প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

প্রযুক্তিতে আসক্তি

 

মোবাইল ফোন, ল্যাপটপসহ নানা প্রযুক্তিপণ্যের ঘেরাটোপে জীবনটা যেন বাঁধা পড়ে গেছে। এসবের বাইরে গিয়ে পরিবার আর নিজের জন্য সময় বের করা কঠিন। এতে ব্যাঘাত ঘটে স্বাভাবিক জীবনের। সুস্থ থাকতে চাই প্রযুক্তিপণ্য ব্যবহারে নিয়ন্ত্রণ। কীভাবে করবেন, তা জানাচ্ছেন এস এম সায়েম

নিতে পারেন কৌশল

মোবাইল ফোন বা প্রযুক্তি পণ্যগুলো কাজের শেষে সরিয়ে রাখতে পারেন দূরে। যেমনটি করেছেন ডকটের নামের এক বিদেশি ভদ্রলোক। কেন এমন করলেন এ প্রশ্নে তার উত্তর ছিল, ‘একে অন্যের সঙ্গে কথা বলা মানে অন্যের সংস্কৃতি সম্পর্কে অভ্যস্ততা তৈরি করা।’ এতে নতুন নতুন ফাংশনে নিজেকে জড়িয়ে নেওয়া লাগে। তাই প্রয়োজনীয় কাজ সেরে ছুটি দিতে পারেন প্রযুক্তি পণ্যগুলোকে।

বেছে নিন উপভোগ্য অবসর

মোবাইল ফোন বা ল্যাপটপের মতো ব্যক্তিগত প্রয়োজনীয় ইলেকট্রনিক ডিভাইসগুলোর প্রতি আসক্তি আপনাকে সত্যিকারার্থে করে তুলতে পারে অসামাজিক। ভারচুয়ালি সামাজিকতা রক্ষা করে চললেও চারপাশকে সময় দেওয়ার মতো পর্যাপ্ত সময় আপনার থাকে না। এজন্য রিকউনোর কৌশলটি শুনতে পারেন, তা হয়তো আপনার জন্য দারুণ কাজে দেবে। প্রায় দুবছর ধরে তিনি এই প্রযুক্তিপণ্যগুলোর প্রতি আসক্তি দূর করেছেন। এর সুফল মিলেছে, নাকি প্রত্যাশার চেয়েও বেশি! তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের সাউদার্ন শিকাগো হোটেল অ্যান্ড টাওয়ার্সের হোটেল ম্যানেজার। সুযোগটা কাজে লাগিয়েছেন। এই হোটেলে প্রবেশের সময় অতিথিদের মোবাইল ফোন, ল্যাপটপের মতো ব্যক্তিগত প্রযুক্তিপণ্যগুলোর ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছেন। এ প্রোগ্রামের নাম দেওয়া হয়েছে ‘ব্ল্যাক-বেরি চেক ইন প্রোগ্রাম’। তাতে তারাও ভালোভাবে তাদের অবসরকে উপভোগ করতে পারছেন বলে রিকের বিশ্বাস।