প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

প্রাইম ব্যাংককে হারিয়ে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের রুদ্ধশ্বাস ছড়ানো জয়

মুক্তার-তানবিরের ব্যাটিং বীরত্ব

ক্রীড়া প্রতিবেদক: ম্যাচের নায়ক হতে যাচ্ছিলেন সাকিব আল হাসান। একদিন আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরেছেন তিনি। বিশ্রামের সুযোগও তেমন পাননি। তারপরও মাঠে নেমে বৃহস্পতিবার (২১ এপ্রিল) বল হাতে দেখালেন ম্যাজিক। ব্যাটিংয়েও বড় ইনিংস খেলার পথে ছিলেন। কিন্তু শেষটাতে এসে সাকিব কিংবা মাশরাফি বিন মর্তুজাকেও ম্লান করে নায়ক বনে গেলেন মুক্তার আলি ও তানবির হায়দার। তাদের ব্যাটিং বীরত্বেই ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগের সুপার লিগ পর্বের নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে রুদ্ধশ্বাস ছড়ানো এক জয় পেয়েছে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ।

দল ছিল মহা বিপাকে। ৮৪ রানে বিদায় নিয়েছেন ৭ ব্যাটসম্যান। সাকিব আল হাসান বিদায় নিতেই হারের শঙ্কা জাগছিল। তখনই ঠান্ডা মাথায় দ্বায়িত্বটা নিজেদের কাঁধে তুলে নেন মুক্তার ও তানবির। উইকেটের সঙ্গে মানিয়ে অসাধারণ এক জুটি গড়েন তারা। সাভারের বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শেষ বিকেলের আলোতে ম্যাজিক দেখাল তাদের ব্যাট। অষ্টম উইকেটে গড়লেন অবিচ্ছন্ন ৭০ রানের জুটি। আর লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ রুদ্ধশ্বাস ছড়িয়ে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে জিতল ৩ উইকেটে।

আজ বিকেএসপির চার নম্বর মাঠের উইকেট ভেজা থাকায় নির্ধারিত সময়ের বেশ পর ম্যাচ শুরু হয়। ১৭ ওভার কমে ম্যাচ দাঁড়ায় ৩৩ ওভারে। যেখানে টস জিতে প্রাইম ব্যাংককে আগে ব্যাটিংয়ে পাঠায় রূপগঞ্জ। তারপর সাকিব-মাশরাফি বিন মর্তুজার দুর্দান্ত বোলিংয়ের সামনে অসহায় হয়ে পড়ে প্রাইম ব্যাংক। ৩১.২ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে তারা তুলে ১৫২ রান। জবাব দিতে নেমে ৩২.৪ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নেয় মাশরাফির লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ।

সাকিব-মাশরাফির বোলিং তোপের মুখে শুরুতে অসহায় ছিলেন তামিম ইকবালের প্রাইম ব্যাংক। মনে হচ্ছিল ম্যাচটা সহজেই জিতবে লিজেন্ডসরা। কিন্তু তা আর হলো কোথায়? শেষটাতে এসে তানবির ও মুক্তার ইস্পাত কঠিন দৃঢ়তায় প্রতিরোধ না গড়লে কী যে হয়ে যেতো। বিপর্যয়ের মুখে দু’জন খেললেন দ্বায়িত্বশীল ইনিংস। গড়লেন অষ্টম উইকেটে ৭০ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি। দলকে জিতেই মাঠ ছাড়লেন মুক্তার ও তানবির।

কার্টেল ওভারের ম্যাচে আগে ব্যাট করতে নামা প্রাইম ব্যাংককে ১৫২ রানে আটকে রেখে স্বস্তিতেই ছিল লিজেন্ডসদের শিবির। বিকেএসপিতে এদিন বসেছিল তারার হাট। চলতি মৌসুমে দলটির হয়ে প্রথববারের মতো খেলতে নামেন সাকিব। সঙ্গে মাশরাফি তো ছিলেনই। প্রাইম ব্যাংকের হয়ে ডিপিএলের এবারের আসরের প্রথম ম্যাচ খেলেন ওপেনার তামিম ইকবাল।

