শেষ পাতা

‘প্রি-পেইড মিটারে আমরা কোনো সুবিধা পাচ্ছি না’

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রি-পেইড মিটারে হয়রানির অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছে প্রিপেইড মিটার সংযোগ প্রতিরোধ কমিটি। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে তারা সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে সংগঠনের আহ্বায়ক হাজী মোহাম্মদ শাহজাহান সিকদার বলেন, প্রিপেইড মিটারে প্রতি এক হাজার টাকা রিচার্জে ২০ টাকা কমিশন দিতে হয়। প্রতি মাসে ভাড়া বাবদ ৪০ টাকা করে কেটে নেয়, কত দিন পর্যন্ত নেবে তা আমরা জানি না।
তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, প্রতি এক হাজার টাকায় কত ইউনিট বিদ্যুৎ পাব তা আমাদের জানা নাই, বোঝার কোনো উপায়ও নাই। ব্যালেন্স শেষ হয়ে গেলে ২০০ টাকা ইমারজেন্সি ব্যালেন্স নিলে তার বিপরীতে ৫০ টাকা সুদ দিতে হয়। প্রিপেইডের জন্য প্রতি মাসে ২০০ টাকা ভাড়া দিতে হবে এবং আগে যে মাদার মিটার আমরা কিনেছিলাম তা ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা নিয়েছিল। সেই টাকার বিনিময়ে প্রিপেইড মিটার দেওয়া হচ্ছে না। এছাড়াও প্রিপেইড মিটার লক হলে বারবার অভিযোগ করলেও কর্তৃপক্ষ তা আমলে নেয় না। লক খুলতে হলে অফিসে ৬০০ টাকা জমা দিতে হয়।
সংগঠনের আহ্বায়ক বলেন, এ মিটার থেকে আমরা কোনো ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছি না। তাই সরকারের কাছে আবেদন, প্রিপেইড মিটার আমরা চাই না। আমরা আগের মিটারেই ভালো আছি। মাস শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই টাকা পরিশোধ করে দিচ্ছি, তাহলে প্রিপেইড মিটারের কী দরকার? সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন হাজী মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, হাজী মোহাম্মদ হাফিজ উদ্দিন হাওলাদার, হাজী মোহাম্মদ ইয়াসিন, মোহাম্মদ বাহারানে সুলতান বাহার, মো. জামাল উদ্দিন বাচ্চু প্রমুখ।

সর্বশেষ..