প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপের মাধ্যমে চাকুরী পাচ্ছেন ৩০০ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক: বেকার যুবদের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরিতে শিল্পপ্রতিষ্ঠানের চাহিদাভিত্তিক ট্রেডে কারিগরি শিক্ষার উপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করছে সরকার। এলক্ষ্যে বাংলাদেশ কোরিয়া টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার (বিকেটিটিসি), একশনএইড বাংলাদেশ এবং এটুআই-এর আয়োজনে সোমবার (২৭ ডিসেম্বর) রাজধানীর বিকেটিটিসি’তে দিনব্যাপী এক জব ফেয়ারের আয়োজন করে।

জব ফেয়ারের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন। বিশেষ অতিথি ছিলেন এটুআই-এর প্রকল্প পরিচালক (যুগ্মসচিব) ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর এবং একশনএইড বাংলাদেশ-এর ম্যানেজার নাজমুল আহসান।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক মো: শহীদুল আলম, এনডিসি।

দিনব্যাপী এই মেলায় বাংলাদেশ কোরিয়া টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার থেকে বিভিন্ন বিষয়ে ট্রেনিং সম্পন্ন করা প্রশিক্ষণার্থীরা অনস্পট বুকিংয়ের মাধ্যমে চাকুরির আবেদন করেন। যাদের মধ্য থেকে প্রায় তিন শতাধিক প্রশিক্ষণার্থীকে দেশের ১২টি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান যোগ্যতা অনুযায়ী চাকুরিতে প্রবেশের সুযোগ করে দেয়া হবে। এসব প্রতিষ্ঠানের নিয়োগকর্তারা আবেদনকারীদের মৌখিক ও প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষার মাধ্যমে নির্বাচন করেন।

জব ফেয়ারে অংশ নেওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- স্বপ্ন, ট্রান্সকম ইলেক্ট্রনিক্স লিমিটেড, ট্রান্স-এশিয়া ইন্ড্রাট্রিজ লিমিটেড, এসিআই মটরস লিমিটেড, ম্যাটাডোর গ্রুপ, পারটেক্স স্টার গ্রুপ, স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপ, ইস্ট-ওয়েস্ট হিউম্যান রিসোর্স লিমেটেড, ইয়েস্টার্ন রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট সার্ভিসেস লিমিটেড, পার্কওয়ে, আম্বার আইটি এবং ব্যাবিলন গ্রুপ। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, ‘ট্রেনিং বা পড়াশুনা শেষে কোথায় চাকুরি হবে, কীভাবে হবে এসব চিন্তা না করে চাকুরিপ্রত্যাশীদের দক্ষতার উপর জোর দিতে হবে। সরকার পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের মধ্যে একটা সমন্বয় করার চেষ্টা করে যাচ্ছে।

বৈদেশিক কর্মসংস্থানের পথকে সুগম করতে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক মন্ত্রণালয় কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সরকার কারিগরি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করছে। নিজেকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে পারলে ও নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখলে যেকেউ তার যোগ্য অবস্থানে পৌঁছাতে পারেন।