দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

পূর্ণতা পেল বিএসইসি, নতুন কমিশনার নিয়োগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) এক কমিশনারের শূন্য পদে নিয়োগ পেয়েছেন সদ্যসাবেক শিল্পসচিব মো. আবদুল হালিম। এর ফলে পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট বিএসইসির কমিশন পূর্ণাঙ্গ রূপ পেল। গতকাল অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ আবদুল হালিমকে বিএসইসির কমিশনার নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি করে। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, চার বছর তিনি এ পদে দায়িত্ব পালন করবেন। নিয়োগের তারিখ থেকে তার মেয়াদ শুরু হবে।

গত ১৭ মে বিএসইসির চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম, আর ২০ মে নিয়োগ পান দুই কমিশনার। আগে থেকে এক কমিশনার দায়িত্বে ছিলেন। গতকাল নতুন আরেকজনকে নিয়োগের ফলে কমিশনের চার কমিশনারের পদ পূর্ণ হয়। আর শিবলী রুবাইয়াতের নেতৃত্বাধীন কমিশন পূর্ণতা পেয়েছে। ৯ বছর পর এসে নতুন করে বিএসইসি পুনর্গঠিত হয়।

এর আগে ২০১০ সালের কেলেঙ্কারির পর বিধ্বস্ত শেয়ারবাজার মেরামতের জন্য পুনর্গঠিত বিএসইসির দায়িত্বে আসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম খায়রুল হোসেনের নেতৃত্বাধীন কমিশন। তার হাত ধরে শেয়ারবাজারে বেশ কিছু আইনি সংস্কার হলেও বাজারের ওপর বিনিয়োগকারীদের আস্থা প্রতিষ্ঠায় পুরোপুরি ব্যর্থ হন তিনি। ফলে ২০১০ সালের কেলেঙ্কারিতে বিধ্বস্ত শেয়ারবাজারে প্রাণ ফেরেনি।

দীর্ঘ ৯ বছর দায়িত্ব পালনকালে শতাধিক কোম্পানিকে তালিকাভুক্তির অনুমোদন দেয় খায়রুল কমিশন, যার বেশিরভাগই ছিল মানহীন। এ কারণে মানহীন কোম্পানির অনুমোদন দিয়ে বিনিয়োগকারীসহ বাজারসংশ্লিষ্টদের মধ্যে ব্যাপকভাবে সমালোচিত হয় খায়রুল কমিশন। আর গত ১৪ মে যখন বিদায় নেন তখন বাজারকে তিনি রেখে যান ২০১১ সালের চেয়েও খারাপ অবস্থায়। বাজারের পতন ঠেকাতে বেঁধে দেওয়া হয়েছে শেয়ারের সর্বনি¤œ দাম।

শিবলী রুবাইয়াতের নেতৃত্বাধীন নতুন কমিশনের সামনে তাই বড় চ্যালেঞ্জ চরম আস্থাহীন বাজারে বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফেরানো। করোনায় বিধ্বস্ত অর্থনীতি ও ব্যবসা-বাণিজ্যের বিপুল ক্ষতির মধ্যে শেয়ারবাজার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে শিবলী কমিশনকে। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তিনি সতীর্থ হিসেবে পেয়েছেন তারই বিদ্যাপীঠের দুই শিক্ষক ও প্রশাসন ক্যাডারের দুই সাবেক কর্মকর্তাকে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..