প্রচ্ছদ শেষ পাতা সাক্ষাৎকার

প্রতিযোগিতার যুগে গ্রাহক সন্তুষ্টি অর্জনই বড় চ্যালেঞ্জ

কাজী মসিহুর রহমান মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করে ১৯৭৭ সালে সোনালী ব্যাংকে প্রবেশনারি অফিসার পদে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৯০ সালে দুবাইয়ের মাশরেক ব্যাংকে যোগ দেন। কাজ করেছেন সৌদি আরবের ইউনাইটেড সৌদি কমার্শিয়াল ব্যাংকে, সিস্টেম অ্যান্ড প্রসিডিওরস বিভাগের প্রধান হিসেবে।

সৌদি হল্যান্ডি ব্যাংকসহ আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং পরিমণ্ডলে দুই দশক কাজ করেছেন। গত বছরের জানুয়ারি থেকে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে কর্মরত। সম্প্রতি শেয়ার বিজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ব্যাংকিং খাতের বিভিন্ন দিক নিয়ে তার মতামত তুলে ধরেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন তানিয়া আফরোজ

শেয়ার বিজ: আপনার মতে বর্তমানে ব্যাংক খাতের চ্যালেঞ্জগুলো কী? এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আপনার ব্যাংক কী পদক্ষেপ  নিয়েছে?

কাজী মসিহুর রহমান: সম্পতি বিশ্ব অর্থনীতি একটা নজিরবিহীন পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে ব্যাংকিং খাতে আমাদের চ্যালেঞ্জ এবং সুযোগ দুটোই  অপরিসীম। গতকাল যা আপনার একক শক্তি ছিল, আগামীকাল দেখা যাবে সেটি অন্যরাও অর্জন করে ফেলেছে।  বর্তমানে দেশে ৫৭টি তফসিলি ব্যাংক রয়েছে। যার ফলে ব্যাংকিং খাত তীব্র প্রতিযোগিতার মুখে পড়েছে। একই কারণে এ খাতটি অত্যাধুনিকও  হয়েছে।

প্রতিযোগিতাপূর্ণ শিল্পের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে একটি ব্যাংককে প্রতিনিয়তই ব্যাংকিং সেবা ও পণ্যের পরিবর্তন এবং উন্নয়নে  সতর্ক থাকতে হয়। গ্রাহকের সন্তুষ্টিই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় অবশ্যই আমাদের ব্যাংক সতর্ক। সর্বাধুনিক ব্যাংকিং সেবা প্রদানের জন্য প্রযুক্তির ব্যবহারকে আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে চলেছি। ব্যাংকের ব্যয় ও ঝুঁকি কমাতে তথ্য প্রযুক্তি খাতে আমাদের বিনিয়োগ প্রতিনিয়তই বাড়ছে। প্রযুক্তি ছাড়াও ব্যাংক ব্যবস্থাপনায় দক্ষ মানবসম্পদ আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। মেধাবী কর্মী নিয়োগদানে আমরা সতর্ক। তাছাড়া কর্মীর দক্ষতা বৃদ্ধিতেও আমরা যথেষ্ট বিনিয়োগ করে থাকি। নতুন-পুরোনো সব কর্মকর্তাকে নিয়মিতভাবে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য ব্যাংকের নিজস্ব ট্রেনিং ইনস্টিটিউট রয়েছে।

শেয়ার বিজ: মার্কেন্টাইল ব্যাংকের শ্রেণিকৃত ঋণ ২০১৬ সালে পাঁচ দশমিক ১৩ শতাংশ, যা আগের চার বছরের  তুলনায় সামান্য বেশি। খেলাপি ঋণ আদায়ে কী ধরনের ব্যবস্থা নিচ্ছেন?

কাজী মসিহুর রহমান: বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে মোট ঋণের ৯ দশমিক ২৩ শতাংশ। সে তুলনায়, আমাদের ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আছে বলে আমি মনে করি। মার্কেন্টাইল ব্যাংক প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই খেলাপি ঋণ নিয়ন্ত্রণে সতর্ক। বর্তমানে আমরা খেলাপি ঋণ ব্যবস্থাপনাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। এ উদ্দেশ্যে আমরা আমাদের ঋণদান নীতিকে আরও উন্নত করছি। এ নীতি প্রয়োগের ব্যাপারে আমরা অনমনীয়। একই সঙ্গে এ ব্যাংকের করপোরেট সুশাসন আরও স্বচ্ছ করা হয়েছে।

শেয়ার বিজ: ব্যাংকঋণের সুদের হার কমে প্রায় সিঙ্গেল ডিজিটে নেমে এসেছে। ঋণদান কি বেড়েছে?

