প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

বরেন্দ্র অঞ্চল হিসেবে স্বীকৃতি পেল রংপুর

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর পাশাপাশি বরেন্দ্র অঞ্চল হিসেবে স্বীকৃতি পেল রংপুর। গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে অনুমোদিত ‘বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন-২০১৭’-এর খসড়ায় এ নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে সরকার।

গতকাল মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।

বৈঠকে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইনের খসড়া ছাড়াও ‘প্রতিবছর ১২ ডিসেম্বর ‘জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস’ হিসেবে ঘোষণা এবং দিবসটি উদ্যাপনের লক্ষ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এ-বিষয়ক পরিপত্রের ‘খ’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্তকরণের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বৈঠক শেষে পরে সচিবালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের বলেন, এত দিন শুধু রাজশাহী বরেন্দ্র অঞ্চল হিসেবে স্বীকৃত ছিল। কাজের পরিধি বাড়ায় বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সীমানা নতুন করে বাড়ানো হয়েছে। আগে শুধু রাজশাহী বিভাগে এর কার্যক্রম চললেও এখন রংপুর বিভাগের সব জেলাও এর আওতায় আসবে। পাশাপাশি বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এত দিন সরকারের আদেশে রেজ্যুলেশনের মাধ্যমে পরিচালিত হতো। তবে অন্যান্য কর্তৃপক্ষ আইনের মাধ্যমে চলছে বলে এর জন্যও আইন করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, বরেন্দ্র ভূমি বঙ্গ অববাহিকার বৃহত্তম প্লাইসটোসিন ভূপ্রাকৃতিক একক। বৃহত্তর দিনাজপুর, রংপুর, পাবনা, রাজশাহী ও বগুড়া জেলাজুড়ে প্রায় সাত হাজার ৭৭০ বর্গকিলোমিটার এলাকা বরেন্দ্র ভূমি বিস্তৃত।

তিনি জানান, বরেন্দ্র কর্তৃপক্ষ পরিচালনার জন্য দুটি পর্ষদ করা হয়েছে। এর একটি উপদেষ্টা পর্ষদ, অপরটি পরিচালনা পর্ষদ। উপদেষ্টা পর্ষদের চেয়ারম্যান থাকবেন পদাধিকার বলে কৃষিমন্ত্রী। এর সদস্য থাকবেন রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের সব আসনের সংসদ সদস্যরা। কৃষি মন্ত্রণালয়, বিদ্যুৎ-জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিবরাও এর সদস্য থাকবেন। পাশাপাশি রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের দুই বিভাগীয় কমিশনার, দুই বিভাগীয় পুলিশ কমিশনার, পুলিশের ডিআইজি, বরেন্দ্র কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক, পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক এর সদস্য থাকবেন। উপদেষ্টা পরিষদ বছরে একবার সভা করবে।

এছাড়া সরকার মনোনীত একজন সচিব এর সদস্যসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। উপদেষ্টা পর্ষদ বছরে একবার সভা করে কর্তৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় উপদেশ দিতে পারবেন।

অন্যদিকে পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান হবেন বরেন্দ্র কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান। এতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন প্রতিনিধি, পুলিশের ডিআইজির একজন প্রতিনিধি, পুলিশ কমিশনারের একজন প্রতিনিধিসহ ১১ জন সদস্য থাকবেন। তারা প্রতি তিন মাসে একবার সভা করতে পারবেন।

১২ ডিসেম্বর ‘জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস’

প্রতিবছর ১২ ডিসেম্বর ‘জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস’ হিসেবে পালনের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, বাংলাদেশ এখন আইসিটি ক্ষেত্রে অনেক অগ্রসর। আমাদের মোবাইল ও ইন্টারনেট ডেনসিটি অনেক বেশি। সারা বিশ্বের হিসেবে ব্যবহারকারীর সংখ্যায় হয়তো দেখা যাবে আমরা সাত বা আট নম্বরে থাকব।

তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের যে কনসেপ্ট, এটাকে আমরা রাষ্ট্রীয়ভাবে গ্রহণ করছি এবং কাজ করছি। এটা স্মরণীয় করার জন্য ১২ ডিসেম্বরকে ন্যাশনাল আইসিটি ডে হিসেবে পালনের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা।