প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

পাল্টে গেছে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের চিত্র

পদ্মা সেতু চালু

খন্দকার রবিউল ইসলাম, রাজবাড়ী: দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার অন্যতম প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ঘাটে এখন যানবাহন ও যাত্রী তুলনামূলকভাবে কমে গেছে। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর থেকেই ব্যস্ততম দৌলতদিয়া ঘাটে নেই যানবাহন ও যাত্রীর চাপ। আগে যেখানে প্রতিদিন চার-পাঁচ কিলোমিটার যানবাহনে দীর্ঘ সারি দেখা যেত, সেখানে ঘাট এলাকায় এখন থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যাত্রী ও যানবাহনের চাপ না থাকায় ঘাটকেন্দ্রিক ব্যবসা-বাণিজ্য কমে গেছে। হতাশ হয়ে পড়েছেন হকারসহ ছোট ছোট দোকানি।

গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত ঘাট এলাকায় অবস্থান করে দেখা গেছে, দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় যাত্রী ও যানবাহনের চাপ নেই। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা যানবাহনগুলো ঘাট এলাকায় এসে সরাসরি ফেরিতে উঠতে পারছে। আগে যেখানে যানবাহনগুলোকে ফেরির জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা মহাসড়কে অপেক্ষা করতে হতো, এখন সেখানে ফেরিগুলো যানবাহনের জন্য ঘাটে অপেক্ষা করছে।

এছাড়া দেখা যায়, ব্যস্ততম ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক একদমই ফাঁকা। ফেরির টিকিট কাউন্টারের সামনে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসা যানবাহনের ঘাট প্রতিনিধিদেরও তেমন ব্যস্ততা নেই। ছিল না পণ্যবাহী গাড়ির দীর্ঘ সারি। ঘাটে আসা যানবাহনের মধ্যে ছিল বরিশাল, খুলনা বা গোপালগঞ্জ জেলার দূরপাল্লার পরিবহন। এছাড়া আগে যেখানে কোরবানি ঈদ সামনে রেখে পশুবাহী ট্রাকগুলোকে ঘাটে এসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হতো, সেখানে এখন পশুবাহী ট্রাকগুলো সরাসরি ফেরিতে উঠছে। এতে  ট্রাকচালক ও শ্রমিকেরা খুশি। পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাটে চাপ কমায় তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান।

কুমারখালী থেকে আসা কোরবানির গরু বহনকারী ট্রাকচালক শরিফুল ইসলাম বলেন, গত বছর এ ঘাটে আমাদের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। নদী পার হতে মহাসড়কে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়েছে। এতে গরমে অনেক পশু অসুস্থ হয়ে মারাও গেছে। কিন্তু এ বছর ঘাটের চিত্রটা অনেকটাই আলাদা। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর ঘাটে কোনো যানবাহনের চাপ নেই। আমি ঘাট এলাকায় এসে ১০ মিনিট অপেক্ষা করেই ফেরিতে উঠতে পেরেছি।

কুষ্টিয়া থেকে আসা এসবি সুপার ডিলাক্সের চালক রিয়াজুদ্দিন বলেন, হঠাৎ করেই ঘাটের চিত্র পুরোটাই পাল্টে গেছে। ঘাটে এসে এখন আর ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে নাÑফেরির টিকিট কাটতে যতটুকু সময় লাগছে। ঘাটে গিয়ে দেখা যাচ্ছে ফেরিগুলো যানবাহনের অপেক্ষায় রয়েছে। তবে যানবাহন কম থাকায় ফেরি ভরতে সময় বেশি লাগছে।

৫নং ফেরিঘাটের পন্টুনে ডাব বিক্রেতা কামাল পাটুয়ারি বসে অলস সময় পার করছেন। পন্টুনে উঠে তার দিকে এগুতেই তিনি বলেন, ভাই ডাব খাবেন। এসময় তার সঙ্গে এ প্রতিবেদকের কথা হলে তিনি মুখটা মলিন করে বলেন, আমাদের আর ব্যবসা-বাণিজ্য নেই। পদ্মা সেতু চালুর পর থেকেই ঘাটে যানবাহন ও যাত্রীর চাপ নেই। ঘাট একদমই ফাঁকা। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগে পর্যন্ত ঘাট এলাকা জমজমাট থাকত। ঘাটে মানুষ থাকলে বিক্রি ভালো হয়। ঘাট যাত্রীশূন্য থাকলে আমার সংসার চলবে কীভাবে?

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক প্রফুল্ল চৌহান বলেন, আমাদের টিকিট বিক্রি এখন অর্ধেকে নেমে এসেছে। ঘাট এলাকায় যাত্রী ও যানবাহনের কোনো চাপ নেই। যানবাহনগুলো ঘাটে এসে সরাসরি ফেরির দেখা পাচ্ছে। বর্তমানে এ রুটে বহরে থাকা ২১টি ফেরির মধ্যে ১৮টি ফেরি চলাচল করছে।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের ডিজিএম শাহ মো. খালেদ নেওয়াজ বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর ব্যস্ততম দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় যানবাহনের সংখ্যা কমছে। আগে মহাসড়কে যানবাহন অপেক্ষা করত, এখন ঘাটে ফেরি অপেক্ষা করছে। তবে যানবাহন একদমই পার হচ্ছে না, এমন নয়; আগে যা পার হতো, এখন তার অর্ধেক পার হচ্ছে।