কোম্পানি সংবাদ

বাণিজ্যিকভাবে পেনিসিলিন উৎপাদন শুরু এক্মি ল্যাবরেটরিজের

নিজস্ব প্রতিবেদক: ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি দি এক্মি ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড বাণিজ্যিকভাবে পেনিসিলিন উৎপাদন শুরু করেছে। কোম্পানিটি তিনটি প্রজেক্ট বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলন করেছিল। সেই তিনটি প্রজেক্টের মধ্যে একটি হচ্ছে কোম্পানির ফ্যাক্টরিতে পেনিসিলিন উৎপাদন সুবিধার প্রজেক্ট স্থাপন করা। এরই ধারাবাহিকতায় কোম্পানিটি ঢাকার ধামরাইয়ের দুলিভিটায় পেনিসিলিনের বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করেছে। এরই মধ্যে এ প্রজেক্টের পরীক্ষামূলক উৎপাদন সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
এদিকে বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ারদর শূন্য দশমিক ১৪ শতাংশ বা ১০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ৭২ টাকা ৯০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দরও ছিল ৭২ টাকা ৯০ পয়সা। দিনজুড়ে দুই লাখ ৭০ হাজার ৪৬০টি শেয়ার মোট ৫৬৫ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর এক কোটি ৯৫ লাখ ৯১ হাজার টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনি¤œ ৭১ টাকা ৬০ পয়সা থেকে ৭৩ টাকায় লেনদেন হয়। গত এক বছরে ৬৯ টাকা থেকে ১০৪ টাকায় ওঠানামা করে।
প্রাপ্ত তথ্যমতে, ৩০ জুন ২০১৮ সমাপ্ত হিসাববছরে ৩৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ছয় টাকা ৭৪ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৮৩ টাকা ৩৯ পয়সা। ওই সময় মুনাফা করেছে ১৪২ কোটি ৬৫ লাখ ৭০ হাজার টাকা। ৩০ জুন ২০১৭ পর্যন্ত সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য কোম্পানিটি ৩৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে, যা তার আগের বছরের সমান। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটি ইপিএস করেছে ছয় টাকা ৬১ পয়সা ও এনএভি ৮০ টাকা ১৩ পয়সা। এটি আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে ছয় টাকা ৫৫ পয়সা ও ৭৭ টাকা ৩৪ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ১৩৯ কোটি ৭৮ লাখ ৫০ হাজার টাকা, যা আগের বছর ছিল ১১০ কোটি ১২ লাখ ৭০ হাজার টাকা।
২০১৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ‘এ’ ক্যাটেগরির কোম্পানিটি। ৫০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ২১১ কোটি ৬০ লাখ ২০ হাজার টাকা। কোম্পানির রিজার্ভের পরিমাণ এক হাজার ৩৯ কোটি ৮৯ লাখ ৩০ হাজার টাকা। কোম্পানিটির মোট ২১ কোটি ১৬ লাখ এক হাজার ৭০০টি শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা বা পরিচালকদের কাছে ৩১ দশমিক ৯৮ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর কাছে ৩১ দশমিক ১১ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারী শূন্য দশমিক ৭৪ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে বাকি ৩৬ দশমিক ১৭ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..