দুরে কোথাও

প া ি খ কালো মথুরা

পাখি দেখতে অনেকেই পছন্দ করেন। নানা জাতের পাখির সঙ্গে পরিচিত হতে বিভিন্ন জায়গায় ভ্রমণও করে থাকেন তারা। তাছাড়া ভ্রমণের স্থানগুলোয় যখন নানা জাতের নানা রঙের পাখির বিচরণ করতে দেখা যায়, তখন মনোমুগ্ধকর পরিবেশের সৃষ্টি করে। ভাবুক করে তোলে পর্যটককে। বিমোহিত হয় তারা। প্রাণোচ্ছল হয়ে ওঠে তাদের মন। এমন পরিবেশ ভ্রমণপিপাসুদের বারবার না টেনে কি পারে! এমনি একটি পাখি কালো মথুরা। এ পাখি কালো ময়ূর বা শুধু মথুরা নামেও পরিচিত। বর্তমানে বিরল প্রজাতির পাখি হলেও একে সাধারণত মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানসহ সিলেট ও চট্টগ্রামের চির সবুজ বনে দেখা যায়।
এ পাখির ইংরেজি নাম ‘কালিজ ফিজ্যান্ট’। বৈজ্ঞানিক নাম ‘লফুরা লিউকোম্যালানস’। কালো মথুরার মূল আবাস বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, মিয়ানমার, চীন ও থাইল্যান্ডে। ১৯৬২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জে এদের অবমুক্ত করা হয়। এদের বেশিরভাগ টিলা ও পাহাড়ি অঞ্চলে দেখা যায়।

বিবরণ
কালো মথুরা কালচে ভূচর পাখি। এ পাখি দেখতে খুবই সুন্দর। ভ্রমণপিপাসুদের নজর কাড়ে সহজে। কালচে নীল রঙের এ পাখির দৈর্ঘ্য পুরুষ ও স্ত্রীভেদে ভিন্ন পুরুষ ৬২ সেন্টিমিটার। স্ত্রী ৫৫ সেন্টিমিটার। ডানা ২২ সেন্টিমিটার, ঠোঁট তিন দশমিক পাঁচ সেন্টিমিটার, পা সাত দশমিক পাঁচ সেন্টিমিটার, লেজ ২৩ সেন্টিমিটার ও ওজন এক দশমিক তিন কেজি।
স্ত্রী ও পুরুষ পাখির মধ্যে বিস্তর পার্থক্য রয়েছে। পুরুষ মথুরার পিঠ উজ্জ্বল নীল ও কালো মেশানো। কোমর ও পেছনের পালক সাদা। মাথার চড়ার পালক খাড়া ও পেছনমুখী। মুখ পালকহীন, মুখের চামড়া ও গলার ঝুলন্ত লতিকা উজ্জ্বল লাল। দেহতলে পুরো কালো রঙের ওপর ইস্পাত-নীল ও বেগুনি চাকচিক্য চোখে পড়ে। স্ত্রী মথুরার দেহে অনুজ্জ্বল বাদামি পালকের ধূসর প্রান্ত আঁশের মতো দেখায়। মাথার চূড়া ও লেজের পালক প্রায় বাদামি। গলা বাদামি। উভয়ের চোখের আশেপাশের কিছু অংশ পালকহীন ও উজ্জ্বল লাল বর্ণের। লেজ মোরগের লেজের মতো। ঠোঁট কিছুটা সবুজাভ। তবে গোড়া কালচে ও আগা ফ্যাকাসে। পা ও পায়ের পাতা বাদামি। স্ত্রী মথুরার পা কালো। অপ্রাপ্তবয়স্ক পাখি দেখতে প্রায় স্ত্রী মথুরার মতো। তবে পিঠে কালচে-বাদামি ও পীতাভ ডোরা দেখা যায়।
স্বভাব
এ পাখি বনের প্রান্ত ও বনসংলগ্ন খোলা জায়গায় বিচরণ করতে ভালোবাসে। সাধারণত জোড়ায় জোড়ায় বা পারিবারিক দল নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। ঘুরে ঘুরে মাটিতে খাবার খুঁজে বেড়ায়। বলা হয়, মাটিতে দ্রুত চলার ক্ষমতাসম্পন্ন পাখি মথুরা। এদের খাদ্যতালিকায় রয়েছেÑডুমুর, বটফল, পিঁপড়া, উইপোকা, ছোট সাপ ও গিরগিটি।
ভোর ও গোধূলিতে এরা বেশি সক্রিয় থাকে। দিনের বেলা গাছের নিচু ডালে বসে বিশ্রাম নেয়। সকাল ও সন্ধ্যায় নিচু স্বরে মুরগির মতো ডাকে। ঘাস বা লতাপাতা দিয়ে মাটিতেই এরা বাসা তৈরি করে। খুব লাজুক পাখিÑমানুষের আনাগোনা টের পেলে দ্রুত লুকিয়ে পড়ে।

প্রজনন
মার্চ থেকে অক্টোবর এদের প্রধান প্রজনন ঋতু। এ সময় পুরুষ মথুরার ডাকাডাকি বেড়ে যায়। স্ত্রী মথুরা ছয় থেকে নয়টি ডিম পাড়ে। ডিমগুলো ফিকে-পীতাভ বা পীতাভ-সাদা থেকে লালচে পীত বর্ণের হয়। ডিম থেকে বাচ্চা ফুটতে প্রায় ২১ দিন লাগে।

সর্বশেষ..