দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

পুঁজিবাজার ঠিক করতে প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি দাবি বিনিয়োগকারীদের

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজার এক দিনের বিরতি দিয়ে ফের বড় ধসের কবলে পড়েছে। ৮৯ শতাংশ কোম্পানির শেয়ার বিক্রির চাপে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক চার বছর আগের অবস্থানে চলে গেছে। গতকাল মাত্র ছয় শতাংশ বা ২১টি কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। এগুলো অধিকাংশই ছিল দুর্বল কোম্পানি। লেনদেন হয়েছে ২৮৬ কোটি টাকা। বিনিয়োগকারীরা পুঁজিবাজার থেকে সম্পূর্ণরূপে আগ্রহ হারিয়ে ফেলার কারণে বাজারে এ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে অচিরেই পুঁজিবাজারের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে যাবে। তাই আর দেরি না করে পুঁজিবাজারকে বাঁচাতে সরকারের উচ্চ মহলের হস্তক্ষেপ জরুরি হয়ে পড়েছে।

২০২০ সালের ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন করতে যাচ্ছে সমগ্র জাতি। জাঁকজমকপূর্ণ ও বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে ২৯৬টি পরিকল্পনাসংবলিত মহাপরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু পুঁজিবাজার যদি ঠিক না হয়, তবে এ আনন্দ উদ্যাপনে শরিক হতে পারবেন না লাখো বিনিয়োগকারী। কারণ কষ্টে অর্জিত পুঁজি হারিয়ে তারা আজ নিঃস্ব। এমনকি প্রতিবাদের ভাষাটুকুও তাদের কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া হয়েছে। অথচ পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করে তারা কি দোষ করেছে সেটা তারা জানে না। বাজার-সংশ্লিষ্ট অভিজ্ঞ ব্যক্তিরাই বিনিয়োগকারীদের ভালো কোম্পানিতে বিনিয়োগ করার জন্য উৎসাহিত করেন। এমনকি সরকারি সহায়তায় বিনিয়োগকারীদের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের ওপর প্রশিক্ষণ দেওয়ার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। এসব প্রশিক্ষিত বিনিয়োগকারীরাই দেশের বৃহৎ, সুনামধারী এবং মৌলভিত্তির হিসেবে বিবেচিত কোম্পানিতে বিনিয়োগ করে আজ তাদের পুঁজির হিসাব মেলাতে পারছেন না। পুঁজিবাজারের লাখ লাখ বিনিয়োগকারীকে কষ্টে রেখে মুজিববর্ষ উদ্যাপন কখনোই স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে পারে না। তাই পুঁজিবাজার ঠিক করতে প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি দাবি করেছেন বিনিয়োগকারীরা।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..