কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের দর বেড়েছে ৩৮ দশমিক ৪০ শতাংশ

সাপ্তাহিক বাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বিমা খাতের কোম্পানি প্যারামউন্ট ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড গত সপ্তাহে দর বৃদ্ধির তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ৩৮ দশমিক ৪০ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্রমতে, গত সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে ১০ কোটি ১৪ লাখ ৫৬ হাজার ২০০ টাকার শেয়ার। সপ্তাহ শেষে মোট লেনদেনের পরিমাণ ৫০ কোটি ৭২ লাখ ৮১ হাজার টাকা।

এদিকে সর্বশেষ কার্যদিবসে ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারদর পাঁচ দশমিক ৪১ শতাংশ বা এক টাকা ৯০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ৩৭ টাকায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ৩৬ টাকা ৪০ পয়সা। দিনজুড়ে ২৩ লাখ ১০ হাজার ১৩৪ শেয়ার এক হাজার ৬৯৭ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর আট কোটি ২১ লাখ ৬৩ হাজার টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনি¤œ ৩৪ টাকা ৮০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৩৭ টাকা ১০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর ১৩ টাকা থেকে ৩৭ টাকা ১০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে।

২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাববছরে পাঁচ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৫ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৬৯ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে এক কোটি ৭৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স ২০০৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘বি’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। কোম্পানির ৬০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৩৩ কোটি ২২ লাখ ৩০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১০ কোটি ৯ লাখ ২০ হাজার টাকা।

কোম্পানির মোট তিন কোটি ৩২ লাখ ২৬ হাজার ১২ শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ৪২ দশমিক ৭৮ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক সাত দশমিক ১০ শতাংশ, বিদেশি শূন্য দশমিক শূন্য দুই শতাংশ ও বাকি ৫০ দশমিক ১০ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে।

তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে জাহিন স্পিনিং লিমিটেড। কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে ২৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ। আলোচ্য সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন দুই কোটি ৯২ লাখ ৭৮ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। আর পুরো সপ্তাহে লেনদেন হয়েছে ১৪ কোটি ৬৩ লাখ ৯৩ হাজার টাকার শেয়ার।

এদিকে গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারদর শূন্য দশমিক ৯৮ শতাংশ বা ১০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ১০ টাকা ৩০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দরও ছিল ১০ টাকা ৩০ পয়সা। দিনজুড়ে ৪৪ লাখ ২৭ হাজার ৫১টি শেয়ার মোট ৮০০ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর চার কোটি ৫১ লাখ ৮৩ হাজার টাকা। দিনজুড়ে শেয়ারদর সর্বনি¤œ ৯ টাকা ৮০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ১০ টাকা ৭০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর চার টাকা ৯০ পয়সা থেকে ১৩ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে।

২০১৯ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে পাঁচ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে কোম্পানিটি। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৬৩ পয়সা, আর ২০১৯ সালের ৩০ জুন শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ৮১ পয়সা। ওই সময় শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে ৩৬ পয়সা। ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য আগামী ২৮ ডিসেম্বর সকাল ৯টায় ধারনমন্ডি সাতমসজিদ রোডে (রোড নং-৫/এ) অবস্থিত সুগন্ধা কমিউনিটি সেন্টারে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে কোম্পানিটি চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর, ২০১৯) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। আর গত বছরের তুলনায় এ বছর কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় কমেছে। প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১০ পয়সা, আগের বছর একই সময় ছিল ২৮ পয়সা। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় কমেছে ১৮ পয়সা। এছাড়া ২০১৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ৯১ পয়সা, যা ২০১৯ সালের ৩০ জুনে ছিল ১২ টাকা ৮১ পয়সা। আর এ প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে ১৭ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ১৮ পয়সা।

এর আগে ২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে, যা আগের বছর দিয়েছিল ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ। ওই সময় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) করে এক টাকা ১৭ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয় ১৩ টাকা ৪০ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে এক টাকা ৩৯ পয়সা ও ১৪ টাকা সাত পয়সা। আর আলোচিত সময়ে কর-পরবর্তী মুনাফা করে ১১ কোটি ৪৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা, যা আগের বছর ছিল ১১ কোটি ৯২ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

২০১৫ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ‘এ’ ক্যাটেগরির এ কোম্পানি। অনুমোদিত মূলধন ৪০০ কোটি এবং পরিশোধিত মূলধন ১০৮ কোটি ৪০ লাখ ৮০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ২৩ কোটি ৬৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

কোম্পানিটির মোট ১০ কোটি ৮৪ লাখ সাত হাজার ৯৭০টি শেয়ার রয়েছে। ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ৩১ দশমিক ১০ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ২৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ৪২ দশমিক ৩৫ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..