প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

বিএনপি এবার টোপে পা দেবে না: খন্দকার মোশাররফ

নিজস্ব প্রতিবেদক: নির্বাচনে নিরপেক্ষ সরকারের দাবি জানিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ‘এবার আওয়ামী লীগের টোপে বিএনপি পা দেবে না।’

গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ অতীতেও নির্বাচন সামনে রেখে নানা রকমের ফন্দি, নানা রকমের কাণ্ডকারখানা ও কৌশল করেছে। আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, বারবার জনগণকে ধোঁকা দেয়া যায়, বারবার প্রতারণা করা যায়, বিএনপিকেও হয়তো বারবার টোপে ফেলা যায়। এবার সেই টোপে পা দেবে না বিএনপি।’

শিগগিরই বিএনপিকে সংলাপে আমন্ত্রণ জানানো হবেÑশুক্রবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালের এ বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, ‘আমাদের

কথা পরিষ্কার। এই নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপে অংশ করার বিএনপির প্রশ্নই ওঠে না। এই কমিশন সংলাপের আহ্বান করলেই কী, না করলেই কী? বিএনপি এ ব্যাপারে কর্ণপাতও করে না, দুই পয়সার দামও দেয় না। প্রশ্নই ওঠে না তাদের কথা বলার।’

সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি নেতা নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টুর সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে আলোচনা সভার আয়োজন করে সম্মিলিত ছাত্র যুব ফোরাম।

২০১৫ সালের ৩ মে রাজশাহীর কারাগার থেকে পিন্টুকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে নিলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার স্মরণসভায় অংশ নিয়ে ইসির সংলাপ ও নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপির অবস্থান তুলে ধরেন মোশাররফ হোসেন।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি এরই মধ্যে ঘোষণা করেছে, এই সরকার ক্ষমতায় থাকলে তার অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না। এই সরকার যখন এই নির্বাচন কমিশন করে, রাষ্ট্রপতিকে দিয়ে যে নাটক করে এবং সার্চ কমিটি দিয়ে যে নাটক করে, ওইসব নাটকে বিএনপি অংশগ্রহণ করেনি। আমরা জানি না এই নির্বাচন কমিশনে কারা? তাদের কোনো রকমের রিকগনাইজ করি না।’

বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরামের এই সদস্য বলেন, ‘আমরা যে নির্বাচন চাই, সেই নির্বাচন হবে শেখ হাসিনার পতন অথবা পদত্যাগ, সংসদ বাতিল এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে।

‘সেই নির্দলীয় সরকার কীভাবে একটি সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন করবে সেই লক্ষ্যে তারা দায়িত্ব নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। তারা যখন আরেকটি নির্দলীয় গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কমিশন গঠন করবে, আমরা সেই নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে কথা বলব।’

মোশাররফ বলেন, ‘কিছুদিন আগে এই প্রধানমন্ত্রী জার্মানির সংবাদমাধ্যম ডয়েচে ভেলের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, তিনি আর নির্বাচন করবেন না। চারবার প্রধানমন্ত্রী হয়ে গেছেন। তিনি নাকি প্রধানমন্ত্রী হবেন না। তিনি (শেখ হাসিনা) বুঝতে পেরেছেন, আগামী নির্বাচন পর্যন্ত এই সরকার টিকে থাকতে পারবে না। আমরা স্পষ্ট করে বলেছি, আমাদের দল ক্ষমতায় গেলে প্রধানমন্ত্রী হবেন খালেদা জিয়া। আমি আজকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে জিজ্ঞাসা করতে চাই, তাদের নেত্রী বলেছেন, তিনি আর প্রধানমন্ত্রী হবেন না। তাহলে ভবিষ্যতে তারা যদি ক্ষমতায় আসেন আপনাদের প্রধানমন্ত্রী কে হবেনÑএটা জনগণকে জানান।’

‘বিদেশি ঋণের কথা সরকার বলছে না’

খন্দকার মোশাররফের অভিযোগ, ‘অর্থনীতির সূচকের সবকিছু প্রকাশিত হচ্ছে না। বৈদেশিক রিজার্ভের কথা বলা হচ্ছে। আপনারা দেখেছেন অর্থনীতিবিদ দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য নিজের স্টেটমেন্ট দিয়ে বলেছেন, আমাদের রিজার্ভ থেকে যে ঋণ দেয়া হচ্ছে পুরোপুরিভাবে সরকার সেই তথ্য দিচ্ছে না।’

আরও অনেক ঋণ নেয়া হচ্ছে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, বিদেশ থেকে যে ঋণ নেওয়া হয়েছে, খাতা-কলমে যেগুলো আছে। তা ছাড়া সাপ্লায়ার্স ক্রেডিটের নামে সাইডলাইনে সেসব ঋণ নেয়া হয়েছে। এগুলো যদি এক করা হয়, তাহলে দেশে অর্থনৈতিক অবস্থা শ্রীলঙ্কার থেকে ভালো নয়।

ডলারের দাম বাড়ছে বলে মন্তব্য করে এ বিএনপি নেতা বলেন, ‘এখন পর্যন্ত এই সরকারের চাপাবাজিতে আমাদের অর্থনীতি সঠিক আছে; সঠিক আছে, সঠিক আছে, বলছে। তাহলে ডলারের দাম যে বেড়ে যাচ্ছে। দুই মাস আগে যে ডলারের দাম ছিল ৮২ টাকা এখন সেটি ১০২ টাকা। এটার জন্য দায়ী কে? কে নিয়ন্ত্রণ করবে?

‘আসলে কোনো কিছু নিয়ন্ত্রণে নেই। আজকে যারা ক্ষমতায় তারাও ভালো নেই। ঘুম হয় না তাদের। ঘুম হয় না বলেই দেশের প্রধানমন্ত্রীর মুখে ‘অসংলগ্ন কুরুচিপূর্ণ’ বক্তব্য আসে। যদি তার আগের রাতে ঘুম হতো তাহলে এই ধরনের বক্তব্য একজন মানুষ দিতে পারেন না।’

পদ্মা সেতু ও খালেদা জিয়াকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় মোশাররফ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে কী প্রমাণিত হয়? খালেদা জিয়া তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, তিনি জনগণের নেত্রী। তাকে পদ্মা নদীতে টুপ করে ফেলে দিয়ে তাকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে এবং সেই নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন।’

বিএনপির আবদুস সালাম, রুহুল কুদ্দুস তালুদার দুলু, আমিরুল ইসলাম খান আলিম, যুবদলের সাইফুল আলম নীরব, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, এসএম জিলানী, প্রয়াত পিন্টুর বোন মহানগর উত্তরের যুগ্ম আহবায়ক ফেরদৌসী আহমেদ মিষ্টি, সম্মিলিত ছাত্র-যুব ফোরামের আহ্বায়ক নাহিদুল ইসলাম নাহিদ প্রমুখ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।