দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

বাণিজ্যমেলায় ভ্যাট ফাঁকি ২৫ প্রতিষ্ঠানকে আর্থিক জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় অংশ নেওয়া ২৫টি প্রতিষ্ঠানকে ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগে ব্যক্তিগত জরিমানা করেছে কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট, ঢাকা (পশ্চিম)। এছাড়া ভ্যাট ফাঁকি দেওয়া কিছু প্রতিষ্ঠান থেকে ভ্যাট আদায় করা হয়েছে। গতকাল ভ্যাট পশ্চিম কমিশনার ড. মইনুল খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
ভ্যাট পশ্চিম সূত্র জানায়, বাণিজ্যমেলায় অংশ নেওয়ার এসব প্রতিষ্ঠান ক্রেতাদের যথাযথভাবে ভ্যাট চালান দেয়নি। কিছু প্রতিষ্ঠান ক্রেতাদের নিকট থেকে ভ্যাট আদায় করলেও তা সরকারি কোষাগারে জমা দেয়নি। ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগে ঢাকা পশ্চিম ভ্যাটের কর্মকর্তারা গত ২৯ জানুয়ারি মেলা প্রাঙ্গণে পরিদর্শনে গিয়ে বিভিন্ন অনিয়ম দেখতে পান। ওই দিন তাদের বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা করা হয়। গতকাল মামলায় উত্থাপিত অভিযোগ আমলে নিয়ে ন্যায় নির্ণয়নের মাধ্যমে প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানকে ব্যক্তিগত জরিমানা আরোপ করা হয়। মামলাগুলোর ন্যায় নির্ণয়ন করেন সহকারী কমিশনার ফারহানা বেগম।
অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠান ও জরিমানার পরিমাণ হলো রয়েলেক্স মেটাল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ২৫ হাজার টাকা, দিল্লি অ্যালুমিনিয়াম ২০ হাজার টাকা, নিউস্টাইল মার্কেটিং ১০ হাজার টাকা, এফজি ১০ হাজার টাকা, শাহজাহান স্টোর ১০ হাজার, বেবি হ্যান্ডিক্রাফট ১০ হাজার, দ্য পার্ল হাউজ ১০ হাজার টাকা, এসএ ইন্টারন্যাশনাল ১০ হাজার টাকা, মামুন ট্রেডার্স ১০ হাজার টাকা, কামাল এন্টারপ্রাইজ ১০ হাজার টাকা, নাছির আবেদীন ট্রেডার্স ১০ হাজার টাকা, আশরাফ অ্যান্ড ব্রাদার্স ১০ হাজার টাকা, সিমুরা ১০ হাজার টাকা, নিদা ট্রেডিং ১০ হাজার টাকা, খাজা হোটেল অ্যান্ড হাজির বিরিয়ানি ১০ হাজার টাকা, মিয়াকো ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল ২৫ হাজার টাকা, হাসেম ফুড লিমিটেড ২০ হাজার টাকা, বেঙ্গল মেলামাইন লিমিটেড ২০ হাজার টাকা, নাবিস্কো বিস্কুট অ্যান্ড ব্রেড ফ্যাক্টরি ২৫ হাজার টাকা, গৃহিণী বিরিয়ানি অ্যান্ড কাবাব ২০ হাজার টাকা, ঢাকা ফাস্ট ফুড অ্যান্ড হাজির বিরিয়ানি ১০ হাজার টাকা, সিয়াম ফেব্রিকস ১০ হাজার টাকা, তৌফিকা ফুড অ্যান্ড এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ১০ হাজার টাকা, কিয়াম মেটাল অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ ২৫ হাজার টাকা, এসকেবি স্টেইনলেস স্টিল অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ২০ হাজার টাকা। আরোপিত জরিমানা ভ্যাট ফাঁকির অতিরিক্ত হিসেবে বিবেচিত হবে।
এ বিষয়ে ড. মইনুল খান শেয়ার বিজকে বলেন, ভ্যাট ফাঁকি রোধ ও ভ্যাট আদায়ে ভ্যাট পশ্চিম সবসময় সজাগ। জরিমানার মাধ্যমে ভ্যাট ফাঁকিবাজদের কাছে একটি বার্তা যাবে। তা হলো ভ্যাট আইন অনুযায়ী যেসব প্রতিষ্ঠান জনগণ থেকে ভ্যাট আদায় করে যথাযথভাবে সরকারি কোষাগারে জমা দেবে না, যে কোনো সময় তাদের ওপর কঠোরভাবে আইন প্রয়োগ হবে।
সূত্র জানায়, মেলায় ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ভ্যাট বাবদ প্রায় তিন কোটি ৬৫ লাখ টাকা আদায় হয়েছে। গত বছর মেলায় মোট ভ্যাট আহরণ হয়েছিল প্রায় পাঁচ কোটি টাকা। এবার বিক্রির পরিমাণ বেশি হওয়ায় প্রায় ছয় কোটি টাকা হবে আশা করছেন কর্মকর্তারা।

সর্বশেষ..