প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

প্রেসিডেন্টদের জন্য উড়োজাহাজ তৈরির সিদ্ধান্ত বাতিল ট্রাম্পের

শেয়ার বিজ ডেস্ক: সরকারি খরচ কমাতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের জন্য অর্ডার দেওয়া উড়োজাহাজ বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এক টুইট বার্তায় তিনি এ সিদ্ধান্ত জানান। খবর বিবিসি।

তিনি জানিয়েছেন, ‘ভবিষ্যতের প্রেসিডেন্টদের জন্য নতুন মডেলের ৭৪৭ এয়ারফোর্স ওয়ান উড়োজাহাজ তৈরি করছে বোয়িং। কিন্তু সেটা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। এটি তৈরিতে চার বিলিয়ন ডলারেরও বেশি খরচ হবে। তাই উড়োজাহাজ তৈরির সিদ্ধান্তটি বাতিল করা হচ্ছে।’

বর্তমানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাকে বহনকারী উড়োজাহাজটি ১৯৯০ সালে তৈরি। ফলে ২৬ বছরের পুরনো উড়োজাহাজটি বদলে নতুন দুটি বা তারও বেশি উড়োজাহাজ তৈরি করতে বোয়িংয়ের সঙ্গে একটি চুক্তি করেছে সরকার। নতুন এসব উড়োজাহাজ ২০২৪ সাল পর্যন্ত সেবা দেবে। এতে কমপক্ষে চার বিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ হবে বলেও জানিয়েছিলেন সংশ্লিষ্টরা।

আগামী বছর জানুয়ারিতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণ করবেন ট্রাম্প। কিন্তু দায়িত্ব গ্রহণের আগেই নতুন উড়োজাহাজ তৈরির সিদ্ধান্ত বাতিল করলেন তিনি।

ম্যানহাটনের ট্রাম্প টাওয়ারে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা চাই বোয়িংয়ের আয় বাড়–ক। কিন্তু এতটা বাড়ুক সেটাও চাই না।’

পাশাপাশি নতুন বিমান তৈরিকে হাস্যকর বলেও মন্তব্য করেন তিনি। যদিও বোয়িংয়ের তরফ থেকে ট্রাম্পের এই বক্তব্যের পাল্টা কোনো বিবৃতি প্রকাশ করা হয়নি।

এদিকে এ খবরে মঙ্গলবার লেনদেনের শুরুতে বোয়িংয়ের শেয়ার এক শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়। তবে লেনদেনের শেষ পর্যায়ে তা আবার ঘুরে দাঁড়ায়। প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২০ সালের নির্বাচনে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত না হওয়া পর্যন্ত ট্রাম্প নতুন বিমান ব্যবহার করবেন না। এদিকে আরেক টুইট বার্তায় ট্রাম্প জানান, জাপানের প্রতিষ্ঠান সফটব্যাংক যুক্তরাষ্ট্রে ৫০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। যার মাধ্যমে নতুন করে ৫০ হাজার চাকরির সুযোগ হবে।

সফটব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাসায়শি সনের সঙ্গে ট্রাম্প টাওয়ারে বৈঠকের পর এক টুইটে তিনি এ তথ্য জানান। তবে এ বিনিয়োগে যুক্তরাষ্ট্র কীভাবে লাভবান হবে বা এ অর্থ কোথায় বিনিয়োগ হবে, সে বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছুই বলা হয়নি। এ খবরের পর টোকিও পুঁজিবাজারে দেশটির প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান সফটব্যাংকের শেয়ার পাঁচ শতাংশ পর্যন্ত বেড়ে যায়।