Print Date & Time : 25 October 2020 Sunday 5:31 am

প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরাও বাজারে সক্রিয়

প্রকাশ: August 13, 2020 সময়- 11:01 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক: টানা পতনের রেশ কাটিয়ে বড় উত্থানে ফিরেছে পুঁজিবাজার, যে কারণে অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বাড়তে দেখা যাচ্ছে। পাশাপাশি প্রতিনিয়তই বাড়ছে সূচক। এর জের ধরে বাজার মূলধনও বৃদ্ধি পাচ্ছে। একইভাবে দীর্ঘদিন পরে মূল মার্কেটে লেনদেন এক হাজার কোটি টাকা অতিক্রম করেছে। এতে বেশ ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন বিনিয়োগকারীরা।

তারা মনে করছেন, বাজারে এবার দীর্ঘমেয়াদি স্থিতিশীলতা বিরাজ করবে। সেজন্য সাধারণ বিনিয়োগকারী ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী উভয়ই তাদের বিনিয়োগ বাড়িয়েছেন। পাশাপাশি খাতভিত্তিক লেনদেন ছেড়ে পোর্টফলিওতে যোগ করছেন বিভিন্ন খাতের কোম্পানির শেয়ার। এরই মধ্যে মুনাফার হিসাব কষতে শুরু করেছেন এসব বিনিয়োগকারীরা। তবে বাজারের এই পরিস্থিতিতে বিনিয়োগকারীদের খুব সতর্ক থাকতে হবে। তাদের উচিত হবে বাজারের ছন্দপতন হওয়ার আগে আগে মুনাফা তুলে নেওয়া। অধিক মুনাফার আশা বসে থাকা তাদের জন্য অকল্যাণও হতে পারে।

গতকালের বাজারচিত্রে দেখা যায়, এদিন ডিএসইতে লেনদেন এক হাজার ২০০ কোটি টাকা অতিক্রম করেছে। দিন শেষে ডিএসইতে লেনদেন হতে দেখা যায় এক হাজার ২০৭ কোটি টাকা। তবে এদিন ব্লক মার্কেটে আগের কার্যদিবসের চেয়ে কিছুটা বেশি লেনদেন হতে দেখা গেছে। গতকাল ব্লক মার্কেটে মোট ২১টি প্রতিষ্ঠানের ৮৪ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হতে দেখা যায়।

এদিকে গতকালও পুঁজিবাজারের সূচক সন্তোষজনকহারে বেড়েছে। দিন শেষে সূচক বৃদ্ধি পেতে দেখা যায় ৬৯ পয়েন্ট। লেনদেন শেষে সূচক স্থির হয় চার হাজার ৭০৩ পয়েন্টে।

অন্যদিকে গতকালের খাতভিত্তিক লেনদেনে চোখ রাখেলে দেখা যায়, সবচেয়ে এগিয়ে ছিল ওষুধ ও রসায়ন খাত। মোট লেনদেনে এই খাতের অবদান দেখতে পাওয়া যায় প্রায় ১৮ শতাংশ। তবে গতকাল সবচেয়ে চমক দেখিয়েছে ব্যাংক খাত। সারা দিনই এই খাতের কোম্পানিগুলো ছিল চালকের আসনে। বিনিয়োকারীদের পছন্দের তালিকায় প্রথমেই ছিল এই খাত। দিন শেষে মোট লেনেদেনে এই খাতের অবদান দেখতে পাওয়া যায় ১৭ শতাংশ।

এই তালিকায় পরের অবস্থানে ছিল বিমা খাত। গতকাল এই খাতটি থেকে বিনিয়োগকারীদের সবচেয়ে বেশি মুনাফা তুলতে দেখা গেছে, যে কারণে এই খাতের অধিকাংশ শেয়ারেই বিক্রির চাপ পরিলক্ষিত হয়। ফলে বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ারদর কমতে দেখা যায়। মোট লেনদেনে গতকাল এই খাতের কোম্পানির অবদান ছিল প্রায় ১৬ শতাংশ। এছাড়া গতকাল অন্য সব খাতের কোম্পানির সন্তোষজনক লেনদেন চোখে পড়ে।