সম্পাদকীয়

পেঁয়াজের দামে যথেচ্ছাচার বন্ধে ব্যর্থতা কাম্য নয়

কয়েক সপ্তাহ ধরে দেশের বাজারে পেঁয়াজের মূল্য নিয়ে এক ধরনের অরাজকতা চলছে। এক মাস আগেও যে পেঁয়াজের দাম ছিল ৪০ টাকা, সেখানে গতকাল শুক্রবার ২৭০ টাকা দামেও পেঁয়াজ বিক্রি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। হঠাৎ এত মূল্য বৃদ্ধি বিস্ময়করই বটে। অথচ অতীতে দাম বৃদ্ধি পেলেও তা ১৫০ টাকা ছাড়ায়নি। কিন্তু এবারের দামে দেশের উচ্চ মধ্যবিত্ত শ্রেণিরও রীতিমতো বেগ পেতে হচ্ছে। অথচ সরকার ও ব্যবসায়ীদের পর্যায় থেকে এ নিয়ে তেমন দায়িত্বশীল ভূমিকা চোখে পড়ছে না। বিষয়টি নিয়ে সংসদেও ঝড় উঠেছে। সাধারণ মানুষের যেখানে নাভিঃশ্বাস ওঠার জোগাড়, সেখানে এমন আচরণ প্রত্যাশিত নয়।

গতকালের শেয়ার বিজে ‘পেঁয়াজের দাম নিয়ে সংসদে ক্ষোভ’ শিরোনামে খবর ছাপা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পেঁয়াজের অব্যাহত মূল্যবৃদ্ধিতে সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সরকার ও বিরোধী দলের একাধিক সংসদ সদস্য। দরবৃদ্ধির পেছনে কোনো ষড়যন্ত্র আছে কি না, সে প্রশ্নও তুলেছেন কেউ কেউ। দাম ২০০ টাকা হয়ে গেছে উল্লেখ করে তারা সতর্ক করে বলেছেন, দাম নিয়ে মানুষের মধ্যে কোনো প্রতিক্রিয়া হলে সেটা খারাপ হবে। তাদের এ উপলব্ধি যৌক্তিক। এই দাম দরিদ্র শ্রেণি দূরে থাক, মধ্যবিত্ত শ্রেণিরও ক্রয়ক্ষমতার বাইরে বলা চলে।

পেঁয়াজ একটি মসলাজাতীয় পণ্য, যা সব শ্রেণি-পেশার মানুষের প্রতিদিন প্রয়োজন। কিন্তু এভাবে বিদ্যুৎগতিতে দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের ভোগান্তির শেষ নেই। অথচ ভারতীয় পেঁয়াজ আসা বন্ধ হওয়ার পরও দাম নিয়ন্ত্রণে থাকবে বলে আশ্বাস দিয়েছিলেন ব্যবসায়ী এবং সরকারের দায়িত্বশীলরা। তারপরও তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়েছেন। এখন দাম নিয়ন্ত্রণের বাইরে বললেও সম্ভবত ভুল হবে না। সংসদ সদস্যরা প্রশ্ন তুলেছেন, বাণিজ্যমন্ত্রী যখন বলেন ১০০ টাকার নিচে দাম নামবে না, তাহলে ব্যবসায়ীরা তো সুযোগ পেয়ে যায়। এমন প্রশ্ন সাধারণ মানুষের মধ্যে জোরালোভাবে উঠতে শুরু হয়েছে, যা সরকারের ভাবমূর্তির জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে।

আমাদের মনে রাখতে হবে, নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষের চাহিদা সীমিত। তারা তিন বেলা খাবার নিশ্চিত হলেই খুশি থাকেন। কিন্তু এতে যদি টান পড়ে, তাহলে তাদের ভোগান্তি আর হতাশার শেষ থাকে না। পেঁয়াজের মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম ২০০ টাকা ছাড়াবে, তা হয়তো কখনও কল্পনাও করেননি অনেকে। সরকারকে তা অনুধাবন করে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। এছাড়া পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধিতে ব্যবসায়ীদের যোগসাজশের অভিযোগ করছেন অনেকে। বিষয়টি খতিয়ে দেখে দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..