কাজী মসিহুর রহমান: এটা সত্যি, সম্প্রতি অনেক বাণিজ্যিক ব্যাংকই ঋণদানের ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। ব্যাংকিং খাতে এখন তারল্যের পরিমাণ বেড়ে গেছে আগের তুলনায় অনেক বেশি। তবে আমাদের ব্যাংকে ঋণদানে প্রবৃদ্ধি ঘটেছে। সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০১৬ সালে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ঋণ ও অগ্রিমের পরিমাণ ১৫ হাজার ৯১ কোটি টাকা। ২০১৫ সালের তুলনায় প্রায় সাড়ে ১৯ শতাংশ বেশি। গত পাঁচ বছরে আমাদের ঋণ ও অগ্রিম প্রদান বেড়েছে ধারাবাহিকভাবে।

শেয়ার বিজ: আমানতের সুদহার কম। এটা ব্যাংকের জন্য সুযোগ, নাকি চ্যালেঞ্জ?

কাজী মসিহুর রহমান: ব্যাংকিং খাতে সুদহার কমেছে আমানত ও ঋণ উভয় ক্ষেত্রেই। বর্তমানে আমানতের গড় সুদ হার ৫.০৮ শতাংশ। ঋণের গড় সুদহার ৯.৭৭ শতাংশ। ঋণ ও আমানতের গড় সুদহার ব্যবধান (স্প্রেড) চার দশমিক ৬৯ মাত্রায় রয়েছে। ব্যাংকিং ব্যবস্থায় আমানতের ওপর সুদের হার কত; বস্তুত তার ওপরেই নির্ভর করে ঋণের সুদের হার। একদিকে ঋণের সুদহার কমে গেলে আয় কমে, কিন্তু আমানতের সুদের হার কমায় তহবিল সংগ্রহের ব্যয়ও (কস্ট অব ফান্ড) কমে যায়। একদিক থেকে এটা অবশ্যই সুযোগ। কারণ আমানতের সুদহার কম হলে যেহেতু ঋণের সুদের হারও কমে, ফলে গ্রাহকের মধ্যে ঋণ গ্রহণের প্রবণতাও বাড়ে। তবে বেশিদিন ধরে আমানতের সুদহার কম থাকলে ব্যাংক খাতে তারল্যের ঝুঁকি সৃষ্টি হতে পারে। ফলে ভারসাম্য বজায় রাখার ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকারকে সতর্ক থাকা প্রয়োজন। তা না হলে আজকের সুযোগ কালকের চ্যালেঞ্জে পরিণত হবে।

ব্যাংক আমানতের ওপর সুদের হার নির্ধারণ করে থাকে দুটো বিষয়কে সামনে রেখে। প্রথমত, মূল্যস্ফীতি। দ্বিতীয়ত, মূল্যস্ফীতির প্রয়োজনীয়তা। বাজারে অর্থের প্রবাহ বৃদ্ধি পেলে আমানতের সুদহার কমে আসে। এছাড়া খেলাপি ঋণের বোঝাও সুদের হার নির্ণয়ে একটি নির্ধারক হিসেবে কাজ করে। তাই ঋণ যাতে খেলাপি না হয় তার জন্য ঋণ ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে।

শেয়ার বিজ: অতি শিগগিরই আপনারা মার্কেন্টাইল ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করতে চলেছেন। এ নিয়ে পরিকল্পনা কী?

কাজী মসিহুর রহমান: প্রতিবছরের মতো এ বছরও আমরা বেশ জাঁকজমকপূর্ণভাবে ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্যাপন করতে যাচ্ছি আগামী ২ জুন। এ বছর ১১টি ক্ষেত্রে ১১ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে তাদের স্ব স্ব ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য ‘মার্কেন্টাইল ব্যাংক সম্মাননা পুরস্কার-২০১৭’ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পুরস্কার প্রদানের ক্ষেত্রগুলো হলো: ১. শিক্ষা ২. চিকিৎসা ৩. সংস্কৃতি ৪. মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গবেষণা ৫. অর্থনীতি ও অর্থনীতি-বিষয়ক গবেষণা ৬. বাংলা ভাষা ও সাহিত্য ৭. শিল্প ও বাণিজ্য ৮. সাংবাদিকতা ৯. ক্রীড়া ১০. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এবং ১১. সমাজ বিনির্মাণ। পুরস্কারের মধ্যে রয়েছে নগদ এক লাখ টাকা, একটি দুই ভরি ওজনের স্বর্ণপদক ও একটি সম্মাননাপত্র।

 

 

 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..