প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সেবা নিশ্চিতে টিআইবির ১০ সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারি হাসপাতাল থেকে শুরু করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সেবায় অন্তর্ভুক্তির ক্ষেত্রে পদে পদে বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন প্রান্তিক জনগোষ্ঠী। আর এতে ব্যাপকভাবে অধিকারবঞ্চিত হচ্ছেন দলিত, আদিবাসী, হিজড়া, অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার মানুষ ও চা বাগান শ্রমিকরা। তাই তাদের সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিতে ১০টি সুপারিশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

জার্মানিভিত্তিক দুর্নীতিবিরোধী সংস্থাটি পরিচালিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সেবা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হওয়ার বিষয়টি উঠে এসেছে। প্রতিবেদনটি গতকাল প্রকাশ করেছে টিআইবি। এতে উঠে এসেছে দলিত শ্রেণি সরকারি হাসপাতালে সেবা পায় না। নানাভাবে তারা বাধার সম্মুখীন হন। ফলে বেসরকারি হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনসহ অন্যান্য চিকিৎসা নিতে হয়।

আইনগতভাবে সব আদিবাসীর পরিচয় ও তাদের ভূমি অধিকারের স্বীকৃতি নেই। পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসীদের জন্য ভূমি কমিশন থাকলেও সমতলে বসবাসরত বৃহৎ আদিবাসীদের ভূমি সমস্যা সমাধানে ভূমি কমিশন নেই। সীমাবদ্ধতা ও চ্যালেঞ্জ প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন, ২০১৩ এবং নীতিমালা, ২০১৫ সালে অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার ভুক্তভোগীদের চিহ্নিত করে সরাসরি নিবন্ধনের সুযোগ রাখা হয়নি। এছাড়া নির্বাচন কমিটি কার কাছে জবাবদিহি করবে, সে বিষয়ে দিকনির্দেশনা আইনে নেই।

কভিড-১৯ মহামারিতে হিজড়াদের সরকারি ত্রাণ সহায়তার লাইনে দাঁড়াতে দেয়া হয়নি। তারা জনপ্রতিনিধির কাছে অভিযোগ জানাতে চাইলে ওয়ার্ড কমিশনার অফিসের কর্মচারীরা তাদের বাধা দেন। অন্যান্য সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অভিযোগ দায়ের করতে না পারার উদাহরণ রয়েছে; যেমন ঘুষ দিয়েও বয়স্ক ভাতায় তালিকাভুক্ত না হওয়া এবং অভিযোগ দায়ের করতে না পারা। বিদ্যালয়ে মূলধারার সহপাঠী ও শিক্ষকদের বর্ণবাদমূলক আচরণের অভিযোগের সমাধান না পাওয়ার বিষয়টি গবেষণায় উঠে এসেছে। 

সুপারিশগুলো হচ্ছে বিভিন্ন সেবায় প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্তিতে বাধা দূর করতে এবং বৈষম্যহীন ও জবাবদিহিমূলক সেবা নিশ্চিত করতে বৈষম্য বিলোপে দ্রুত আইন প্রণয়ন করতে হবে। সব প্রান্তিক গোষ্ঠীর ভৌগোলিক অবস্থান ও জনসংখ্যা সম্পর্কে সঠিক তথ্য সংগ্রহ করতে হবে এবং তা নিয়মিত হালনাগাদ করতে হবে। সরকারি প্রতিষ্ঠানের সেবা ও জবাবদিহি সম্পর্কে মাঠপর্যায়ে এবং গণমাধ্যমে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীদের ভাষায় যথাযথ ও নিয়মিত প্রচার পরিচালনা নিশ্চিত করতে হবে। প্রচার পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী ও সংশ্লিষ্ট বেসরকারি অংশীজনদের সম্পৃক্ত করতে হবে। সেবা-সংক্রান্ত অভিযোগ কাঠামো প্রান্তিক জনগোষ্ঠীবান্ধব করার জন্য সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠীর কাছ থেকে মৌখিক অভিযোগ গ্রহণ ও লিপিবদ্ধ করার ব্যবস্থা করতে হবে এবং সমাধানে নিয়মিত ফলোআপ করতে হবে।

সরকারি প্রতিষ্ঠানের গণশুনানিতে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সমস্যা নিয়ে আলাদা সময় বরাদ্দ করতে হবে এবং তাদের সমস্যা প্রকাশে উৎসাহিত করতে হবে। সমতলের আদিবাসীদের ভূমি সমস্যা দূর করতে এবং এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের জবাবদিহি নিশ্চিত করতে আদিবাসীদের দিয়ে নিয়মিত গণশুনানি করতে হবে। প্রান্তিক জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত এলাকার সেবা প্রতিষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্বকারীদের সেবাদানকারী হিসেবে নিয়োগ বা পদায়ন করার ক্ষেত্রে প্রাধান্য দিতে হবে। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব ও অংশগ্রহণ নিশ্চিতে সংরক্ষিত প্রতিনিধিত্ব সদস্যপদ তৈরি করতে হবে। সংবিধান প্রতিশ্রুত অন্তর্ভুক্তি, বৈষম্যহীন ও জবাবদিহিমূলক সেবা নিশ্চিত করতে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী সম্পর্কে সেবাদানকারীদের মানসিকতা এবং চর্চায় পরিবর্তন আনতে সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ দিতে হবে।

চলমান সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমগুলোর স্বচ্ছতা, জবাবদিহি ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর অংশগ্রহণ বাড়াতে করণীয় নির্ধারণে সংশ্লিষ্ট সরকারি ও বেসরকারি অংশীজনের সমন্বয়ে নিয়মিত মূল্যায়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হবে।

ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে টিআইবি। এতে সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামানসহ অন্যারা উপস্থিত ছিলেন।