সুস্বাস্থ্য

বাথরুমে নয়…

ঘুম থেকে উঠে হয়তো প্রথমেই ছুট দেন বাথরুমে। শুধু সকালেই নয়, দিন ও রাতের অনেক সময় প্রয়োজনে সেখানে কাটাতে হয়। তবে একটু সচেতন না হলে ভেজা ও স্যাঁতসেঁতে বাথরুম হয়ে উঠতে পারে রোগ-জীবাণুর আখড়া। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে কিছু জিনিস বাথরুমে দীর্ঘদিন রাখা উচিত নয়।

টুথব্রাশ
প্রায় সবারই বদঅভ্যাস রয়েছে টুথব্রাশ বাথরুমে রেখে দেওয়ার। অথচ এ অভ্যাসের ফলে ঝুঁকির মুখে থাকে সুস্থতা। যুক্তরাষ্ট্রের একদল গবেষক দেখেছেন, কমন বাথরুমে মল বা বিষ্ঠাজাতীয় পদার্থে বেশি আক্রান্ত হয় টুথব্রাশ। যতই বাথরুম পরিষ্কার থাকুক কিংবা ব্রাশে ক্যাপ লাগিয়ে রাখুন না কেন, ব্যাকটেরিয়ার বিস্তার রোধ ঠেকাতে পারবেন না। ক্যাপ না লাগিয়ে খোলা অবস্থায় অন্য রুমে রাখুন টুথব্রাশ।

জন্মনিয়ন্ত্রক সামগ্রী
বাথরুমের তাপমাত্রা ও আর্দ্রতায় নষ্ট হয়ে যায় জন্মনিয়ন্ত্রক সামগ্রী। এমনকি মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই কার্যকারিতা হারায় এসব বস্তু। একই সঙ্গে আই ড্রপ, নাসাল ড্রপসহ নানা ধরনের মলমও বাথরুমের বাইরে রাখতে হবে।

রেজার ব্লেড
বাথরুমের আর্দ্রতায় মরিচা ধরে যায় ব্লেডে। শুধু তাই-ই নয়, অন্য সেভিং সামগ্রীও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কাজেই সব ধরনের সেভিং কিটস সরিয়ে ফেলুন বাথরুম থেকে।
স্বর্ণালংকার
রেজর ব্লেডের মতো স্বর্ণালংকারও বাথরুমের আর্দ্রতায় ঔজ্জ্বল্য হারাতে পারে। আসল কিংবা নকল সব ধরনের জুয়েলারি বক্স সরিয়ে রাখা উচিত বাথরুম থেকে।

মেকআপ
বাথরুমে মেকআপ নয়। এমনকি কোনো মেকআপ সামগ্রী বাথরুমে না রাখার অভ্যাস করতে হবে। মেকআপের ব্রাশে সহজে ব্যাকটেরিয়া বিস্তার করে। বহুদিনের পুরোনো মেকআপ ব্রাশ বদলে ফেলতে পারেন। তবে নতুন ব্রাশও বাথরুমে রাখবেন না।

চুলের ব্যান্ড
বাথরুমের বেসিনের ওপরের স্ট্যান্ডে অনেকে চুলের ব্যান্ড রাখেন। এতে ব্যান্ড নরম হয়ে যায়। ইলাস্টিক নষ্ট হয়ে যায়। পাশাপাশি জীবাণুর আক্রমণও ঘটে। তাই চুলের ব্যান্ড বাথরুমের বাইরে রাখুন।

পারফিউম
দীর্ঘ সময় বাথরুমে পারফিউম পড়ে থাকলে দুর্গন্ধময় হয়ে যায়। তাছাড়া দম-বন্ধ অস্বস্তিকর পরিবেশও তৈরি করে। এ কারণে তাই বাথরুম থেকে সরিয়ে শোয়ার ঘর বা অন্য কোথাও রাখুন পারফিউম।

তোয়ালে
বাথরুমের জীবাণু দ্রুত তোয়ালেতে চলে আসে। ভেজা তোয়ালে তুলনামূলক বেশি বিপজ্জনক। তাই তোয়ালে বাইরে রাখুন, শুকনো রাখুন।

 

সর্বশেষ..