বাজার বিশ্লেষণ

সব খাতে দর বাড়লেও লেনদেনে এগিয়ে আর্থিক খাত

রুবাইয়াত রিক্তা

আগের দিনের ধারাবাহিকতায় গতকালও পুঁজিবাজারে লেনদেন ও সূচকে ইতিবাচক গতি ছিল। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৬৩ শতাংশ কোম্পানির দর বৃদ্ধিতে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৫০ পয়েন্ট বা এক শতাংশের বেশি বেড়েছে। লেনদেন বেড়েছে ৭৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। লেনদেনের পুরো সময়জুড়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শেয়ার কেনার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। তবে শেষ দেড় ঘণ্টায় কেনার চাপ বেশি ছিল। প্রায় সব খাতেই শেয়ার কেনার চাপ ছিল। তবে লেনদেন ও দর বৃদ্ধিতে সবচেয়ে এগিয়ে ছিল আর্থিক খাত। ব্যাংক খাতও ভালো অবস্থানে ছিল। এ দুই খাতের বৃদ্ধি সূচকের বড় উত্থানে ভূমিকা রাখে। এছাড়া খাদ্য, কাগজ ও মুদ্রণ, সেবা এবং আবাসন খাত শতভাগ ইতিবাচক ছিল। তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে কোনো কোম্পানি দরপতনে ছিল না।

মোট লেনদেনের ১৫ শতাংশ বা ৫৮ কোটি টাকা ছিল প্রকৌশল খাতে। এ খাতে ৭২ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। সোয়া ১৫ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে ন্যাশনাল টিউবস শীর্ষে উঠে এলেও দরপতন হয় ৯ টাকা। কোম্পানিটি দরপতনের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল। সর্বশেষ হিসাববছরের জন্য ১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে কোম্পানিটি। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১৩ শতাংশ। এ খাতে ৬৪ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ভিএফএস থ্রেডের সোয়া আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ৫০ পয়সা। তোসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ, আলহাজ্ব টেক্সটাইল ও হাক্কানি পাল্প দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে। এসব শেয়ারের দর সাড়ে আট থেকে সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়েছে। ব্যাংক খাতে লেনদেন হয় ১২ শতাংশ। এ খাতে ৭০ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ব্র্যাক ব্যাংকের সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে দুই টাকা ৬০ পয়সা। সিটি ব্যাংকের সাড়ে সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৩০ পয়সা। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১২ শতাংশ। এ খাতে ৭১ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। স্কয়ার ফার্মার সোয়া আট কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে এক টাকা। ফার্মা এইডের প্রায় সাত শতাংশ লেনদেন হয়। দরপতন হয় চার টাকা। সেন্ট্রাল ফার্মার দর প্রায় ৯ শতাংশ বেড়েছে। আর্থিক খাতে লেনদেন বেড়েছে চার শতাংশ। এ খাতে কোনো কোম্পানি দরপতনে ছিল না। অপরিবর্তিত ছিল বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্সের দর। লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের প্রায় ৯ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে এক টাকা ৪০ পয়সা। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধিতে পঞ্চম অবস্থানে উঠে আসে। ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের দর সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া সেবা ও আবাসন খাতের শমরিতা হসপিটাল ১৩ শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষে অবস্থান করে। কোম্পানিটি সর্বশেষ হিসাববছরে ১০ শতাংশ নগদ ও পাঁচ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করায় গতকাল শেয়ারদরে মূল্যসীমা আরোপিত ছিল না। এছাড়া প্রথম প্রান্তিকে ইপিএস বেড়েছে ৪৪ পয়সা। বিবিধ খাতের মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ ও সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ এবং কাগজ ও মুদ্রণ খাতের বসুন্ধরা পেপার মিল দর বৃদ্ধির শীর্ষ পর্যায়ে অবস্থান করে। এসব শেয়ারের দর প্রায় ১০ শতাংশ হারে বেড়েছে।

ট্যাগ »

সর্বশেষ..