সুশিক্ষা

বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের পছন্দ অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাজ্য পিটিই একাডেমিক

বিদেশে পড়ালেখার জন্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের কাক্সিক্ষত গন্তব্যে পরিণত হয়েছে অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাজ্য। সম্প্রতি পিটিই একাডেমিক (পিয়ারসন টেস্ট অব ইংলিশ) পরিচালিত এক গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। পিটিই একাডেমিক বিদেশে পড়াশোনা করতে ও ইমিগ্রেশন পেতে আগ্রহীদের ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা যাচাইয়ের পরীক্ষা গ্রহণকারী একটি প্রতিষ্ঠান।

গবেষণা থেকে জানা যায়, বাংলাদেশের যেসব শিক্ষার্থী বিদেশে পড়াশোনার জন্য আবেদন করেন, তার ৭৬ দশমিক সাত শতাংশ শিক্ষার্থীরই অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় পড়াশোনার আগ্রহ সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। পাশাপাশি মাইগ্রেশনের জন্যও তারা এ দুটো দেশকেই প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। এছাড়া এসব শিক্ষার্থীর ৫৩ দশমিক পাঁচ শতাংশ শিক্ষার্থী স্নাতক ও মাত্র ২৮ দশমিক ৯ শতাংশ স্নাতকোত্তর কোর্সে অধ্যয়নের জন্য আবেদন করেন। গবেষণা থেকে আরও জানা যায়, পড়াশোনার বিষয় পছন্দের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের ২৩ দশমিক ৯ শতাংশ অ্যাকাউন্টিং, ১৬ দশমিক ৯ শতাংশ ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা ও ১৬ দশমিক ছয় শতাংশ প্রকৌশল খাত বেছে নেন।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, সিঙ্গাপুর, আয়ারল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের সহস্রাধিক একাডেমিক কার্যক্রম দ্বারা আন্তর্জাতিকভাবে গৃহীত পিটিই একাডেমিক। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে মাইগ্রেশনের ক্ষেত্রে পিটিই একাডেমিক স্কোর স্বীকৃত। মালয়েশিয়া সরকার কর্তৃকও স্বীকৃত।

পিটিই একাডেমিকের স্কোর পদ্ধতি কম্পিউটারভিত্তিক, সর্বোচ্চ নির্ভুল ও পক্ষপাতহীন হওয়ায় বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যেও এর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। পরীক্ষার স্কোরের বৈধতা নিশ্চিত করতে পিটিই হাতের ছাপ স্ক্যানিংসহ অত্যাধুনিক ডিজিটাল বায়োমেট্রিক্স, সিকিউর পেপারলেস রেজাল্ট, র‌্যান্ডমাইজড ফরম্যাট ও সিসিটিভি ব্যবহার করে থাকে।

 

পাদটীকা

পিটিই একাডেমিক কম্পিউটারভিত্তিক ভাষা পরীক্ষা, যা আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীদের ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা প্রমাণের জন্য দ্রুত (সাধারণত পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে ফল প্রকাশ করে), পরীক্ষকের পক্ষপাতহীন ও নির্ভুল কম্পিউটার মার্কিং) ও সহজ (বছরের ৩৬৩ দিন টেস্ট সেশন) পদ্ধতি। এই টেস্ট অস্ট্রেলিয়া, আয়ারল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডে শতভাগ গ্রহণযোগ্য। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা ও সিঙ্গাপুরের খ্যাতনামা কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, প্রশিক্ষণদাতা ও পেশাদার সংগঠনসহ হার্ভার্ড বিজনেস স্কুল, ইয়েল ইউনিভার্সিটি, ইনসিড ও লন্ডন বিজনেস স্কুল কর্তৃক গৃহীত।

 

পিয়ারসন ইন্ডিয়া

১৮৪৪ সালে প্রতিষ্ঠিত পিয়ারসন, বিশ্বের ৭০টি দেশে ৩৫ হাজার কর্মীসমৃদ্ধ একটি আন্তর্জাতিক লার্নিং কোম্পানি। আমাদের আছে শিক্ষাবিষয়ক কোর্স, মূল্যায়ন ও প্রযুক্তিনির্ভর বেশকিছু টিচিং এবং লার্নিং সেবাবিষয়ক দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা। উচ্চশিক্ষা গ্রহণের মাধ্যমে জীবনে উন্নতি সাধনে সাহায্য করাই এর লক্ষ্য। পিটিইএ শিক্ষক, শিক্ষার্থী, গবেষক, লেখক ও চিন্তাবিদদের সঙ্গে দীর্ঘদিন কাজ করার মাধ্যমে অনন্য উপলব্ধি ও বিশ্বমানের অভিজ্ঞতা অর্জন করেছে। বিশ্বব্যাপী লাখ লাখ শিক্ষক ও শিক্ষার্থী প্রায় প্রতিদিন তাদের পণ্য ও সেবাসমূহ ব্যবহার করছে।

 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..