প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

‘বাংলাদেশ ও ফিলিস্তিনের  মধ্যে বাণিজ্য বৃদ্ধি করা সম্ভব’

শেয়ার বিজ ডেস্ক: বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিকভাবে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। ফিলিস্তিনিদের অধিকার আদায়ের পক্ষে বাংলাদেশ রাজনৈতিক সমর্থন দিয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশ ফিলিস্তিনকে সমর্থন দিয়ে আসছে। জাতির জনক যেভাবে ফিলিস্তিনকে সমর্থন করেছিলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও একইভাবে ফিলিস্তিনিদের প্রতি সমর্থন দিচ্ছেন। গতকাল রোববার বাংলাদেশ সচিবালয়ে তার কার্যালয়ে বাংলাদেশে সফররত ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. রিয়াদ আল মালেকির সঙ্গে মতবিনিময়ের পর সাংবাদিকদের উদ্দেশে এসব কথা তিনি বলেন।

তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি এখন রাজনৈতিক সমর্থনের পাশাপাশি অর্থনৈতিক সমর্থন চাচ্ছে বাংলাদেশের কাছ থেকে। দুদেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বাণিজ্য বৃদ্ধি করা সম্ভব। ব্যবসায়ী পর্যায়ে উদ্যোগ গ্রহণ করলে সরকার সহযোগিতা করতে পারে। ঢাকায় নিযুক্ত ফিলিস্তিনের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স ইউসেফ এস. রামাদান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, ফিলিস্তিনে বাংলাদেশের তেমন কোনো রফতানি নেই; তবে খেজুর, অলিভ ওয়েল, পাথর অল্প পরিমাণে আমদানি করে বাংলাদেশ। আমদানি শুল্কও খুবই কম।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিকভাবে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। এতে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তারা অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যেতে বাংলাদেশের সহযোগিতা চায়। দুদেশের মধ্যে বাণিজ্য বৃদ্ধির জন্য আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এজন্য ফিলিস্তিনের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশ সফর করতে আগ্রহী।

ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. রিয়াদ আল মালেকি বলেন, ফিলিস্তিনের জনগণের দাবির প্রতি বাংলাদেশের অব্যাহত সমর্থনের জন্য আমরা কৃতজ্ঞ। আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশের সমর্থন আমরা পেয়ে আসছি। ফিলিস্তিনের জনগণের পক্ষে বাংলাদেশ সব সময় কথা বলে। দীর্ঘদিন ধরে আমরা বাংলাদেশের রাজনৈতিক সমর্থন পেয়ে আসছি; এখন আমরা অর্থনৈতিক সমর্থন চাই। অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশের আন্তরিক সহযোগিতা প্রয়োজন। আমাদের বিশ্বাস, বাংলাদেশ আমাদের সহযোগিতা করবে। সব ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সহযোগিতা ফিলিস্তিন আশা করে। অল্প সময়ের মধ্যে ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস বাংলাদেশ সফর করবেন।

এ সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, অতিরিক্ত সচিব (রফতানি) জহির উদ্দিন আহমেদ, অতিরিক্ত সচিব (আমদানি) মুন্সী শফিউল হক উপস্থিত ছিলেন।