ফ্রান্সের বাণিজ্য সংগঠনের সঙ্গে এফবিসিসিআইয়ের সমঝোতা স্মারক সই

যুক্তরাজ্যের পর এবার ফ্রান্সের বিনিয়োগ আনতে দেশটির বাণিজ্য সংগঠন এমইডিইএফ ইন্টারন্যাশনালের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করেছে দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই)। গত বুধবার ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে এমইডিইএফ ইন্টারন্যাশনাল ও বাংলাদেশ দূতাবাস আয়োজিত ফ্রান্স-বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিল মিটিংয়ে এ স্মারক সই হয়। গতকাল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এফবিসিসিআইয়ের পক্ষে সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন এবং এমইডিইএফ ইন্টারন্যাশনালের ফ্রান্স বাংলাদেশ-বিজনেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান পিয়েরে-জিন মালগোয়ারেস সমঝোতা স্মারকে সই করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়াল মাধ্যমে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত খন্দকার এম. তালহা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, বাংলাদেশ ও ফ্রান্সের মধ্যে দীর্ঘস্থায়ী বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান। বাংলাদেশের রপ্তানি বাজার হিসেবে ফ্রান্স পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে। মূলত দেশটিতে ওভেন ও নিটওয়্যার, হোমটেক্সটাইল এবং ফুটওয়্যার রপ্তানি হয়। এসব পণ্য ছাড়াও প্লাস্টিক, হালকা প্রকৌশল পণ্য, হিমায়িত খাদ্য, সিরামিক, পাট ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানির বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে।  এ সময় তিনি বলেন, ২০২১ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জš§শতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন করছে বাংলাদেশ। এছাড়া উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার জন্য জাতিসংঘের দেয়া সবগুলো শর্ত পূরণের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতিও মিলেছে। তাই এ বছরটি বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত করতে বাংলাদেশের বিপুল বিদেশি বিনিয়োগ প্রয়োজন। ফ্রান্সের শিল্পপ্রতিষ্ঠান, বিশেষ করে ক্রমবর্ধমান উৎপাদন ব্যয়ের কারণে যেসব খাতের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা কমছে, সেই শিল্পের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে তাদের কারখানা স্থানান্তর করার আহ্বান জানান এফবিসিসিআই সভাপতি।

তিনি আশা প্রকাশ করেন, এই সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের ফলে বাণিজ্য বহুমুখীকরণ ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণের জন্য এফবিসিসিআই ও এমইডিইএফের মধ্যে সহযোগিতা আরও বৃদ্ধি পাবে।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেনÑএফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু, সহ-সভাপতি এমএ মোমেন, মো. আমিনুল হক শামীম, মো. আমিন হেলালী, পরিচালক মো. রেজাউল করিম রেজনু, মো. তবারাকুল তোসাদ্দেক হোসেন খান টিটো, প্রীতি চক্রবর্তী, শমী কায়সার, সৈয়দ সাদাত আলমাস কবির, ডা. নাদিয়া বিনতে আমিন, মো. সাইফুল ইসলাম, খান আহমেদ শুভ, ডা. ফেরদৌসী বেগম, সাবেক সহ-সভাপতি মো. হেলালউদ্দিন, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক পরিচালক প্রবীর কুমার সাহা, খন্দকার মশিউজ্জামান (রোমেল), মো. মহব্বত উল্লাহ, এমসিসিআই ঢাকার সভাপতি মিসেস নিহাদ কবির, বেঙ্গল গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক জেসমিন আক্তার ও সাইফুল আলম এবং পিপলস এনার্জি লিমিটেডের পরিচালক সাজেদা জামান।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯২৭  জন  

সর্বশেষ..