বিশ্ব সংবাদ

পূর্ণাঙ্গরূপে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে যুক্তরাষ্ট্রকে ইরানের আহ্বান

ইরানের পরমাণু সমঝোতা বিষয়ে যৌথ কমিশনের ভিয়েনা বৈঠক

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ইরানের পরমাণু সমঝোতাবিষয়ক যৌথ কমিশনের ১৮তম বৈঠক অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া পরমাণু সমঝোতার শরিক অন্য দেশ ৪+১ গ্রুপ অর্থাৎ চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, রাশিয়া ও ব্রিটেনের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। বৈঠকে ইরানের শীষ পর্যায়ের পরমাণু আলোচক এবং দেশটির উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইয়্যেদ আব্বাস আরাকচি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি সত্যিই পরমাণু সমঝোতায় ফিরতে চায় তাহলে তেহরানের ওপর থেকে সব নিষেধাজ্ঞা একবারেই তুলে নিতে হবে, ধাপে ধাপে নয়। পরমাণু সমঝোতাবিষয়ক যৌথ কমিশনের বৈঠকের অবকাশে ইরানের স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল প্রেস টিভিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন। খবর: রয়টার্স, পারসটুডে।

এর আড়ে গত শুক্রবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) আহ্বানে ইরানের পরমাণুবিক ইস্যু নিয়ে পরমাণু সমঝোতাবিষয়ক যৌথ কমিশনের এক ভার্চুয়াল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে ইরান এবং ৪+১ গ্রুপ অর্থাৎ চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, রাশিয়া ও ব্রিটেনের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। ইরানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পলিটিক্যাল ডেপুটি সাইয়্যেদ আব্বাস আরাকচি ইরানি প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন।

আরাকচি বলেন, ভিয়েনা বৈঠক শেষে পরমাণু সমঝোতায় টিকে থাকা সদস্য দেশগুলো যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কথা বলবে। এটি সম্পূর্ণ তাদের বিষয়। আমরা তাতে জড়িত থাকব না। আমরা শুধু পাঁচ জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে কথা বলব। তিনি আরও বলেন, পরমাণু সমঝোতা বাস্তবায়নের বিষয়টিকে ইরান খুবই গুরুত্ব দিচ্ছে কিন্তু গুরুত্ব দিচ্ছে না আমেরিকা। সে কারণে তারা এ সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গেছে।

পরমাণু সমঝোতার সদস্য দেশগুলোর প্রতিনিধিদের মধ্যে ব্যাপক আলোচনার পর ইরানের বিরুদ্ধে আরোপিত একতরফা মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেয়ার ব্যাপারে কারিগরি ও কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখার ব্যাপারে তাদের মধ্যে একটি সমঝোতা হয়েছে। এছাড়া এ বৈঠকে ইরানবিরোধী নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেয়া এবং পরমাণু সমঝোতা পুরোপুরি বাস্তবায়নে কারিগরি বিষয় দেখভাল করার জন্য আলাদা দুটি বিশেষজ্ঞ টিম গঠন করা হয়েছে। এ দুটি টিম তাদের প্রচেষ্টার ফলাফল কমিশনে উত্থাপন করবে।

জানা যায়, ভিয়েনা শহরে অপর একটি হোটেলে মার্কিন প্রতিনিধিদল উপস্থিত ছিল তবে তারা পরমাণু সমঝোতাবিষয়ক যৌথ কমিশনের বৈঠকে উপস্থিত হতে পারেনি। কারণ ইরান আগেই জানিয়ে দিয়েছিল তারা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় কিংবা বহুপক্ষীয় কোন আলোচনাতেই বসবে না।

বৈঠক শেষে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতিবিষয়ক দপ্তরের উপপ্রধান অ্যনরিকা মুরা এ বৈঠককে গঠনমূলক হিসেবে অভিহিত করে বলেছেন, বিরাজমান অচলাবস্থা দূর করার জন্য দুটি বিশেষজ্ঞ টিমের কার্যক্রমের ব্যাপারে সবাই একমত হয়েছে।

এদিকে ভিয়েনায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোতে নিযুক্ত প্রতিনিধি মিখাইল অলিয়ানভ এক টুইটার বার্তায় বলেছেন, এ বৈঠকের সাফল্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে পরমাণু সমঝোতাকে পুনরুজ্জীবিত করার জন্য কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের কাজ শুরু হয়েছে। অন্যদিকে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নেড প্রাইসও ভিয়েনা বৈঠককে একধাপ অগ্রগতি হিসেবে অভিহিত করেছেন। তবে তিনি এও বলেছেন, পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবিত করতে হলে একমাত্র পথ হচ্ছে দ্বিপক্ষীয় সংলাপে ফিরে আসা।

এদিকে, গতকাল বুধবার ইরানের কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইরান গত জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত ৫৫ কেজি ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করেছে, যা তাদের উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ২০ শতাংশেরও ১০ কেজি কম। পরমাণু সমজোতা নিয়ে ভিয়েনা বৈঠকের গতকাল ইরান এ তথ্য জানায়।

পরমাণু চুক্তি অনুযায়ী, ইরান মাসে ১০ কেজি হারে (২০%) বছরে ১২০ কেজি ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করতে পারবে। যদিও অন্তর্জাতিক আনবিক সংস্থার (আইএইএ) দ্রুত বেহরোজ কামালভান্দি ইঙ্গিত দিয়েছেন যে, ইরান ইতোমধ্যে  ৪০ শতাংশের বেশি ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করেছে। কিন্তু ইরান এ বক্তব্যকে প্রত্যাখ্যান করেছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..