্লিউটিসি, যার আহ্বায়ক করা হয়েছে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুলতান আব্দুল হামিদকে। কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

সংসদ সচিবালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এ ধরনের অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনা রোধে সংশ্লিষ্ট সবার সতর্ক থাকার ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে বৈঠকে।

এছাড়া সব সমুদ্রবন্দরের জন্য একটি একক আইন প্রণয়নের সুপারিশ করেছে কমিটি। বৈঠকে বাংলাদেশের সব নদ-নদী পর্যায়ক্রমে দখলমুক্ত করার যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া ও জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সার্বিক কার্যক্রম সম্পর্কে একটি প্রেজেন্টেশন পরবর্তী সভায় উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়েছে।

কমিটির সভাপতি রফিকুল ইসলাম বীর উত্তমের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মজাহারুল হক প্রধান, রণজিৎ কুমার রায়, সামিল উদ্দিন আহমেদ, আছলাম হোসেন সওদাগর ও এসএম শাহজাদা অংশ নেন।

মানিকগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক মো. শরীফুল ইসলাম জানান, বুধবার রাতে তাদের তল্লাশি স্থগিত রাখা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা ও ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট কাজ শুরু করে। সকালে পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী দলের তিন ডুবুরি কাত হয়ে অর্ধেক নিমজ্জিত ফেরি শাহ আমানতের ভেতরে গিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছেন।

বিআইডব্লিউটিসির নৌ-সংরক্ষণ ও পরিচালন বিভাগের পরিচালক মো. শাজাহান জানান, আমানত শাহ ফেরিটির বডির ওজন ৪৮০ টন। ভেতরে পানি থাকায় ওজন আরও বেড়েছে। উদ্ধারকারী জাহাজ হামজার ৬০ টন পর্যন্ত উদ্ধার সক্ষমতা রয়েছে। প্রত্যয় নামের যে জাহাজটি অভিযানে যুক্ত হবে, সেটির ২৫০ টন পর্যন্ত উদ্ধার সক্ষমতা রয়েছে। হামজা ও প্রত্যয়কে স্থানীয় বিভাগগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করে ফেরিটি উদ্ধার করতে হবে। কারণ উদ্ধারকারী জাহাজগুলোর উদ্ধার সক্ষমতার চেয়ে আমানত শাহর ওজন বেশি। আপাতত হামজা দিয়ে যানবাহনগুলো উদ্ধার করার চেষ্টা চলছে।


সর্বশেষ..