বিশ্ব সংবাদ

বড় লোকসানের আশঙ্কা নিশানের

শেয়ার বিজ ডেস্ক: বড় ধরনের লোকসানের মুখে জাপানের দ্বিতীয় বৃহৎ গাড়ি প্রস্তুতকারক কোম্পানি নিশান। করোনার কারণে চলতি বছর ৪৫০ কোটি ডলার পরিচালন ক্ষতি হবে বলে আশঙ্কা করছে কোম্পানিটি। এমনকি চলতি বছর শেয়ারহোল্ডারদের কোনো লভ্যাংশ না দেওয়ার কথাও বলছে কোম্পানিটি। কোম্পানিটি আরও আশঙ্কা করছে, চলতি বছর তাদের বিক্রি এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে কম হবে। খবর: বিবিসি।

নিশানের প্রধান নির্বাহী মাকোতো উচিদা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বাজার নিয়ে দৃষ্টিভঙ্গি এখনও অনিশ্চিত। এ ছাড়া করোনার সম্ভাব্য দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে আমরা চাহিদা আরও কমতে দেখব।’ উচিদা আরও বলেন, কোম্পানিটি এ বছর শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ প্রদান করতে পারবে না।

বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে নিশানের বিক্রি কমেছে ৪৮ শতাংশ। উত্তর আমেরিকায়ই এর বিক্রি অর্ধেকে নেমে এসেছে, চীনে কমেছে ৪০ শতাংশ। অবশ্য করোনা সংক্রমণের আগে থেকে কিছুটা বিপাকে ছিল কোম্পানিটি। এর আগে গত অর্থবছর দুই দশকের মধ্যে সবচেয়ে বড় লোকসানের কথা জানানোর পর মে মাসে নিশান ঘুরে দাঁড়ানোর পরিকল্পনা ঘোষণা করেছিল। চার বছর ধরে ওই পরিকল্পনার আওতায় উৎপাদন ২০ শতাংশ কমানো হবে বলে বলা হয় এবং স্পেনের বার্সেলোনায় নিশানের কারখানা বন্ধ করে দেওয়ার কথা বলা হয়।

নিশানের এ খবরে গতকাল বুধবার এশিয়ার শেয়ারবাজারে কোম্পানিটির দর প্রায় ১০ শতাংশ কমে গেছে।

করোনার কারণে বিশ্বজুড়ে গাড়িশিল্প ক্ষতির মুখে পড়েছে। চলতি বছরের প্রথমার্ধে জার্মানির রাস্তায় নতুন গাড়ির সংখ্যা কমেছে ৩৫ শতাংশ। গত ৪৫ বছরে এ ঘটনা প্রথম হলো। গত এপ্রিলে ব্রিটেনে গাড়ি তৈরি প্রায় শতভাগ কমে যায়। এ অবস্থায় নতুন সংযোজন হলো নিশানের এ আশঙ্কা। গাড়িশিল্পের শক্তিশালী সংগঠন জার্মান অ্যাসোসিয়েশন অব দ্য অটোমেটিভ ইন্ডাস্ট্রি (ভিডিএ) এক পূর্বাভাসে জানায়, ২০২০ সালে বিশ্বের গাড়ি বাজার ১৭ শতাংশ সংকুচিত হবে। এর মধ্যে জার্মানির গাড়ি বাজার ২৩ শতাংশ, যুক্তরাষ্ট্রের ১৮ শতাংশ ও চীনের ১০ শতাংশ সংকুচিত হবে।

নভেল করোনাভাইরাসের কারণে জার্মানির ম্যানুফ্যাকচারাররা যে সংকটের মধ্যে রয়েছে, তা সাম্প্রতিক প্রকাশিত রিপোর্টেই স্পষ্ট। গাড়িশিল্পের শক্তিশালী সংগঠন জার্মান অ্যাসোসিয়েশন অব দ্য অটোমেটিভ ইন্ডাস্ট্রি বা ভিডিএর প্রেসিডেন্ট হাইল্ডগার্ড মুয়েলার জানিয়েছেন, জার্মানি. ইউরোপসহ পুরো বিশ্বের বাজারেই অভূতপূর্ব আকারে বিপর্যয় নেমে এসেছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..