প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ফরিদপুরে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ বীজ আবাদ

প্রতিনিধি, ফরিদপুর: শীতকালীন পেঁয়াজ উত্তোলনে নতুন করে ফরিদপুরে শুরু হয়েছে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ বীজ আবাদ কার্যক্রম। গতকাল শনিবার জেলার সদর উপজেলার অম্বিকাপুর মাঠে আদর্শ কৃষাণি শাহীদা বেগমের জমিতে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ বীজ রোপণ উদ্বোধন করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাসানুজ্জামান কল্লোল। এ সময় তিনি বলেন, দেশের পেঁয়াজের উৎপাদন বৃদ্ধি ও বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি না করে, নিজেরাই পেঁয়াজ উৎপাদন করে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে বর্তমান কৃষকবান্ধব সরকার। সারা বছর পেঁয়াজ উৎপাদনের লক্ষ্যে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ উৎপাদনের মাধ্যমে দেশের পেঁয়াজের চাহিদা পূরণ করার লক্ষ্যে ফরিদপুরে শুরু হয়েছে পেঁয়াজ বীজ চাষ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ফরিদপুর অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ মনোজীত কুমার মল্লিক, উপপরিচালক কৃষিবিদ ড. মো. হজরত আলী, আদর্শ কৃষাণি শাহীদা বেগম, কৃষক বক্তার হোসেন খান, উদ্যোক্তা তানিয়া পারভীন, জেলা মার্কেটিং অফিসার মো. শাহাদত হোসেনসহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আদর্শ কৃষাণি শাহীদা বেগম বলেন, ‘বর্তমান সরকার আমাদের পাশে আছে দেখে আমরা সাধারণ কৃষকরা ভালো আছি। প্রধানমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রীর সহযোগিতায় কৃষকরা এগিয়ে যাচ্ছেন। আমরা পেঁয়াজ বীজ উৎপাদনে প্রথম এবং পেঁয়াজ উৎপাদনে দেশের দ্বিতীয় অবস্থানে আছি। দেশকে পেঁয়াজে স্বয়ংসম্পূর্ণ করার লক্ষ্যে আমরা নতুন করে সারা বছর চাষ করা যায় সেই পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন শুরু করেছি। আশা করছি, আমার উৎপাদিত বীজ সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে পারব এবং আগামীতে আমাদের আর অন্য দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করতে হবে না, আমরাই বিদেশে রপ্তানি করতে সক্ষম হবো।’

বীজ রোপণ উদ্বোধনকালে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আরও বলেন, ‘বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার কৃষকের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। তারই অংশ হিসেবে আজ (গতকাল)  কৃষক শাহীদা বেগমের ক্ষেতে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ বীজের চাষ শুরু হয়েছে। এখানকার উৎপাদিত বীজ আগামীতে সারাদেশে ছড়িয়ে দেয়া হবে। আমরা চাই পেঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে, আমরা আর অন্য দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করতে চাই না। আমরা সারা বছর যাতে পেঁয়াজ উৎপাদন করতে পারি সে লক্ষ্যে শাহীদা বেগমের জমিতে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ বীজের চাষ শুরু করলাম।’