আজকের পত্রিকা দিনের খবর শেষ পাতা

‘বাকাএভ’ ঈদ উপহার পেলেন চার কাস্টমস কর্মকর্তার পরিবার

করোনা-দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণকারী

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী তিন কাস্টমস কর্মকর্তার পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ কাস্টমস এক্সাইজ অ্যান্ড ভ্যাট এক্সিকিউটিভ অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাকাএভ)। সংগঠনের পক্ষ থেকে তিন পরিবারের সদস্যদের কাছে ঈদ উপহার পাঠানো হয়েছে। রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিন কাস্টমস কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

তিন কর্মকর্তা হলেন-রাজস্ব কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন মজুমদার, খোরশেদ আলম ও মো. কবির হোসেন শিকদার। এছাড়া বাকাএভ’র পক্ষ থেকে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা সেলিনা ফারহানার পরিবারের সদস্যদের জন্যও ঈদ উপহার পাঠানো হয়েছে।

## কাস্টমস ও ভ্যাটে মোট আক্রান্ত ১৯২, মারা গেছেন ৪ জন

কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের সূত্রমতে, করোনা মহামারির মধ্যে সম্মুখ সারির যোদ্ধা হিসেবে রাজস্ব আহরণ ও সেবা প্রদানের জন্য কাস্টমস কর্মকর্তারা কাজ করে যাচ্ছেন। দেশের সরবরাহ ব্যবস্থা ও আমদানি-রপ্তানি সচল রাখতে ২৪ ঘণ্টা কাজ করে যাচ্ছেন। নেই পর্যাপ্ত সুরক্ষা সামগ্রী। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাস্টমস হাউস ও ভ্যাট কমিশনারেটে এ পর্যন্ত ১৯২ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন চারজন।

সূত্রমতে, ৩ জুন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যান রাজস্ব কর্মকর্তা জসিম উদ্দিন মজুমদার। তিনি রাজধানীর আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতালে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তিনি চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে কর্মরত ছিলেন। দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি করোনা আক্রান্ত হন। কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের মধ্যে তিনি প্রথম রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

১৩ জুন মারা যান রাজস্ব কর্মকর্তা খোরশেদ আলম। তিনি উত্তরার ইস্ট ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে মারা গেছেন। তিনি ঢাকা কাস্টম হাউসের রপ্তানি পরীক্ষণে কর্মরত ছিলেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা গেছেন। ১৭ জুলাই করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মো. কবির হোসেন শিকদার। তিনি রাজধানীর ইমপালস হাসপাতালে মারা গেছেন। কবির শিকদার ঢাকা কাস্টম হাউসে কর্মরত ছিলেন। এছাড়া ১৬ জুন আইয়ুব আলী নামে একজন গাড়ি চালক করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তিনি ঢাকা দক্ষিণ কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটে কর্মরত ছিলেন।

বাকাএভ সূত্র জানায়, রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিন কর্মকর্তা ‘শহীদ’ হয়েছেন। শহীদ তিন কর্মকর্তার পরিবারের পাশে রয়েছে ‘বাকাএভ’। বিশেষ করে তাদের পরিবারের সদস্যদের খোঁজ খবর নেয়া, সহকর্মী হিসেবে সাধ্যানুযায়ী সহযোগিতা করা। পবিত্র ঈদ-উল-আযহায় সুখ-দু:খ ভাগাভাগি করে নিতে করোনায় শহীদ কর্মকর্তাদের পরিবারের সদস্যদের জন্য ‘বাকাএভ’ এর পক্ষ থেকে ঈদ উপহার পাঠানো হয়েছে।

বাকাএভ সদস্য সচিব মো. মজিবুর রহমান জানান, ১৮ মার্চ তামাবিল থেকে সিলেট শহরে ফেরার পথে সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা আমাদের সহকর্মী সেলিনা ফারহানা সড়ক দুর্ঘটনায় না ফেরার দেশে চলে যান। বাকাএভ এর পক্ষ থেকে ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে তার সন্তানের খোঁজ-খবর নেয়ার পাশপাশি  ঈদ উপহার পাঠানো হয়েছে।

বাকাএভ আহবায়ক খন্দকার লুৎফল আজম জানান, করোনা আক্রান্ত হয়ে রাজস্ব কর্মকর্তা জসীম উদ্দিন মজুমদার, খোরশেদ আলম এবং সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা কবির শিকদার আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। তিনজনের পরিবারের সদস্যদের খোঁজ-খবর নেয়ার পাশাপাশি তাদের সন্তানদের জন্য ঈদ উপহার পাঠানো হয়েছে। ভবিষ্যতেও যেকোন বিপদে সহকর্মীর পরিবারের পাশে থাকবো। একই সঙ্গে কর্তব্যরত অবস্থায় মৃত্যুবরণকারী সহকর্মীর সন্তানদের পড়াশোনার জন্য বাকাএভ থেকে বৃত্তি চালুর উদ্যোগ নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন-করোনায় প্রথম এক ‘কাস্টমস’ কর্মকর্তার মৃত্যু

আরও পড়ুন-করোনায় আরো এক ‘রাজস্ব কর্মকর্তার’ মৃত্যু

আরও পড়ুন-করোনার কাছে হেরে গেলেন কাস্টমস কর্মকর্তা ‘কবির’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..