Print Date & Time : 28 June 2022 Tuesday 11:50 pm

বাণিজ্যমেলায় বাড়ছে দর্শনার্থীর ভিড়

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় বাড়ছে ভিড়। গতকাল শনিবার মেলার স্টলগুলোয় ছিল চোখে পড়ার মতো ভিড়। পরিবারসহ এসেছে শহর ও শহর উপকণ্ঠের কর্মব্যস্ত মানুষ। মেলা প্রাঙ্গণে দিনভর ঘোরাফেরার ফাঁকে তাদের অনেকেই কিনে নিয়েছেন পছন্দের গৃহস্থালি পণ্য, সুস্বাদু বিস্কুট, প্যাকেটজাত খাবার, প্লাস্টিকপণ্যসহ হরেক রকম জিনিসপত্র। স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় তরুণীদের ভিড় দেখা গেছে দেশি-বিদেশি প্রসাধনীর স্টলগুলোয়।

উল্লেখ্য, গতকাল ছিল সরকারি ছুটির দিন। দুপুরে মেলার মাঠে কাপড় বিছিয়ে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন পুরান ঢাকার লালবাগ থেকে সপরিবারে মেলায় ঘুরতে আসা জহিরুল ইসলাম। স্ত্রী, দুই সন্তান ও খালাতো ভাই মাজেদুলকে নিয়ে বাসায় তৈরি খিচুরি খাচ্ছিলেন তারা।

জহিরুল বলেন, সকাল ১০টার দিকে মেলায় এসেছেন তারা। লোকজন কম ছিল, তাই নির্বিঘ্নে ঘুরেছেন পছন্দের স্টলগুলোয়। বেলা ৩টার দিকে বাসায় ফেরার ইচ্ছা তাদের। মেলা থেকে কিছু প্লাস্টিকপণ্য কিনেছেন জহিরুল। বললেন, পকেটে ১৫ হাজার টাকা নিয়ে এসেছি। পছন্দ হলে হয়তো আরও কিছু কেনাকাটা করবো। পরিবার নিয়ে ঘোরাফেরা করতে ও রকমারি পণ্যের পসরা দেখতে প্রতি বছরই মেলায় আসেন বলে জানান তিনি।

কোকোলা ফুড প্রডাক্টের বিপণন বিভাগের প্রধান আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, এখন পর্যন্ত মেলায় তেমন বেচাকেনা হচ্ছে না। সবাই অ্যালুমিনিয়াম ও প্লাস্টিকের কিছু আসবাবপত্র কিনছেন।

মেলায় পরিবারসহ আসা নারী ক্রীড়াবিদ নাজমা আক্তার শশী বলেন, এ পর্যন্ত বিরক্তিকর ভিড় চোখে পড়েনি। বিকাল নাগাদ এমন সুন্দর পরিবেশ নাও থাকতে পারে। মেলা থেকে তিনি রান্নাঘরের আসবাবপত্র কিনেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, সাধারণত দর্শনার্থীরা এসবই কিনছেন।

এবারের মেলায় ভারত, পাকিস্তান, ইরানসহ কয়েক দেশের পণ্যের জন্য বিশেষ প্যাভিলিয়ন থাকলেও সেখানে দর্শকসমাগম খুব একটা লক্ষ করা যায়নি।

তবে থাইল্যান্ডের প্যাভিলিয়নে ভ্যানিটি ব্যাগ, মেয়েদের পার্স, অলঙ্কার ও প্রসাধনীর দোকানগুলোয় দর্শকসমাগম ছিল চোখে পড়ার মতো।

অন্যদিকে তুরস্কের জন্য নির্ধারিত প্যাভিলিয়নে গৃহসজ্জার ঝাড়বাতি, চাবির রিং, ব্রেসলেট, রঙিন বাতি দর্শনার্থীদের আগ্রহ কেড়েছে।

ব্রেসলেট দোকানের কর্মী সোহেল জানান, তাদের ইসলামি ক্যালিওগ্রাফিগুলো ৫০০ থেকে এক হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া গত ১২ দিনে পাঁচ হাজারেরও বেশি ব্রেসলেট ও চাবির রিং বিক্রি হয়েছে।

দশনার্থীদের ভিড় রয়েছে শীতকালীন পোশাকসহ কুটির বা হস্তশিল্পের স্টলে। শীতবস্ত্রের মধ্যে ছেলেদের ব্লেজার, কোট ও মেয়েদের চাদরের প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহ বেশি। বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখা যায়, মেলায় এক হাজার ২০০ থেকে তিন হাজার টাকায় পছন্দের ব্লেজার ও কোট মিলছে।

বাহারি নকশা ও রঙের হস্তশিল্পের পসরা সাজানো শতরঞ্জির স্টলে ক্রেতা-দর্শনার্থীর আনাগোনাও একটু বেশি। বাহারি ডিজাইনের ফ্লোরম্যাট, ওয়ালম্যাট আর বেডশিট, ব্যাগ, কয়েন পার্স আর জুতাও পাওয়া যাচ্ছে এখানে। বিক্রি বাড়াতে নানা ছাড়ও দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ।