প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

পিপলস ব্যাংকের চূড়ান্ত লাইসেন্স বিষয়ে সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক: তারকা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ও তার মাকে প্রস্তাবিত পিপলস ব্যাংকের পরিচালক করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে সব শর্ত পূরণ করতে না পারায় লেটার অব ইনটেন্ড (এলওআই) এখনও পায়নি ব্যাংকটি। বিষয়টি আগামী বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের পর্ষদ সভায় আলোচনার জন্য তোলা হবে। ওই সভায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিচালকরা সম্মত হলে আরও তিন মাসের জন্য এলওআইর মেয়াদ বাড়ানো হতে পারে।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘গত ডিসেম্বরে প্রস্তাবিত পিপলস ব্যাংকের এলওআইর মেয়াদ শেষ হয়। এর মেয়াদ বাড়ানোর জন্য প্রস্তাবিত ব্যাংকটি আবেদনও করেছে। তবে পর্ষদের সিদ্ধান্ত নিয়েই মেয়াদ বাড়াতে হবে। তাছাড়া সাকিব ও তার মায়ের পরিচালক হওয়ার বিষয়টিও একই সঙ্গে বিবেচনাধীন রয়েছে। সব ধরনের শর্ত পূরণ করে পরিচালক হলে এখানে কোনো অসুবিধার কিছু থাকবে না।’

প্রসঙ্গত; দীর্ঘ তিন বছরের বেশি সময় ধরে প্রস্তাবিত পিপলস ব্যাংক কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ব্যাংকিং ব্যবসার জন্য লাইসেন্স নিতে চেষ্টা করছে। তবে এলওআইর শর্ত পূরণ না হওয়ায় এই লাইসেন্স পাচ্ছিল না প্রতিষ্ঠানটি। ফলে কয়েক দফা এলওআইর মেয়াদ বাড়িয়ে দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সবশেষ এলওআইর মেয়াদ শেষ হয় গত ৩১ ডিসেম্বর। তবে এর আগেই কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন পূরণের জন্য সাকিল আল হাসান ও তার মা শিরিন আক্তারকে পরিচালক করার বিষয়ে অনাপত্তি চেয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে আবেদন করে প্রস্তাবিত ব্যাংকটি।

গত ডিসেম্বরে প্রস্তাবিত পিপলস ব্যাংক সাকিব আল হাসান ও তার মা শিরিন আক্তারকে পরিচালক করার জন্য নথিপত্র বাংলাদেশ ব্যাংকে পাঠায়। সাকিব ও তার মায়ের বিনিয়োগ করতে হবে ২০ কোটি টাকা। তবে ২৫ কোটি টাকার মতো মূলধন দিচ্ছেন সাকিব।

এদিকে আগামী বৃহস্পতিবার এ বছরের প্রথম পর্ষদ সভা করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই সভায় প্রস্তাবিত এই ব্যাংকের এলওআইর মেয়াদ বাড়ানোসহ আরও কয়েকটি বিষয় আলোচনার জন্য তোলা হবে।