প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

বাজেটের অতিরিক্ত ২৫০ কোটি টাকা পাচ্ছে সড়ক বিভাগ

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ ব্যবস্থা অক্ষুন্ন রাখতে ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বাজেটের অতিরিক্ত ২৫০ কোটি টাকা পাচ্ছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে সারা দেশের সড়কের জন্য ২২৫ কোটি টাকা এবং পার্বত্য এলাকার সড়কের জন্য ২৫ কোটি টাকা দেওয়া হবে।

গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব এমএন সিদ্দিকীসহ উভয় মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের বেশকিছু দাবি ছিল। বিশেষ করে, যাতায়াত ব্যবস্থা সুগম রাখার স্বার্থে ক্ষতিগ্রস্ত সড়কগুলো সংস্কার জরুরি হয়ে পড়েছে। বিগত বন্যা ও বৃষ্টির কারণে দেশের অনেক রাস্তাই এখন চলাচলের অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে। সড়ক সংস্কারের জন্য মন্ত্রণালয়ের দাবি করা টাকা দেওয়া হবে। এছাড়া তাদের আরও কিছু বিষয় ছিল, সেগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, বৈঠকে সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়, ২৭টি খাতে ২০১১-১২ অর্থবছর থেকে ২০১৩-১৪ অর্থবছর পর্যন্ত সড়ক বিভাগের বিভিন্ন কাজ বাবদ প্রায় ১৫০ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে। এসব কাজ শেষ হলেও ঠিকাদারদের পাওনা পরিশোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়। একপর্যায়ে শর্তসাপেক্ষে এ বকেয়া পরিশোধের সিদ্ধান্ত হয়। এ বিষয়ে বৈঠকে বলা হয়েছে, এসব কাজের অডিট শেষ হওয়ার পর অডিট প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বকেয়া পরিশোধ করা হবে।

পদ্মা সেতু-ভাঙ্গা সংযোগ সড়ক ও ঢাকা বাইপাস সড়ক নির্মাণ

বৈঠক সূত্র জানায়, পদ্মা বহুমুখী সেতুর পশ্চিম পাড় থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত ৫৪ কিলোমিটার চারলেনবিশিষ্ট সংযোগ রোড নির্মাণ ও ঢাকা বাইপাস সড়ক নির্মাণে ভূমি অধিগ্রহণের জন্য ১ হাজার ১০০ কোটি টাকা চেয়েছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়।

বিষয়টি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বৈঠকে উপস্থাপনের পরামর্শ দেন অর্থমন্ত্রী।

বিআরটিসির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতনভাতা পরিশোধে ২১ কোটি টাকা সুদমুক্ত ঋণ

বিআরটিসির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধের জন্য ২১ কোটি টাকা সুদমুক্ত ঋণ চেয়েছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়।

এ বিষয়ে বৈঠকে বলা হয়, বিআরটিসি একটি রাষ্ট্রায়ত্ত করপোরেশন। তাদের আয় থেকে বেতনভাতা পরিশোধ করা হয়। নতুন পেস্কেল ঘোষণার পর সংস্থাটির ব্যয় বেড়েছে। এ অবস্থায় সংস্থাটির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতনভাতা পরিশোধের জন্য সুদমুক্ত ২১ কোটি টাকা ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। সংস্থাটিকে আগামী দুই বছরের মধ্যে ঋণের এ টাকা পরিশোধ করতে হবে। তবে তারা ঋণের টাকা কীভাবে পরিশোধ করবে, সে সংক্রান্ত একটি ‘বিজনেস প্ল্যান’ অর্থ বিভাগে জমা দিতে হবে।

‘ডোনার ফান্ডেড’ গাড়ি কেনায় অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মতি

বৈঠক সূত্র জানায়, নির্মাণাধীন জয়দেবপুর-এলেঙ্গা-রংপুর মহাসড়ক প্রকল্পের জন্য সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ৫০টি নতুন গাড়ি চাওয়া হয়। এ সময় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের ক্যাডার কর্মকর্তার সংখ্যা জানতে চান অর্থমন্ত্রী।

জবাবে বলা হয়, মন্ত্রণালয়ের ক্যাডার সংখ্যা ৬৫৬ জন। এর বিপরীতে রাজস্ব খাতে ৫৫৩টি ও বিভিন্ন প্রকল্পে ১০৯টি গাড়ি রয়েছে, যা ক্যাডার সংখ্যার চেয়ে বেশি।

এ সময় গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে অর্থ মন্ত্রণালয়ের একটি অনুশাসন তুলে ধরে বলা হয়, যেসব মন্ত্রণালয়ের গাড়ির সংখ্যা ১০০ থেকে ১৫০টি, তারা নতুন গাড়ি কিনতে পারবে না।

এ প্রেক্ষাপটে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় জানায়, প্রকল্পের বেশিরভাগ গাড়িই ব্যবহারের অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে। ওইসব গাড়ি বাদ দিয়ে নতুন গাড়ি সংগ্রহ করতে চায় মন্ত্রণালয়।

আলোচনার এ পর্যায়ে নতুন গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে মন্ত্রিসভার অনুমোদন আছে বিবেচনায় বিভিন্ন প্রকল্পে ‘ডোনার ফান্ডেড’ গাড়ি কিনতে সম্মতি দেয় অর্থ মন্ত্রণালয়।