প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

বই উৎসবে শিক্ষার্থীরা

বছরের প্রথম দিন উৎসবে মেতে ছিল সারা দেশের শিশু-কিশোর শিক্ষার্থীরা। বিনা মূল্যে নতুন বইয়ের প্রাপ্তিই এর কারণ। এ আনন্দ ভাষায় প্রকাশ করা তাদের পক্ষে কঠিন। অন্যান্য বছরের মতো এবারও শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে নতুন বই। কয়েক বছর আগেও নতুন বইপ্রাপ্তিতে ছিল কিছু ভোগান্তি। বই পেতে বছরের বেশ কিছুটা সময় পার হয়ে যেতো। বিশেষত গ্রামাঞ্চলের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে।

সোমবারের শেয়ার বিজে ‘জেলায় জেলায় বই উৎসব’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে বলা হয়, বই বিতরণে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছিল আনন্দ। প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের নতুন বই পেয়ে খুশিতে দল বেঁধে ঘরে ফিরছে শিক্ষার্থীরা। নতুন বইয়ের ঘ্রাণ নিয়েছে, পাতায় পাতায় হাত বুলিয়েছে তারা।

প্রাথমিক ও মাধ্যমিক মিলিয়ে এ বছর চার কোটিরও বেশি শিক্ষার্থীর হাতে ৩৬ কোটি বই পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ হয়। এতে জড়িয়ে আছে কয়েক হাজার লোকের কর্মসংস্থান। এজন্য সরকার ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছিল। এ কাজে সরকারকে সফলও বলা যায়। অভিযোগ অবশ্য রয়েছে, কয়েকটি জেলায় বই প্রদানের বিপরীতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্থ নেওয়ার। কোনো কোনো বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা টাকা না দিতে পারায় তাদের নতুন বই থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে বলে খবরে প্রকাশ। রংপুর বিভাগ ও নাটোর জেলার বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী বই না পেয়ে কেঁদে বাড়ি ফিরেছে। এ ধরনের অভিযোগ খতিয়ে দেখা উচিত কর্তৃপক্ষের। সারা দেশের সব শিক্ষার্থীর হাতে বছরের প্রথম দিনে বই তুলে দিতে পারলে, সেটা নিশ্চয়ই অনেক ভালো খবর হতো।

শিক্ষাক্ষেত্রে সরকারের অবদান চোখে পড়ার মতো। ঝরে পড়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা আগের চেয়ে কমেছে। গ্রামেও শিক্ষার হার বেড়েছে। এবার ঢাকা বোর্ডের চেয়ে অন্য বোর্ডে পাসের হার বেশি। তবে জিপিএ ৫ পাওয়ার ক্ষেত্রে গ্রামের চেয়ে শহরের বিদ্যালয় এগিয়ে। সৃজনশীল পদ্ধতিতে পাঠদানে শহরের চেয়ে গ্রামের শিক্ষকরা কম দক্ষ। তাদের প্রশিক্ষণের পরামর্শ দিয়ে থাকেন শিক্ষাসংশ্লিষ্টরা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামোগত উন্নয়নেও নজর দিতে হবে। মেধাবী শিক্ষকদের গ্রামে থাকার পরিবেশ তৈরি করে দিতে হবে। এছাড়া শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বাড়ানোর জন্য আরও কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। গ্রামে শিক্ষার্থীর ঝরে পড়ার হারও বেশি। এজন্য অভিভাবকদের নিয়ে কর্মশালারও আয়োজন করা যেতে পারে। দেশের সব শিক্ষার্থীর হাতে নিয়মমাফিক নতুন বই পৌঁছে দেওয়া প্রসঙ্গে জোরের সঙ্গে এ কথাগুলোর উল্লেখ প্রয়োজনীয় বৈকি।

বছরের প্রথম দিনেই সারা দেশে সব শিক্ষার্থীর হাতে নতুন বই তুলে দেওয়াটা নিঃসন্দেহে চ্যালেঞ্জের। এতে কিছু ত্রুটি থেকে যেতে পারে। সেটাকে ব্যর্থতা বলে স্বীকার করে নিয়ে এর পুনরাবৃত্তি রোধ করাও জরুরি। এক্ষেত্রে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ গুরুতর বলেই গ্রহণ করতে এবং সেজন্য দায়ীদের সাজাও দিতে হবে।