দিনের খবর শেষ পাতা

পেঁয়াজের দাম নিয়ে সংসদে ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক: পেঁয়াজের অব্যাহত মূল্যবৃদ্ধিতে গতকাল সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সরকার ও বিরোধী দলের একাধিক সংসদ সদস্য। তারা নিত্যপ্রয়োজনীয় এই পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। পেঁয়াজের দাম বাড়ার পেছনে কোনো ষড়যন্ত্র আছে কি না, সে প্রশ্নও তুলেছেন কেউ কেউ।

গতকাল সংসদ অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে পেঁয়াজ নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত করেন মোহাম্মদ নাসিম। পরে সরকার ও বিরোধী দলের পাঁচ সদস্য এ বিষয়ে বক্তব্য দেন।

প্রতিদিন পেঁয়াজের দাম কেন বাড়ছে সে প্রশ্ন রেখে নাসিম বলেন, পেঁয়াজের ঝাঁজ বেশি হয়ে যাচ্ছে। মানুষের মধ্যে এটা নিয়ে প্রতিক্রিয়া হচ্ছে। মানুষের মধ্যে কোনো প্রতিক্রিয়া হলে সেটা খারাপ হবে। পেঁয়াজের দাম প্রায় ২০০ টাকা হয়ে গেছে।

নাসিম বলেন, ‘বাণিজ্যমন্ত্রী যখন বলেন ১০০ টাকার নিচে দাম নামবে না, তাহলে ব্যবসায়ীরা তো সুযোগ পেয়ে যায়। বলা হচ্ছে, বিদেশ থেকে আমদানি করা হচ্ছে। তাহলে কেন দাম বাড়ছেÑএটা বোধগম্য নয়।

সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘দেশের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক ব্যাপারে অর্থমন্ত্রীর অনেক কর্তব্য রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে পেঁয়াজের দাম একটু হয়তো বেড়েছে। দুঃখভারাক্রান্ত হƒদয়ে বলতে হচ্ছে, আজকে পেঁয়াজের কেজি ২০০ টাকা। আমরা কোনোদিনই এটা ভাবিনি।’

তোফায়েল বলেন, দেশে পেঁয়াজের কী চাহিদা, তা আগেই মূল্যায়ন করা হয়ে থাকে। দরকার কত, আছে কত, যেটা ঘাটতি, তা তুরস্ক, মিসরসহ অন্য দেশ থেকে আগেই সংগ্রহ করা হয়। পেঁয়াজ আমদানিতে সাময়িকভাবে শুল্ক তুলে দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে অর্থমন্ত্রীর উদ্দেশে তোফায়েল বলেন, ‘যারা পেঁয়াজ আমদানি করেন, তাদের সুবিধা দিন। অন্তত কিছুদিনের জন্য আমদানি শুল্ক শূন্য করে দিন। এ ধরনের ঘোষণা দেওয়া হলে দেখা যাবে, এর প্রভাব বাজারে পড়ছে।’

বিরোধীদল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মুজিবুল হক বলেন, ‘গত পরশু বাজারে পেঁয়াজের কেজি ছিল ৮০ টাকা। ওইদিন এই সংসদে বাণিজ্যমন্ত্রীর পক্ষে শিল্পমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্যে পেঁয়াজের মূল্য সরকারের নিয়ন্ত্রণে আছে বললেন। এটা বলার পরদিন দাম হয়ে গেল ১৫০ টাকা। আর আজকে হলো ২০০ টাকা।’

মুজিবুল হক বলেন, ভারতে পেঁয়াজের দাম না পেয়ে কৃষক কাঁদছেন। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে এত ভালো সম্পর্কের পর প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে পদক্ষেপ নিলে এই সংকট থাকত না।

পেঁয়াজের দাম বাড়ার পেছনে ষড়যন্ত্র আছে কি না, তা খতিয়ে দেখারও দাবি জানান মুজিবুল হক। তিনি বলেন, বাজারে পেঁয়াজ নেই, এমন নয়। বাজারে প্রচুর পেঁয়াজ আছে। কিন্তু দাম বাড়ছে। তিনি মনে করেন, এটা সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।

বিরোধীদলের এই সংসদ সদস্য আরও বলেন, ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বাণিজ্যমন্ত্রীকে বলব, আপনারা বের করেন, এটা ষড়যন্ত্র কি না? মানুষ পেঁয়াজ কিনতে পারে না, কেবল এটা নয়, সরকারের বিরাট একটা বদনাম হচ্ছে। কিছু খারাপ কাজের জন্য অনেক ভালো কাজ ম্লান হয়ে যায়। অনেক ফেনসিডিল ব্যবসায়ী রাস্তাঘাটে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মরে যায়। পেঁয়াজের মূল্য যারা বাড়াচ্ছে, তাদের একটা বন্দুকযুদ্ধে মরে যাক। তাহলে এটা একটা উদাহরণ হবে। পেঁয়াজের বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে অভিযান হওয়া উচিত।’

আওয়ামী লীগের আ স ম ফিরোজ বলেন, বাজারে পেঁয়াজ আছে। এর দাম বাড়ার কোনো কারণ নেই। কিন্তু গতকাল দাম ছিল ১৫০ টাকা আর আজ ২০০ টাকা। পেঁয়াজের এই মূল্যবৃদ্ধি সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। সরকার দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ‘জিহাদ’ ঘোষণা করেছে। এই সময় দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা এই কাজ করছে। তিনি এসব ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।

ফিরোজ বলেন, ‘নিশ্চয়ই প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবেন। দেশবাসীকে আশ্বস্ত করবেন, যাতে পেঁয়াজের দাম অচিরেই কমে আসে। মানুষ যেন সুবিধা ভোগ করেন।’

বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এখন পেঁয়াজ নিয়ে হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে। পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে সরকারের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া উচিত।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..