প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ফরিদপুরে জরিমানাসহ দুটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান সাময়িক বন্ধ

প্রতিনিধি, ফরিদপুর: ফরিদপুরে মজুত করা ও বেশি দামে তেল বিক্রির অভিযোগে দুটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ সময় উদ্ধার করা হয় বোতলজাত ও খোলা অবস্থায় মোট ২৯১ লিটার তেল। একই সঙ্গে ১০ দিনের জন্য ওই প্রতিষ্ঠান দুটি বন্ধ করে দেয়া হয়।

শুক্রবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ফরিদপুর শহরের গোয়ালচামট মহল্লা এলাকায় অবস্থিত হেলিপোর্ট বাজারে জেলা ভোক্তা অধিদপ্তর পরিচালিত এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন সহকারী পরিচালক সোহেল শেখ।

অভিযানকালে ওই বাজারের আসাদ স্টোর থেকে ১৫০ লিটার বোতলজাত তেল জব্দ করা হয়। একই পরিমাণ তেল গুদামজাত করে রাখায় ওই দোকানের স্বত্বাধিকারী ফরিদপুর সদরের গঙ্গাবর্দী এলকার মো. মোকসেদ আলীকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে আগামী ১০ দিনের জন্য দোকানটি বন্ধ করে দেয়া হয়।

তবে ব্যবসায়ী মো. মোকসেদ আলী দাবি করেন, তিনি তেল গুদামজাত করেননি। গত বৃহস্পতিবার তিনি ওই এলাকায় অবস্থিত হাইওয়ে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের পুলিশ সদস্যদের কাছ থেকে ওই তেল কিনেছেন।

পরে অভিযান চালানো হয় ওই বাজারে অবস্থিত মফিজ স্টোরে। ওই দোকান থেকে এক লিটারের ৪১ বোতল এবং ১০০ লিটার খোলা তেল জব্দ করা হয়। ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে অভিযোগ বোতলে প্রতি লিটার তেলের দাম ১৬০ টাকা লেখা থাকলেও প্রতি লিটার তেল ২৫০ টাকা লিটার দরে বিক্রি করা হচ্ছিল।

অভিযানকালে মফিজ স্টোরের স্বত্বাধিকারী মফিজউদ্দিন শেখকে (৬৫) ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে ওই প্রতিষ্ঠানটিও ১০ দিনের জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়।

সত্যতা নিশ্চিত করে জেলা ভোক্তা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সোহেল শেখ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই দুটি প্রতিষ্ঠানে এ অভিযান চালানো হয়। ২০০৯ সালের ভোক্তা অধিকার আইনের ৫৪ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে ওই দুই ব্যবসায়ীকে জরিমানা ও দোকান দুটি ১০ দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

এ সময় জ্যেষ্ঠ জেলা বিপণন কর্মকর্তা সাহাদাত হোসেন ও জেলা স্যানিটারি পরিদর্শক বজলুর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।