শেষ পাতা

পুঁজিবাজারের বিশেষ তহবিলের বিনিয়োগে নীতিমালা

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের পুঁজিবাজারকে চাঙা করতে বিশেষ তহবিলের সুদহার কমিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে রেপো সুবিধার মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের ক্ষেত্রে সুদহার পাঁচ শতাংশ থেকে কমিয়ে চার দশমিক ৭৫ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়েছে। গতকাল এ-সংক্রান্ত একটি আদেশ জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এতে বলা হয়, তফসিলি ব্যাংকগুলো কর্তৃক পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে বিশেষ তহবিল গঠন এবং ওই তহবিল থেকে বিনিয়োগের বিষয়ে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। বর্তমানে মুদ্রাবাজারের পরিবর্তিত পরিস্থিতির সঙ্গে সামঞ্জস্য বিধান করার জন্য নি¤েœাক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

বিশেষ তহবিল গঠনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে রেপো সুবিধার মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের ক্ষেত্রে সুদহার পাঁচ শতাংশ থেকে কমিয়ে চার দশমিক ৭৫ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়েছে। তালিকাভুক্ত করপোরেট বন্ড/ডিবেঞ্চারের ক্ষেত্রে ন্যূনতম সুদহার ১০ নির্ধারণ করা আছে। তবে ভালো কোম্পানিগুলোর বন্ড বাজারে আনলে কম সুদে বিনিয়োগ করতে পারবে ব্যাংক। 

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ভেরিয়েবল রেট ন্যূনতম সুদের হার কুপন প্রদানের মাসের অব্যবহিত পূর্বে সমাপ্ত মাসে বিদ্যমান সর্বশেষ ইস্যুকৃত (১০ বছর মেয়াদি ট্রেজারি বন্ডের সুদহার + ১.০০%)-এর কম নয়।  বর্তমানে ট্রেজারি বন্ডের সুদহার ছয় দশমিক ৬৪ শতাংশ।  সম্পদভিত্তিক বন্ড বা সুকুরের বিনিয়োগের সুদহার আগে নির্ধারিত ছিল না। তবে এখন থেকে ফিক্সড রেট ন্যূনতম আট শতাংশ কুপন/মুনাফাবাহী হতে হবে। তবে ভালো কোম্পানি সাড়ে সাত থেকে আট শতাংশে সম্পদভিত্তিক বন্ড ইস্যু করতে পারবে। ভেরিয়েবল রেট ন্যূনতম মুনাফা বা সুদের হার কুপন প্রদানের মাসের অব্যবহিত পূর্বে সমাপ্ত মাসে বিদ্যমান সর্বশেষ ইস্যুকৃত (১০ বছর মেয়াদি ট্রেজারি বন্ডের সুদহার + ০.৫০%)-এর কম নয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..