সম্পাদকীয়

বন্যায় ফসল হারানো কৃষকের পাশে দাঁড়ান

বন্যায় প্রতি বছরই ক্ষতির শিকার হন আমাদের কৃষক। উৎপাদিত ফসলের বড় অংশের ভোক্তা সাধারণ মানুষ। ফলে কৃষক ক্ষতির শিকার হলে ভোক্তারাও ক্ষতিগ্রস্ত হন। প্রতি বছরই দেশের বিস্তীর্ণ এলাকা বন্যায় আক্রান্ত হয়। এ বছরও বন্যায় চরের বিস্তীর্ণ এলাকা নিমগ্ন হয়ে তিন লাখ সাড়ে ২৮ হাজার টন ফসল ও সাড়ে ছয় লাখ কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। গতকাল শেয়ার বিজে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৩১ জেলায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এক হাজার ১৫৩ কোটি টাকার ফসল।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যমতে, বন্যায় এক লাখ ৭১ হাজার ২৮৯ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ ক্ষতির প্রভাব পড়বে অর্থনীতিতে, ভোগান্তি বাড়বে সাধারণ মানুষের।
প্রাকৃতিক দুর্যোগ বন্যা থেকে শতভাগ মুক্ত থাকার উপায় হয়তো নেই। বন্যার মাত্রা বেশি হলে কিংবা এর স্থায়িত্ব দীর্ঘ হলে কৃষককে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়। সংরক্ষণাগার না থাকায় বন্যায় ফসলের বীজ নষ্ট হয়ে যায়। কৃষিবিজ্ঞানীরা বলেন, আগস্ট-সেপ্টেম্বরে বন্যা হলে সে বছর রবি (শীতকালীন) ফসলের ফলন ভালো হয়। বন্যায় জমিতে পলির পরিমাণও বাড়ে। কৃষক যেন রবি ফসল ফলাতে পারেন, সে ব্যবস্থা নিতে হবে। রবি ফসলের ভালো ফলন না হলে কৃষকের দুর্ভোগের সীমা থাকবে না। তাই এখনই কৃষককে রবি ফসল বিশেষ করে গম, ভুট্টা, আলু ও ডালের উন্নত চাষাবাদের ওপর বিশেষ প্রশিক্ষণ দিতে হবে। বীজসহ কৃষি উপকরণ আগাম সরবরাহ করতে হবে। উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য কৃষি উপকরণে ভর্তুকির ব্যবস্থা করতে হবে। বন্যায় যেহেতু কৃষকের বীজ নষ্ট হয়ে যায়, ইউনিয়নভিত্তিক বীজ সংরক্ষণাগার তৈরি করা যেতে পারে।
বন্যাপ্রবণ এলাকা চিহ্নিত করে বিশেষ কৃষি প্রকল্প নেওয়া উচিত। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ না থাকায় ডিজেলের মাধ্যমে সেচ পাম্প চালাতে হয়। এতে উৎপাদন খরচ অনেক বেড়ে যায়। কৃষকের সমস্যা চিহ্নিত করে খাদ্য উৎপাদন ও নিরাপত্তার লক্ষ্যে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নেওয়া জরুরি। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে দেশের স্থিতিশীলতায় কৃষি খাতের অবদান অনস্বীকার্য। কিন্তু প্রতিনিয়ত প্রাকৃতিক দুর্যোগে কৃষক প্রায়ই ফসল হারিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং রাষ্ট্র থেকে যথাযথ সহযোগিতা না পেলে কৃষিকাজে আগ্রহ হারাবে। এটি কৃষি উৎপাদনে মারাত্মক প্রভাব ফেলবে, যা বিপুল জনগোষ্ঠীর খাদ্য নিরাপত্তা, কর্মসংস্থান, গ্রামীণ জনপদের জীবিকা ও জাতীয় অর্থনীতিকে বিপর্যস্ত করতে পারে। বন্যাদুর্গত ঋণগ্রস্ত কৃষককে যেন ব্যাংক, এনজিও বা মহাজন হয়রানি না করে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে হবে।

সর্বশেষ..