ফুটপাত কবে দখলমুক্ত হবে?

ফুটপাত আর রাস্তার মানে বোঝেন না, এমন মানুষ  কমই আছে। ফুটপাত হচ্ছে নাগরিকের হাঁটার পথ আর সড়ক ও রাস্তা হচ্ছে যানবাহন চলাচলের পথ। কিন্তু দুঃখের বিষয় আমাদের শহরে আমাদের নগরে ব্যস্ততম সড়কগুলোতে ফুটপাতের চিহ্নও অনেক সময় খুঁজে পাওয়া যায় না।

শহরের দু’একটা সড়ক ছাড়া এমন কোনো সড়ক নেই, যেখানে ফুটপাত অবৈধ দখলে নেই। কোনো কোনো রাস্তায় ফুটপাতের সব অংশজুড়ে থাকে হকার আর তার পসরা। শুধু ফুটপাত নয়, ফুটপাত ছাড়িয়ে যানবাহন চলাচলের জায়গায়ও চলে আসে এসব অবৈধ দখলে। কোথাও মাছের বাজার, কোথাও তরিতরকারি, কোথাও ফলমূল, কোথাও জামা-কাপড়, কোথাও নেহেরি, কোথাও তেহেরি, কোথাও জুতা-স্যান্ডেল, কোথাও শুঁটকি, কোথাও পেঁয়াজ-রসুন, কোথাও চায়ের দোকান। শীতকাল এলে এসবের সঙ্গে যুক্ত হয় মোয়া-মুড়ি, ভাপাপিঠা আরও কত কী!

শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোতে ফুটপাত থাকে হয় দোকানদারের দখলে, নয়তো হকারের দখলে। প্রশাসন যে এসব দেখেন না কিংবা এসব অবৈধ দখলের ওপর যে তাদের নজরদারি নেই তা বলা যায় না। মাঝে মধ্যে এসব দখলদারের বিরুদ্ধে পরিচালিত হয় উচ্ছেদ অভিযান। তবে তাদের পরিচালিত অভিযানের সুফল নগরবাসী বড়জোর এক-দু’দিনের বেশি পান না। দিন গড়িয়ে আবার সূর্য ওঠলেই দেখা যায় সে একই হাল।

এর জন্য যারা পায়ে হেঁটে স্কুল-কলেজে যায় কিংবা কর্মস্থলে যাতায়াত করেন তাদের পড়তে হয় নানা অসুবিধায়। ফুটপাত না থাকায় ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের যেকোনো সময় দুর্ঘটনায় পড়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। সে সঙ্গে হাঁটার ধীরগতির কারণে অনেকে সময়মতো স্কুল-কলেজে, বড়রা কর্মস্থলে পৌঁছাতে পারেন না। এ কারণে স্কুলের শিক্ষার্থীদের যেমন বকুনি খেতে হয়, তেমনি বড়দেরও কর্মস্থলে কৈফিয়ত তলবের মুখোমুখি হতে হয়। এর সঙ্গে অসহনীয় যানজট তো আছেই। কিন্তু এই যে যানজট তার জন্য বেশিরভাগই দায়ী ফুটপাত অবৈধ দখলে থাকা।

ফুটপাতগুলো অবৈধ দখলের জন্য পথচারীদের চলাচলে অনেক ভিড় হয় এবং ভিড়ের মাঝে দেখা যায় পকেটমারদের উৎপাত। যেটা বর্তমানে চরম পর্যায়ে চলে যাচ্ছে।

মনে রাখা দরকার, ফুটপাত পথচারীদের, ব্যবসা বা অন্য কিছু করার জায়গা নয়। ফুটপাত থেকে হকার বা অবৈধ দখলদারদের তুলে দিলে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন, তারা পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্ট পাবেন এরকম মানবিক বিবেচনাবোধ কারও মনে থাকা ভালো। তবে এজন্য বছরের পর বছর অন্যায়কে আশকারা দেওয়া মানে বড় ধরনের অন্যায়ের শামিল। কারণ ফুটপাতে অবাধ চলাফেরার সুযোগ নিঃসন্দেহে নাগরিক অধিকার। কোনো অজুহাতেই নাগরিককে এ অধিকার থেকে বঞ্চিত করার সুযোগ নেই। তাই বৃহত্তর কল্যাণ, সবার জন্য অভিন্ন সুযোগ ও আইনের শাসন যথাযথভাবে প্রয়োগে অবশ্যই ফুটপাত জনসাধারণের চলাচল উপযোগী করা হোক এটা দেশের একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে সবাই প্রত্যাশা করতে পারেন। তাই প্রসাশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলব, যত দ্রুত সম্ভব ফুটপাত অবৈধভাবে দখলদারদের থেকে দখলমুক্ত করতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।

লাইজু আক্তার

শিক্ষার্থী, নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ

সর্বশেষ..