প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ফার্মা এইডসের শেয়ার দেনদেন বন্ধ আজ

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: ফার্মা এইডস লিমিটেডের শেয়ার লেনদেন বন্ধ থাকবে আজ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্রমতে, ফার্মা এইডসের রেকর্ড ডেট আজ। এ কারণে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন বন্ধ থাকবে। রেকর্ড ডেটের পরদিন থেকে পুঁজিবাজারে শেয়ার লেনদেন স্বাভাবিক নিয়মেই চলবে।

উল্লেখ্য, ১৯৮৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ‘এ’ ক্যাটাগরির এই কোম্পানি।

অনুমোদিত পাঁচ কোটি এবং পরিশোধিত মূলধন তিন কোটি ১২ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ আট কোটি ৫৬ লাখ টাকা। গত বৃহস্পতিবার কোম্পানির শেয়ারদর আগের কার্যদিবসের চেয়ে শূন্য দশমিক ৬০ শতাংশ বা এক টাকা ৫০ পয়সা কমে প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ ২৪৭ টাকা ৭০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ১৪৮ টাকা ২০ পয়সা। দিনজুড়ে কোম্পানির শেয়ারদর সর্বনি¤œ ২৪৭ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২৫৪ টাকায় হাতবদল হয়। ওইদিন ৬৯ হাজার ৮০০টি শেয়ার মোট ৭৬৮ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর এক কোটি ৭৪ লাখ ৬১ হাজার টাকা। গত এক বছরে শেয়ারদর ২১৩ টাকা ২০ পয়সা থেকে ৩১৬ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে। ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে কোম্পানিটি ৩০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এ সময় কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে সাত টাকা ৫২ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৪২ টাকা ৪৫ পয়সা। এটি আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে আট টাকা ১৬ পয়সা ও ৩৭ টাকা ৪৩ পয়সা। ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য আগামী ২৯ ডিসেম্বর ঢাকায় বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এর জন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ৪ ডিসেম্বর। ২০১৫ সালে কোম্পানিটি ২৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল, যা আগের বছরের সমান। ওই বছর কর-পরবর্তী মুনাফা করেছিল দুই কোটি ৫৪ লাখ ৭০ হাজার টাকা, যা আগের বছর ছিল এক কোটি ৭৪ লাখ টাকা।

প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ইপিএস হয়েছে দুই টাকা। এটি আগের বছর একই সময় ছিল এক টাকা ৫৫ পয়সা। অর্থাৎ ইপিএস বেড়েছে ৪৫ পয়সা। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত এনএভি দাঁড়িয়েছে ৪৪ টাকা ৪৫ পয়সা, যা একই বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত সময় ছিল ৪২ টাকা ৪৫ পয়সা।

ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ৬২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। ২০১৫ সালে কোম্পানিটি ২৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। ওই সময় ইপিএস হয়েছিল আট টাকা ১৬ পয়সা এবং এনএভি দাঁড়িয়েছিল ৩৭ টাকা ৪৩ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছিল দুই কোটি ৫৪ লাখ ৭০ হাজার টাকা, যা আগের বছর একই সময় ছিল এক কোটি ৭৪ লাখ টাকা। কোম্পানিটির মোট ৩১ লাখ ২০ হাজার শেয়ার রয়েছে।

ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যমতে, কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে রয়েছে ২৮ দশমিক ৪৪ শতাংশ শেয়ার, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর কাছে পাঁচ দশমিক ৫৬ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে ৬৬ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।