সম্পাদকীয়

বাংলাদেশের ক্রিকেটে উন্নয়ন অব্যাহত থাকুক

ক্রিকেট ও বাংলাদেশ একসূত্রে গঁাঁথা হয়ে গেছে। এ খেলায় বিশ্বে বাংলাদেশ এখন একটি প্রশংসনীয় নাম। বিশ্বে দেশটিকে অনেকে চেনে এর অবদানে। একসময় ফুটবল জনপ্রিয় থাকলেও কালক্রমে সেটা জয় করেছে ক্রিকেট। যত দিন যাচ্ছে, এ খেলায় দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট প্রথম স্বীকৃতি পায় ১৯৭৭ সালে। ওই সময় আন্তর্জাতিকভাবে খেলার সুযোগ পায় দল। প্রথম দিকে বাংলাদেশের খেলা নিয়ে অনেকেই নানা কথা বলতেন। কিন্তু আজ ক্রিকেট দুনিয়ায় বাংলাদেশ একটি সমীহযোগ্য নাম। সর্বশেষ প্রকাশিত র‌্যাংকিং অনুযায়ী ওয়ানডেতে বাংলাদেশ দল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৯১ পয়েন্ট নিয়ে ৭ নম্বরে। বাংলাদেশের নিচে অবস্থান করছে পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জিম্বাবুয়ের মতো দল। বাংলাদেশের ক্রিকেট-উত্থানে মুগ্ধ পুরো বিশ্ব। ২০০০ সালে বাংলাদেশ টেস্ট দলের মর্যাদা অর্জন করে। মাঝে বাংলাদেশের টেস্ট খেলা নিয়ে অনেক দেশ প্রশ্ন তুলেছিল। তার জবাব দিচ্ছে সম্প্রতি আমাদের ছেলেরা। সর্বশেষ নিউজিল্যান্ডের মতো দলকে চিনিয়ে দিচ্ছে, টাইগাররা কী।তাদের মাটিতে এর জবাবটা সবার নজরে পড়ে থাকবে। এরপর ক্রিকেটবোদ্ধারা বাংলাদেশের টেস্ট স্ট্যাটাস নিয়ে নিশ্চয়ই আর বাড়াবাড়ি করবেন না।নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে সর্বশেষ টেস্ট ম্যাচটায় বেশ নাটকীয়তা লক্ষ করা গেছে। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ হেরেছে; কিন্তু নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে বাঘের মতোই লড়েছে বলা যায়। যত দিন যাচ্ছে, পরিপক্ব হচ্ছে দল।

লক্ষণীয়, ২০১৪ সালের শেষভাগ থেকে দারুণ খেলছে দল। একটানা পাঁচটি ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে। টাইগাররা হারিয়েছে ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্তিধর দলকে। ২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে ভূপাতিত করে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছিল মাশরাফি বাহিনী। বাংলাদেশের সাফল্যকে রোল মডেল বানিয়ে এখন সহযোগী দেশগুলোর সামনে তুলে ধরছে আইসিসি। দলে যুক্ত রয়েছেন বেশ কয়েকজন প্রতিভাবান। এদের মধ্যে মোস্তাফিজের নাম উল্লেখ না করলেই নয়। তরুণ এ ক্রিকেটার একের পর এক চমক দেখিয়ে যাচ্ছেন বিশ্বকে। সব ফরম্যাটেই সাফল্য পাচ্ছেন তিনি। তাকে নিয়ে বিশ্বে ক্রিকেটপ্রেমীদের উম্মাদনার শেষ নেই। সর্বশেষ আইসিসির বর্ষসেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের মর্যাদা পেয়েছেন তিনি। এছাড়া রয়েছে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মুশফিকুর রহিম ও মিরাজের মতো খেলোয়াড়।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাফল্যের পেছনে রয়েছে উল্লেখ করার মতো কারণ। আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপট, ক্রিকেট বোর্ডের সক্রিয়তা, সরকারের সহায়তা, বিপুল দর্শকের সমর্থন, নিয়মিত খেলা মাঠে গড়ানো, কমার্শিয়াল পার্টনারদের আগ্রহ, মিডিয়ার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে ক্রিকেটের উন্নয়নে। সব ফরম্যাটে বাংলাদেশের ক্রিকেটের এ সাফল্যের ধারা অব্যাহত রাখতে সম্ভব সব পদক্ষেপ নেবেন সংশ্লিষ্টরা এটাই প্রত্যাশা।

সর্বশেষ..