শেষ পাতা

বঙ্গবন্ধুকে ‘ডক্টর অব ল’ সম্মাননা দেবে ঢাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘ডক্টর অব ল’ সম্মাননা দেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সাবেক ছাত্র হওয়ায় তাকে এ সম্মাননা দেওয়া হবে।

ঢাবির ৫২তম সমাবর্তন উপলক্ষে গতকাল আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে ঢাবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান এ কথা জানান। আগামী বছর মুজিববর্ষে এ সম্মাননা দেওয়া হবে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক সভায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, “বঙ্গবন্ধুকে সম্মাননা ডিগ্রি ‘ডক্টর অব ল’ প্রদান করার জন্য অনেক আগেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে এর ঘোষণা দেওয়া হয়নি। আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘মুজিববর্ষ ২০২০’তে মরণোত্তর ‘ডক্টর অব ল’ সম্মাননা ডিগ্রি প্রদান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের অধিকারের জন্য আন্দোলন করলে কারণ দর্শানোর কোনো নোটিস ছাড়াই ১৯৪৯ সালে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয় তাকে। দীর্ঘ ৬১ বছর পর ২০১০ সালের ১৪ আগস্ট তার বহিষ্কারাদেশ তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম সিন্ডিকেট।

উপাচার্য আখতারুজ্জামান বলেন, ৫২তম সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর ও রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সভাপতিত্ব করবেন। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জাপানের টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের কসমিক রে রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ড. তাকাকি কাজিতা। তাকে সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব সায়েন্স’ ডিগ্রি দেওয়া হবে। ৫২তম সমাবর্তনে অংশগ্রহণের জন্য ২০ হাজার ৭৯৬ জন গ্র্যাজুয়েট রেজিস্ট্রেশন করেছেন। অনুষ্ঠানে ৭৯ জন কৃতী শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীকে ৯৮টি স্বর্ণপদক, ৫৭ জনকে পিএইচডি, ছয়জনকে ডক্টর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (ডিবিএ) এবং ১৪ জনকে এমফিল ডিগ্রি দেওয়া হবে। অধিভুক্ত সাত কলেজের রেজিস্ট্রেশনকৃত গ্র্যাজুয়েটরা ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে ঢাকা কলেজ ও ইডেন মহিলা কলেজ ভেন্যু থেকে সরাসরি সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন।

তিনি বলেন, সমাবর্তনকে ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সব প্রস্তুতি এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। অনুষ্ঠানের সার্বিক নিরাপত্তাও নিশ্চিত করা হয়েছে। সমাবর্তনের দিন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গ্র্যাজুয়েটদের চলাচল নির্বিঘœ করতে বিকল্প রাস্তা ব্যবহারের জন্য তিনি সর্বসাধারণের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ চলমান থাকায় গ্র্যাজুয়েট এবং অতিথিদের চলাচলে কিছুটা বিঘœ ঘটতে পারে, সে জন্য আমরা দুঃখিত। সমাবর্তন অনুষ্ঠান সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে ঢাবি পরিবারের সব সদস্য, ঢাকা মহানগর পুলিশ, র?্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নসহ (র?্যাব) আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য এবং গণমাধ্যমকর্মীসহ সংশ্লিষ্ট সবার সদয় সহযোগিতা চাই।’ 

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ঢাবির রেজিস্ট্রার মো. এনামউজ্জামান, ৫২তম সমাবর্তন প্রচার উপ-কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান, প্রক্টর অধ্যাপক ড. একেএম গোলাম রব্বানী প্রমুখ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..