প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

বর্ণিল উৎসবে দুয়ার খুলল পদ্মা সেতুর

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রমত্তা পদ্মার তীরে উম্মোচিত হয়েছে ফলক, বাতাসে উড়ল রঙিন আবির, দিকে দিকে উঠল ‘জয়বাংলা’ স্লোগান। বর্ণিল উৎসবে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মানুষের দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘এই সেতু শুধু একটি সেতু নয়, এই সেতু দুই পাড়ের যে বন্ধন সৃষ্টি করেছে তা নয়, এই সেতু শুধু ইট, সিমেন্ট, স্টিল, লোহা, কংক্রিটের একটা অবকাঠামো নয়, এই সেতু আমাদের অহংকার, এই সেতু আমাদের গর্ব। এই সেতু আমাদের সক্ষমতা, আমাদের মর্যাদার শক্তি। এই সেতু বাংলাদেশের জনগণের। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে আমাদের আবেগ, আমাদের সৃজনশীলতা, সাহসিকতা, সহনশীলতা এবং আমাদের প্রত্যয় যে, আমরা এই সেতু তৈরি করবই। সেই জেদ, সেই প্রত্যয়।’

স্বপ্ন বোনার শুরুটা হয়েছিল দুই যুগ আগে; নানা টানাপড়েন আর অপপ্রচার পেরিয়ে, ষড়যন্ত্র আর প্রতিকূলতা প্রতিহত করে এ দেশের মানুষের টাকায় বাস্তব রূপ পেয়েছে পদ্মা সেতু।

গতকাল পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করে দেশের মানুষকে ‘স্যালুট’ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, জনগণের সমর্থন আর সাহসেই নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের কঠিন কাজটি করা সম্ভব হয়েছে।

এই সেতু যে কেবল দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলাকে রাজধানীর সঙ্গে সরাসরি যুক্ত করবে, তা-ই নয়, পুরো দেশের সামনে খুলে দেবে নতুন সম্ভাবনার দুয়ার, যে পথ ধরে উন্নত দেশ হওয়ার স্বপ্ন পূরণের অভিযাত্রায় এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

বেলা ১১টা ৫৮ মিনিটে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে এবং পরে সেতু পেরিয়ে জাজিরা প্রান্তে ফলক ও ম্যুরাল উšে§াচন করেন সরকারপ্রধান। দুই দশক আগে তিনিই দক্ষিণ জনপদের ২১ জেলার মানুষের স্বপ্নের এ সেতুর ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন। সেতুতে টোল দিয়ে তিনিই এ সেতুর প্রথম যাত্রী হয়েছেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ঘিরে পদ্মার দুই তীরের তিন জেলার পাশাপাশি সারাদেশেই ছিল উৎসবের রং। বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়ের দুই পাশ সাজানো হয় অসংখ্য ব্যানার-ফেস্টুনে, যেখানে শোভা পেয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তার মেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি।

পদ্মাপাড়ের আনুষ্ঠানিকতা সাজানো হয়েছিল মূলত দুই ভাগে। মাওয়ায় রাষ্ট্রীয় আয়োজনে হয় সুধী সমাবেশ, যেখানে সরকারের মন্ত্রী, আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতা, কূটনীতিকসহ প্রায় সাড়ে তিন হাজার অতিথি উপস্থিত ছিলেন। এই সমাবেশ থেকেই পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট, স্মারক নোট, স্যুভেনির শিট, সিলমোহর ও উদ্বোধনী খাম উšে§াচন করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে সেতুর দুই তীরে ফলক উšে§াচন করে সারেন উদ্বোধনের আনুষ্ঠানিকতা।

পরে তিনি যোগ দেন মাদারীপুরের শিবচরে আওয়ামী লীগের বিশাল সমাবেশে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলা ছাড়াও মুন্সীগঞ্জ, ঢাকা ও অন্যান্য জেলা থেকেও বাস, আর লঞ্চে করে কয়েক লাখ মানুষ সেখানে অপেক্ষায় ছিলেন সকাল থেকেই। কোনো অবকাঠামোর উদ্বোধন উপলক্ষে এত বড় উৎসব, এত বড় আয়োজন আর কখনও বাংলাদেশ দেখেনি।

বলা হয়েছিল, গতকাল শনিবার উদ্বোধন করা হলেও এ সেতুতে ওঠার সুযোগ সবার থাকবে না। আজ (রোববার) পদ্মা সেতু খুলে দেয়া হবে যানবাহন চলাচলের জন্য। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শিবচরে থাকতেই সেতুর দুই প্রান্তে উৎসুক জনতার ঢল নামে। কাউকে কাউকে রেলিংয়ে উঠে সেলফি তুলতেও দেখা যায়। পরে তাদের সরাতে সক্রিয় হতে হয় পুলিশকে।