প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ফ্যাটি লিভারে খাদ্যাভ্যাস

ফ্যাটি লিভার বা যকৃতে চর্বি জমা আজকাল খুবই পরিচিত একটি সমস্যা। যদি যকৃতে দীর্ঘমেয়াদি অতিরিক্ত চর্বি জমা হয় এবং এর চিকিৎসা না করা হয়, তবে এ থেকে লিভার সিরোসিস, এমনকি লিভার ফেইলিউর পর্যন্ত হতে পারে।

ফ্যাটি লিভারের তেমন কার্যকর কোনো চিকিৎসা নেই। মূল চিকিৎসাই হলো স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, ওজন কমানো, ক্যালরি নিয়ন্ত্রণ ও ব্যায়াম।

যা খাবেন : প্রচুর তাজা ফলমূল ও শাকসবজি। উচ্চ আঁশযুক্ত খাবার। যেমন-সবজি, খোসাসহ ফল।

বাদাম ও বীজ : যেমন বাদাম, আখরোট, কাজুবাদাম, চিয়া বীজ, কুমড়ার বীজ প্রভৃতি। এসব পলি ও মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিডের সমৃদ্ধ উৎস। এছাড়া বাদাম ও বীজ থেকে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা ফ্যাটি লিভারের জন্য উপকারী।

আমিষ হিসেবে চর্বি ছাড়া মাংস, মাছ, টোফুর মতো খাবার খাবেন।

রসুন এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীরের ওজন ও চর্বি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

যা খাবেন না : অত্যধিক ভাজা বা নোনতা খাবার ক্যালরির পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় ও ব্যক্তিকে স্থূল করে, যা লিভারের এ রোগের একটি সাধারণ কারণ। সুতরাং তেলে ভাজা খাবার, চিপস, ফাস্ট ফুড প্রভৃতি ছাড়তে হবে।

গরুর মাংস, খাসির মাংস ও হাঁসের মাংসে স্যাচুরেটেড চর্বি বেশি। ফ্যাটি লিভার রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি যতটা সম্ভব এ খাবার এড়িয়ে চলবেন।

মদ বা অ্যালকোহল, চিনিযুক্ত ও মিষ্টিজাতীয় খাবার যেমন ক্যান্ডি, কুকিজ, সোডা ও ফলের রস থেকে দূরে থাকুন।

আর যা করবেন : সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট করে ব্যায়াম করুন।

রক্তের লিপিডের মাত্রা স্বাভাবিক রাখুন। প্রয়োজনে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করুন। কারণ, ডায়াবেটিস ও ফ্যাটি লিভার রোগ প্রায়ই একসঙ্গে হয়।

লাজিনা ইসলাম চৌধুরী

পুষ্টিবিদ, পিপলস হাসপাতাল

খিলগাঁও, ঢাকা