শোবিজ

বলিউডের প্লেব্যাক গায়িকা হলেন রানু

শোবিজ ডেস্ক: মানসিক ভারসাম্যহীন নারী রানু মণ্ডল। পশ্চিমবঙ্গের রানাঘাট স্টেশনে ভবঘুরে জীবন কাটত তার। লোকজনের কাছে পাগলি নামেই পরিচিত। স্টেশনে যাত্রীদের আবদারে গাইতেন লতা মঙ্গেশকরসহ বিখ্যাত শিল্পীদের গান। এভাবে চলতে চলতে হঠাৎ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোড়ন সৃষ্টি করলেন। ১৯৭২ সালে ভারতের কিংবদন্তি গায়িকা লতা মঙ্গেশকর হিন্দি ‘শোর’ সিনেমায় ‘এক পেয়ার কা নাগমা’ গানটি গেয়েই সাড়া ফেলেছেন। রানুর কণ্ঠে গানটি রেকর্ড করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আপ করেন এক ব্যক্তি। এতেই ভাইরাল হয়ে যান। তার কণ্ঠের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন সবাই। আর তাতেই বদলে যায় রানাঘাট স্টেশনের রানু মণ্ডলের জীবন। এবার বলিউডের প্লেব্যাক গায়িকা হলেন তিনি। বলিউডের সিনেমায় গান গেয়েও আলোড়ন ফেললেন তিনি। সম্প্রতি বলিউডের সংগীত পরিচালক হিমেশ রেশমিয়ার সঙ্গে ‘হ্যাপি হার্ডি অ্যান্ড হির’ সিনেমার জন্য প্লেব্যাক করেছেন। এ সিনেমায় দ্বৈত চরিত্রে অভিনয়ও করেছেন হিমেশ রেশমিয়া। হিন্দি এ সিনেমার ‘তেরি মেরি, তেরি মেরি কাহানি’ গানেই খোদ সংগীত পরিচালকের সঙ্গে গলা মিলিয়েছেন রানু। এদিকে তার কণ্ঠে লতা মঙ্গেশকরের গান পশ্চিমবঙ্গের গণ্ডি ছাপিয়ে সুনাম কুড়িয়েছে গোটা ভারতে। মুম্বাইয়ের একটি টিভি রিয়েলিটি শোতে গান গাওয়ার আমন্ত্রণও পান রানু। কিন্তু রানুর কোনো পরিচয়পত্র না থাকায় তাকে নিয়ে যেতে সমস্যা হয়। এছাড়া বিভিন্ন জায়গা থেকে গানের রেকর্ডিংয়ের প্রস্তাব পেয়েছেন রানু মণ্ডল। ‘হ্যাপি হার্ডি অ্যান্ড হির’ নামে হিমেশের প্রযোজিত একটি চলচ্চিত্র মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। প্রসঙ্গত, মুম্বাইয়ের বাবুল মণ্ডলের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল রানুর। স্বামী মারা যাওয়ার পর রানাঘাটে আসেন তিনি। রেলস্টেশনে ঘুরে ঘুরে গান গাইতেন। কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী লতা মঙ্গেশকরের কঠিন সব গান অবলীলায় গাইতে পারেন তিনি।

সর্বশেষ..