প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

পেঁয়াজের বাজার অশান্তই থাকছে

এক সপ্তাহে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজিতে ২০ টাকার মতো। চলতি মাসের শুরু থেকে পেঁয়াজের বাড়তি দাম দেশের মানুষকে শঙ্কায় ফেলে দিয়েছে। তারা মনে করছে, আরও বাড়তে পারে এর দাম। শেয়ার বিজে এ নিয়ে প্রকাশ পেয়েছে প্রতিবেদন। অন্যদিকে একাধিক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, অতিরফতানির কারণে ভারতের অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় তারা এর রফতানিতে ‘ন্যূনতম মূল্য’ বেঁধে দিয়েছে, যার কারণে সে দেশ থেকে বাংলাদেশে রফতানি কমেছে। ভারতীয় পেঁয়াজের আমদানি কমার বিষয়টি প্রভাবিত করেছে এখানে পেঁয়াজের দামকে। এতে বাজারে সব ধরনের পেঁয়াজের ঊর্ধ্বমুখী দাম দুশ্চিন্তায় ফেলেছে সাধারণ মানুষকে। নতুন পেঁয়াজ না আসা পর্যন্ত দাম কমবে এমনটাও বলা যাচ্ছে না।

নিত্যপ্রয়োজনীয় কোনো পণ্যের দামের ঊর্ধ্বগতি ক্রেতার মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করলে তারা বেশি করে সে পণ্যটি কিনতে চায় এটা ভেবে যে, ভবিষ্যতে এর দাম আরও বাড়তে পারে। পণ্য আগেভাগে মজুত করে রাখার ঘটনা এর চাহিদা আরও বাড়িয়ে তোলে এবং স্বাভাবিক নিয়মে তার দাম বেড়ে যায়। এ চর্চা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসা প্রয়োজন। শুধু পেঁয়াজ নয়, শাকসবজি, মাছ-মাংসের ক্ষেত্রেও যখন যেটির দাম বাড়বে, সেটির ব্যবহার কমিয়ে বরং যেটির দাম অপেক্ষাকৃত কম, সেটি অধিক ব্যবহারের অভ্যাস করতে পারলে পণ্যবাজারে স্থিতিশীলতা আনায় ক্রেতার পরোক্ষ ভূমিকা প্রতিষ্ঠা পায়। এতে কম দামি পণ্যটির দাম কিছুটা বাড়ে, যার সুফল পায় উৎপাদক ও সে সরবরাহ লাইনে যুক্ত অন্যরা। আর অধিক দামি পণ্যটির দাম কমে আসে। আমাদের বাজার ক্রেতাবান্ধব সে কথাও বলা যাবে না। কোনো পণ্যের দাম একবার বাড়লে তা কমতে বেশ সময় লাগে। পেঁয়াজের দামের ক্ষেত্রেও এমনটি হতে পারে বিধায় আমাদের উচিত পেঁয়াজ ব্যবহারে এখন কিছুটা সংযমের পরিচয় দেওয়া।

চলতি বছরের বন্যা ও অতিবৃষ্টি প্রায় সব ধরনের ফসলের বাজারে প্রভাব ফেলে। বর্তমানে আবহাওয়ার উন্নতিতে সবজি ও ফসলের দাম আস্তে আস্তে কমে আসবে সেটি কাম্য; যদিও কাক্সিক্ষত পর্যায়ে এখন পর্যন্ত শীতের সবজির দাম কমেনি। কোনোটার দাম উল্টো বেড়েছে; পেঁয়াজের ক্ষেত্রে ঘটেছে বাড়াবাড়ি রকম কাণ্ড। তবে সেটা ঘটেছে মূলত প্রতিবেশী দেশের বাজারে মূল্যবৃদ্ধির কারণেÑএমন মত সংশ্লিষ্টদের। এবার আন্তর্জাতিক বাজারেও পেঁয়াজের দাম অধিক ছিল, যার সুফল পেঁয়াজ রফতানিকারক দেশগুলো লাভ করেছে। বাজারে নতুন পেঁয়াজ না আসা পর্যন্ত যেহেতু দাম কমার সম্ভাবনা কম, সেহেতু এটির কম ব্যবহারের মাধ্যমে দাম কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনা যেতে পারে। অন্যদিকে সরবরাহ চ্যানেল গতিশীল রেখে পেঁয়াজের দাম যেন আরও অস্থিতিশীল হতে না পারে, সেটাও নিশ্চিত করতে হবে কর্তৃপক্ষকে। আশা করা যেতে পারে, শীত বাড়ার সঙ্গে বাজারে নতুন পেঁয়াজ চলে আসবে, তখন দাম কমবে এবং স্বচ্ছন্দে এটি কিনতে পারবে মানুষ।