কিন্তু মাশরাফি, সাকিব, তামিম, এনামুল হক বিজয়দের এ ম্যাচে নায়ক মুক্তার আলি ও তানবির হায়দার। শেষদিকে ৪৫ বলে হার না মানা ৩৯ রানের ইনিংস খেলে রূপগঞ্জকে ৩ উইকেটে জয় এনে দেন মুক্তার। এই জয়ে শিরোপা পুনরুদ্ধারের স্বপ্নটাও বাঁচিয়ে রাখল লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ।

১৫৩ রানের অনেকটা সহজ টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ২৬ রানে ৩ উইকেট হারায় লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। এসময় নিজের আউটটি মানতে পারেন নি রকিবুল হাসান। রান আউটের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করে মাঠ ছাড়েন তিনি। সাব্বির রহমানও ফেরেন ২৬ রানে। ৪২ রানে ৪ উইকেট হারালে মাঠে আসেন সাকিব। অবশ্য তিনিও বড় ইনিংস গড়তে পারেন নি। ফেরেন ২১ রানে।

দলীয় ৮৪ রানের মধ্যে চিরাগ জানি ও মাশরাফিকে হারিয়ে আরও চাপে পড়ে যায় লিজেন্ডসরা। তারপর মুক্তার-তানবির জুটিতে আসে শেষ রক্ষা। তানবির শেষ অব্দি ৩৯ বলে ৩১ রানে অপরাজিত ছিলেন।

দিনের শুরুতে টস জিতে প্রাইম ব্যাংককে আগে ব্যাটিংয়ে পাঠায় রূপগঞ্জ। প্রাইমের হয়ে প্রথমবারের মতো মাঠে নামেন তামিম ইকবাল। আল-আমিন হোসেনকে ছয় দিয়ে রানের খাতার খুলেও সুবিধা করতে পারেননি তিনি। ইনিংসের চতুর্থ ওভারে সাকিবের বলে আউট হন তিনি। আর তখন তামিমের নামের পাশে ৫ বলে ৮ রান।

প্রতিপক্ষের শাহাদত হোসেন দিপুকে শুরুতেই ফেরান নাবিল সামাদ। এরপর নিজের দুই ওভারে ফেরান মুমিনুল (১৩) ও মিঠুনকে (৩) সাজঘরের পথ দেখান মাশরাফি। নাসির হোসেনকেও দ্রুত ফেরান সাকিব। তবে এনামুল হক বিজয় ধরে রাখেন ছন্দ।

সাকিবের মতো বল হাতে সফল ছিলেন রূপগঞ্জের ভারতীয় রিক্রুট চিরাগ জানিও। তিনিও নেন দুটি উইকেট। নাবিল ও আল আমিন নেন একটি করে উইকেট।

এরপর ব্যাট হাতে মুক্তার-তানবির স্বস্তির এক জয় উপহার দিলেন লিজেন্ডসদের। বুঝিয়ে দিলেন হার মানতে জানে না লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। সামনে আরও তিনটি ম্যাচ। এখানেও এই ছন্দ ধরে রাখতে চায় লিজেন্ডসরা।

এই জয়ে এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে ১২ ম্যাচ শেষে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে রূপগঞ্জ। শীর্ষে আগের মতোই শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। দুটি খেলা জিতেছে শেখ জামালও। ২২ পয়েন্ট নিয়ে তারা শিরোপার সুবাস পাচ্ছে। রূপগঞ্জ টাইগার্স ক্রিকেট ক্লাবকে ৫৫ রানে হারিয়ে সুপার লিগে পথচলা শুরু করে সাবেক চ্যাম্পিয়নরা। গতকাল দিনের অপর ম্যাচে প্রাাইম ব্যাংকের বিপক্ষে তুলে নিল আরেকটি জয়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব (৩১.২ ওভারে) ১৫২/১০: বিজয় ৭৩, ইয়াসির ৩৯; সাকিব ২/১৯, চিরাগ ২/২০, মাশরাফি ২/২২।

লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ (৩২.৪ ওভারে) ১৫৪/৭: সাব্বির ২৬, সাকিব ২১, চিরাগ ১৪, তানবির ৩১, মুক্তার ৩৯; রাকিবুল ২/৩৬।

ফল: লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ৩ উইকেটে জয়ী

ম্যাচসেরা: মুক্তার আলি